চলতি মাস ঝুঁকির মাস ঢাকা চিন্তার বিষয়!

http://thesangbad.net/images/2020/April/08Apr20/news/bd%20%281%29.jpg

করোনাভাইরাসে এপ্রিল মাসে বাংলাদেশ সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ। এর মধ্যে রাজধানী ঢাকা অধিকতর ঝুঁকিপূর্ণ। অত্যাবশ্যক প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে বের না হতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বিভিন্ন জেলা, শহর, সড়ক ও বাড়ি লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু তারপরও নগরবাসীর অনেকেই নির্দেশনা মানছেন না। নানা অজুহাত দাঁড় করিয়ে তারা রাস্তাঘাটে প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস, মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন যানবাহন নিয়ে বাইরে বের হচ্ছেন। তাই এ সময় নিজেকে ও বাংলাদেশ বাঁচাতে বাড়ি থেকে বের হতে নিষেধ করেছে বিশেষজ্ঞরা।

এ বিষয়ে ৭ এপ্রিল মঙ্গলবার এক অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণের জন্য চলতি মাস (এপ্রিল মাস) বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। আমরা এখন লকডাউন অবস্থায় আছি। বিদেশ থেকে যারা এসেছেন তাদের অনেকই সঙ্গরোধে (হোম কোয়ারেন্টিন) ছিলেন, এখনও অনেকে আছেন। যথাযথ ব্যবস্থার কারণেই আমাদের দেশে করোনা পরিস্থিতি পৃথিবীর অনেক দেশের তুলনায় অনেক ভালো। তবে চলতি মাস আমাদের দেশের জন্য অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ; তাই সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।

তিনি বলেন, করোনার সময়ে ৯ লাখ মানুষ বাইরে থেকে এসেছেন। তারপরও আমরা ভালো আছি। এই মাসটা খুব ক্রিটিক্যাল, এই মাসে সাহসিকতার সঙ্গে কাজ করতে হবে। করোনা মোকাবিলায় সব পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী সার্বক্ষণিক আমাদের দিকনির্দেশনা দিচ্ছেন। যেসব এলাকায় বাড়িতে করোনা রোগী আছে সেগুলোর দিকে বেশি করে লক্ষ রাখতে হবে। আমরা টেস্টিং ল্যাব বাড়াচ্ছি। বিশেষ করে যারা বিদেশ থেকে এসেছেন, আর তাদের আশপাশে যারা আছেন তাদের নমুনা সংগ্রহ করে নিকটস্থ ল্যাবে পাঠাবেন।

এদিকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া ভয়াবহ ছোঁয়াচে করোনাভাইরাস সংক্রমণে ক্রমেই রাজধানী ঢাকা অধিকতর ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠছে। বাংলাদেশে এ পর্যন্ত মোট রোগী শনাক্ত হলো ২১৮ জন। এর মধ্যে ঢাকায় শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ১২৪ জন। দ্বিগুণ হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে ঢাকার করোনা রোগীর সংখ্যা। মঙ্গলবার ২৪ ঘণ্টায় ৪১ জন করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়। এর মধ্যে ২০ জন ঢাকায় ও ১৫ জন নারায়ণগঞ্জে শনাক্ত হয়। বুধবার (৮ এপ্রিল) শনাক্ত হওয়া ৫৪ জন রোগীর মধ্যে ৩৯ জন ঢাকায়। রাজধানী ঢাকা অধিক ঘনবসতিপূর্ণ হওযায় রোগটির দ্রুত সংক্রমিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্বাস্থ্যমন্ত্রীসহ একাধিক মন্ত্রী, স্বাস্থ্য মহাপরিচালক ও রোগতত্ত্ববিদ বারবার দেশবাসীকে বর্তমান পরিস্থিতিতে জনসমাগম এড়িয়ে চলা, অত্যাবশ্যক প্রয়োজনে বাইরে বের হলে মুখে মাস্ক ও হাতে গ্লাভস পরে বের হওয়ার পরামর্শ দিলেও তা মানছেন না। এ হিসেবে এ মুহূর্তে ঢাকাকে অধিক ঝুঁকিপূর্ণ বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ জানান, শুরুর দিকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ব্যক্তি ও পারিবারিক পর্যায়ে খুবই ধীর গতিতে হলেও বর্তমানে সামাজিক সংক্রমণ ঘটছে। সারাদেশে চারটি জেলা ক্লাস্টার চিহ্নিত করা হয়েছে (নির্দিষ্ট একটি এলাকায় ছড়িয়ে পড়া) ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, মাদারীপুরে ও গাইবান্ধা। এক্ষেত্রে রাজধানীতেই সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি রয়েছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকার, ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের চেয়ে ব্যক্তির ভূমিকা বেশি। এক্ষেত্রে সরকার সংক্রমণ রোধে যত প্রচেষ্টা ও পদক্ষেপই গ্রহণ করুক না কেন ব্যক্তির সচেতনতাই অন্যকে সংক্রমণ থেকে রক্ষা করতে পারে।

