ভালো নেই বানভাসি মানুষ

ভালো নেই বানভাসি মানুষ। পানি নেমে গেলেও কর্মহীন ও অর্থাভাবে ঘরবাড়ি তুলে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারছে না। সেই সঙ্গে খাদ্য সংকট ও ছড়িয়ে পড়া পানিবাহিত রোগ মোকাবিলা করতে হচ্ছে। চর ও নিম্নাঞ্চলের মানুষের ভরসা গবাদিপশু রোগে আক্রান্ত হওয়ায় বিপাকে পড়েছে তারা। ঈদে কোথাও কিছু কিছু ত্রাণ সহায়তা দেয়া হলেও এবার ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে পারেনি বানভাসি মানুষ। কৃষি জমির ব্যাপক ক্ষতি সাধনে তারা দিশেহারা। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে এ চিত্র উঠে এসেছে।

কুড়িগ্রাম : কুড়িগ্রামে বন্যা পরবর্তী সময়ে ছড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন রোগব্যাধি। মানুষের পাশাপাশি আক্রান্ত হচ্ছে গবাদিপশুও। বানভাসি মানুষ বন্যার ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে না উঠতে রোগব্যাধি নিয়ে যেমন রয়েছে চরম দুশ্চিন্তায়। তেমনি হাতে টাকা-পয়সা না থাকায় ঘরবাড়ি মেরামত করা, ভেঙেপড়া নলকূপ ও ল্যাট্রিন সংস্কার নিয়ে রয়েছে বিপাকে। এই অবস্থায় সরকারিভাবে সহযোগিতা করা হলেও তা অপ্রতুল। এখনও মানুষ ও গবাদিপশু খাদ্য সংকটে ভুগছে।

জেলা প্রাণিসম্পদ অফিস সূত্র জানায়, চলতি বন্যায় ৩ হাজার ৮৯২টি গরু লাম্পি স্কিন ডিজিজসহ অন্য রোগে আক্রান্ত হয়েছে। এছাড়াও বন্যার পূর্বে ২৬ হাজার ৩শ’ গরুকে টিকা প্রদান করা হয় বলে জানানো হয়েছে। কিন্তু মাঠের চিত্র ভিন্ন। এখনও সাড়ে ৪ শতাধিক চরে অসংখ্য গরু লাম্পি স্কিনসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত বলে জনপ্রতিনিধিসহ ভুক্তভোগীরা জানিয়েছেন।

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি বন্যায় জেলার ৯টি উপজেলার ৭৫টি ইউনিয়নের মধ্যে ৫৬টি ইউনিয়নের ৪৭৫টি গ্রামের মানুষ পানিবন্দী হয়েছে। জলবন্দী, নদীভাঙন ও পানিবন্দী মানুষের সংখ্যা আড়াই লাখ। বন্যায় প্রায় ৬৩ হাজার বাড়িঘর পানিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। রোগব্যাধিতে আক্রান্ত হয়েছে শতশত গবাদিপশু। নলকূপ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৪২ হাজার ২৩৭টি। বন্যার পানিতে ডুবে মারা গেছে শিশুসহ ২২ জন। বন্যার পানি বিপদসীমার উপর থেকে কমতে শুরু করার পর থেকে দেখা দিয়েছে পানিবাহিত রোগের প্রকোপ। চরাঞ্চলের মানুষদের হাত, পা ও আঙ্গুল ফেটে যাচ্ছে। শরীরে বাসা বাধছে নানান জটিল রোগ। জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ বন্যাকালীন সময়ে ৮৫টি মেডিকেল টিম গঠনের কথা বললেও দুর্গম চরাঞ্চলে চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হাজার হাজার চরাঞ্চলবাসী। বন্যায় নলকূপ ও লেট্রিন ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় তা এখন ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে উঠেছে। পানি নেমে যাওয়ার পর এসব সংস্কার নিয়ে বিপাকে রয়েছে মানুষ। অর্থের অভাবে ভাঙা কুটিরেই অনেকে অবস্থান নিয়েছে।

