কবি ও আইনজীবী ইমতিয়াজ মাহমুদ গ্রেফতার

image

ফেইসবুকে ‘উসকানিমূলক’ বক্তব্য দেওয়ার অভিযোগে তথ্য-প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারার এক পুরোনো মামলায় কবি ও আইনজীবী ইমতিয়াজ মাহমুদকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। জামিনে থাকা তথ্য প্রযুক্তি মামলায় জামিনের মেয়াদ শেষ হলে ওয়ারেন্ট ইস্যু হয় ইমতিয়াজ মাহমুদের বিরুদ্ধে। ওয়ারেন্টের বিপরীতে বনানী থানা পুলিশ ১৫ মে বুধবার ইমতিয়াজকে বনানীর বাসা থেকে গ্রেফতার করে খাগড়াছড়িতে পাঠানো হয়।

বনানী থানার ওসি বিএম ফরমান আলী বলেন, ২০১৭ সালে খাগড়াছড়ি সদর থানায় ইমতিয়াজ মাহমুদের বিরুদ্ধে তথ্য-প্রযুক্তি আইনে একটি মামলা হয়। এতদিন ওই মামলায় তিনি জামিনে ছিলেন। মামলায় জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়ায় “তার নামে খাগড়াছড়ি থেকে একটা ওয়ারেন্ট এসেছে। ওয়ারেন্ট তামিল করতে সকালে তাকে বনানীর বাসা থেকে গ্রেফতার করেছে বনানী থানা পুলিশ। পরে তাকে মৌলবীবাজার পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

ইমতিয়াজ মাহমুদ সুপ্রিম কোর্টের একজন আইনজীবী। তিনি লেখালেখিও করেন। এক সময় তিনি বাম সংগঠনের ছাত্র ইউনিয়নের ছাত্র নেতা ছিলেন। শফিকুল ইসলাম নামে খাগড়াছড়ির এক ব্যক্তি ২০১৭ সালে ইমতিয়াজ মাহমুদের বিরুদ্ধে ৫৭ ধারার এ মামলা করেন। তার অভিযোগ, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ে ফেইসবুকে ‘উসকানিমূলক’ মন্তব্য করেছেন ইমতিয়াজ মাহমুদ। ওই মামলায় সে সময় গ্রেফতার হয়ে জেলেও যেতে হয়েছে তাকে। পরে সুপ্রিম কোর্ট থেকে পুলিশ প্রতিবেদন দাখিল পর্যন্ত জামিন পান ইমতিয়াজ।

এর আগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের এক মামলায় মঙ্গলবার বরিশাল থেকে গ্রেফতার হন কবি হেনরী স্বপন। ইস্টার সানডের দিন শ্রীলঙ্কায় গির্জায় বোমা হামলা নিয়ে ফেইসবুকে এক মন্তব্যে তিনি ‘ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত’ দিয়েছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে মামলায়। তাদের মুক্তির দাবিতে বিকেলে শাহবাগে বিক্ষোভের কর্মসূচি দিয়েছে কয়েকটি সংগঠন।