এ বিষয়ে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, দেশে সীমিত পরিসরে হলেও সামাজিক সংক্রমণ বাড়ছে। সংক্রমণ রোধে অনেকেই সতর্কতামূলক নির্দেশনা মেনে চলছেন না। এতে সংক্রমণ বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে। আক্রান্ত রোগীদের দুইভাবে হাসপাতালে ও বাসায় রেখে চিকিৎসা চলছে। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা অনুসারে হোমকেয়ার গাইডলাইন অনুযায়ী মৃদু লক্ষণ ও উপসর্গ (সামান্য জ্বর, ঠা-া ও কাশি) থাকা রোগীদের বাসায় রেখে চিকিৎসা করা হয়। তাদের একটি নির্দিষ্ট ঘরে আইসোলেশন রেখে চিকিৎসা করা হয়। এদের ক্ষেত্রে শুধু তারাই নন, তাদের সংস্পর্শে আসা অন্যদের নামের তালিকা সংগ্রহ করে প্রতিদিন ফোন করে সমস্যা হচ্ছে কিনা জানতে চাওয়া হয়।

সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা : সংবাদ সম্পাদক

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে দৈনিক সংবাদের সকল পাঠক, লেখক, বিজ্ঞাপনদাতা, শুভাকাঙ্খী ও শুভানুধ্যায়ীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা । ঈদ সবার জীবনের বয়ে আনুক অনাবিল সুখ আর আনন্দ-সম্পাদক

করোনায় মারা গেলেন আওয়ামী লীগের সাবেক এমপি হাজী মকবুল

image

এস আলম গ্রুপের চেয়ারম্যান সাইফুল আলম মাসুদের মা ও ছেলে করোনায় আক্রান্ত

দেশের অন্যতম শীর্ষ ব্যবসায়িক গোষ্ঠী এস আলম গ্রুপের চেয়ারম্যান সাইফুল আলম মাসুদের মা ও ছেলেরও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে। শনিবার বিআইটিআইডির ল্যাবে নমুনা পরীক্ষায় সাইফুলের মা চেমন আরা বেগম (৮৫) এবং ছেলে ইউনিয়ন ব্যাংকের চেয়ারম্যান আহসানুল আলমের (২৬) করোনাভাইরাস পজিটিভ আসে বলে তার ভাগ্নে আরিফ আহমেদ জানান।

চট্টগ্রামের ৭ উপজেলার অর্ধশত গ্রামে আজ ঈদ

image

করোনাকে ফাঁকি দেওয়ার সুযোগ নেই : কাদের

image

শিক্ষক পরিচয় গোপন দলীয় পরিচয়ে ত্রাণ ভাগবাটোয়ারা ও সংবাদ সম্মেলন

image

ঈদযাত্রায় প্রাইভেট গাড়ী চলাচলের অনুমতি দেওয়া সরকারের আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত : যাত্রী অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ

image

মির্জাপুরে পুলিশ সুপারের খাদ্যসামগ্রী বিতরণ

image

সশস্ত্র বাহিনীর বর্তমান ও সাবেক ১০২০ জন করোনায় আক্রান্ত

image