টাঙ্গাইল : দীর্ঘস্থায়ী বন্যায় ডুবে আছে টাঙ্গাইলের অধিকাংশ অঞ্চল। এরমধ্যে চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চলের প্রায় সবকটি গ্রামের সর্বত্রই থৈ থৈ করছে পানি। করোনার প্রভাব, নদী ভাঙন, ফসলহানি ও লম্বা সময় ধরে কর্মহীন থাকায় প্রভাব পড়েছে ঈদ পালনে। ঈদের দিনটিও তাদের অন্যদিনের মতোই কেটেছে নিদারুণ কষ্টে। বিশেষ করে টাঙ্গাইল সদর, ভুঞাপুর, গোপালপুর, কালিহাতী, বাসাইল ও নাগরপুর উপজেলার অন্তত ৯৫টি ইউনিয়নের কয়েক লক্ষাধিক মানুষ ঈদের দিনটি পার করেছে অন্যান্য সাদাকালো দিনের মতোই। ঈদ কোন বাড়তি উপলক্ষ নিয়ে আসতে পারেনি এসব বানভাসি মানুষদের।

ভুঞাপুর উপজেলার গাবাসারা ইউনিয়নের মেঘারপটল গ্রামের ৭০ বছরের প্রতিবন্ধী জামাল শেখ পরিবার। এই জীবনে দশবার নদী ভাঙনের কবলে পড়ে তিনি এখন নিস্ব। আশ্রয় নিয়েছেন অন্যের সামান্য উঁচু ভিটায়। দুটি সন্তান নিজেদের মতো পৃথক সংসার করায় প্রতিবন্ধী ভাতার উপর নির্ভর করে চলছে হয় গোটা জীবন। শেষ কবে ঈদ পালন করেছেন সেটিই মনে করতে পারেন না তিনি। জামাল শেখের স্ত্রী মরিয়ম বেওয়া বলেন, আমাদের ঈদের আনন্দ নেই। আশপাশের কেউ সহযোগিতা করলে তবেই জুটবে আহার। জামাল শেখকে সহযোগিতা করবেন এমন সঙ্গতি নেই কারও। কর্মহীন মানুষগুলো যেখানে প্রতিদিনের জীবন পার করছেন অনাহারে-অর্ধাহারে সেখানে ঈদ পালন তাদের কাছে দিবাস্বপ্নই। যদিও এক বা দু’জনের ঈদের আনুষ্ঠানিকতা পালনের সঙ্গতি ছিল তারাও বর্তমান বৈরি পরিস্থিতির কারণে বাদ দিয়েছেন।

ভুঞাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, কিছুটা হলেও ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে সরকারের পক্ষ থেকে নানা পদক্ষেপ নেয়া হয়েছিল।

এদিকে জেলায় ৫ নদীর পানি এখনও বিপদসীমার উপরে রয়েছে। জেলা প্রশাসনের জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন অফিস সূত্র জানায়, জেলায় ১২টি উপজেলার মধ্যে ১১টি উপজেলার নিমাঞ্চল এবং চরাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। বন্যা কবলিত উপজেলাগুলো হলো- টাঙ্গাইল সদর, নাগরপুর, দেলদুয়ার, ভুঞাপুর, কালিহাতী, ধনবাড়ী, গোপালপুর, বাসাইল, মির্জাপুর, সখীপুর এবং ঘাটাইল। ১১টি উপজেলার ৯৫টি ইউনিয়নের অন্তত ৮৪৪টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। অন্যদিকে ৬টি পৌরসভা আংশিক এলাকা প্লাবিত হয়েছে। বন্যায় ৫ লাখ ৭১ হাজার ২৭ জন মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পানিবন্দী পরিবারের সংখ্যা ৫১ হাজার ৪০৫টি। আর পানিবন্দী লোকসংখ্যা ৩ লাখ ৫ হাজার ৬২০ জন। অন্যদিকে ৭৮০টি ঘরবাড়ি সম্পূর্ণ নদীতে বিলীন হয়ে গেছে এবং আরও আংশিক ৩৫ হাজার ৯৮৯টি ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়াও ২টি স্কুল নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। আংশিক আরও ৩১৯টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়া নদী ভাঙনে ১টি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত এবং আংশিক ২৩০টি প্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এই ১১ উপজেলার ৭৯১ বর্গকিলোমিটার এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

