গজারিয়ায় ইউপি মেম্বার অবরুদ্ধ : সব ভাতা লাপাতা

image

বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, অনুদানের ঘরসহ নানা সরকারি সুবিধা দেয়ার নাম করে টাকা নিয়ে পরে কিছুই না দেয়ার অভিযোগ উঠেছে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার ইমামপুর ইউনিয়নের (ইউপি) ৮নং ওয়ার্ডের সদস্য (মেম্বার) সেলিম দাউদের বিরুদ্ধে। সোমবার (১৪ অক্টোবর) স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ ঘেরাও করে ভুক্তভোগীরা ওই মেম্বারকে অবরুদ্ধ করে রাখেন। ঘটনাস্থলে এসে ইমামপুর ইউপি চেয়ারম্যন মো. মনসুর আহমেদ খাঁন (জিন্নাহ) সবাইকে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ আদায় করে দেয়ার আশ্বাস দিলে ভুক্তোভোগীরা শান্ত হয়। অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে সেলিম দাউদ ও তার সমর্থকরা সাংবাদিকদের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন।

সরেজমিন দেখা গেছে, দুপুরে হোগলাকান্দি এলাকায় অবস্থিত ইমামপুর ইউনিয়ন পরিষদ ভবনটির চারপাশ ঘিরে রেখেছেন শতাধিক নারি-পুরুষ। প্রায় দুই ঘণ্টা তারা সেলিম মেম্বারকে ভবনের ভিতর অবরুদ্ধ করে রাখেন। উপস্থিত খাদিজা বেগম জানান, সরকারি ঘর পাইয়ে দেবার নাম করে মেম্বার সেলিম দাউদ তার কাছ থেকে দশ হাজার টাকা নেয়। তবে দীর্ঘদিন পরও ঘর না পাওয়ায় আজ তিনি টাকা ফেরত পেতে ইউনিয়ন পরিষদে এসেছেন। আরেক ভুক্তভোগী প্রতিবন্ধী ইলিয়াস হোসেন জানান, প্রতিবন্ধী ভাতা পাইয়ে দেবার নাম করে মেম্বার সেলিম দাউদ তার কাছ থেকে দুই হাজার টাকা নেয়। কিন্তু এখনও তিনি সে ভাতা পাননি। শেফিলী রাণী, মৌমিতা রাণী, খোরশেদা, মাফিয়া বেগমসহ বিশের অধিক ভুক্তভোগীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বিভিন্ন সরকারি সুবিধাদি পাইয়ে দেবার নাম করে মোটা অংকের টাকা আদায় করেছে মেম্বার সেলিম দাউদ। ইমামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. মসনুর আহমেদ খান জিন্নাহ সাংবাদিকদের বলেন, বিষয়টি অনাকাক্সিক্ষত তবে ভুক্তভোগীরা যাতে যথাযথ ক্ষতিপূরণ পায় এ ব্যাপারে যথাসাধ্য চেষ্টা করা হবে।