সূত্র আরও জানায়, জেলায় এখন পর্যন্ত ১৩ কি.মি. সম্পূর্ণ কাঁচা রাস্তা এবং আংশিক ৭৭৫ কি.মি. কাঁচা রাস্তা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। অন্যদিকে সম্পূর্ণ ১ কি.মি. পাকা রাস্তা এবং ১৮৬ কি.মি. আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়াও সম্পূর্ণ ২৬টি ব্রিজ এবং আংশিক ১৭৮টি ব্রিজ ক্ষতি হয়েছে। সম্পূর্ণ ১.৮ কি.মি. এবং ১৩ কি.মি. আংশিক নদীর বাঁধ ক্ষতি হয়েছে। অন্যদিকে টিউওবেল ৯২৫৯টি ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া জেলায় মোট ৩০টি আশ্রয়কেন্দ্র রয়েছে। এই আশ্রয়কেন্দ্রের লোকসংখ্যা ৭২৮ জন। ১৩টি গবাদিপশুও আশ্রয় নেয়। ১১৩টি মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে।

সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) : গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বেলকা ইউনিয়নে বানভাসি ও অসহায়দের মাঝে কোরবানির মাংস বিতরণ করা হয়েছে। আল খায়ের ফাউন্ডেশনের অর্থায়নে সমকাল সুহৃদের আয়োজনে গত ৩ আহস্ট সোমবার তিস্তার খেয়াঘাটসংলগ্ন বেলকা বাজারে বানভাসি ও অসহায়দের মাঝে কোরবানির মাংস বিতরণ করা হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সুহৃদ সভাপতি অজিত কুমার রায়, সাংগঠনিক সম্পাদক হযরত বেল্লাল, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব আনিছুর রহমান, আবদুর রাজ্জাক, একরামুল হক, গোলাম রব্বানী, রাশেদুল ইসলাম, সমকাল উপজেলা প্রতিনিধি আবদুল মান্নান আকন্দ প্রমুখ। উপজেলায় কমপক্ষে ১০০ জন বানভাসি ও অসহায়দের মাঝে মাংস বিতরণ করা হয়।

ইয়াবা ব্যবসায়ীদের ছাড় দেয়া হবে না : টেকনাফে ডিআইজি আনোয়ার

image

আগামী সপ্তাহে এইচএসসি পরীক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত

আগামী সোম বা মঙ্গলবার এইচএসসি পরীক্ষার রুটিনসহ এ সংক্রান্ত পূর্ণাঙ্গ পরিকল্পনা প্রকাশ করা হবে জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, ‘আমরা চার সপ্তাহের সময় দিয়ে এইচএসসি পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করব।

বিদ্যুতের অস্বাভাবিক বিল রোধ ও লোডশেডিং বন্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের সুপারিশ

অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্নকরণ, অস্বাভাবিক ও অনাকাঙ্খিত বিদ্যুৎ বিল রোধ এবং লোডশেডিং দূরীকরণে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করেছে সরকারি প্রতিশ্রুতি সম্পর্কিত কমিটি।

কলেজ কর্তৃপক্ষের ত্রুটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে - শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটি

সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে গণধর্ষণের ঘটনায় গঠিত শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের তদন্ত কমিটির প্রধান প্রফেসর শাহেদুল কবির চৌধুরী বলেছেন

বিএমপির সকল কর্মকর্তাদের মোবাইল ফোন নম্বর পরিবর্তন হচ্ছে

১লা অক্টোবর থেকে সারাদেশের পুলিশের ন্যায় বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের

পাটকল চালুর দাবীতে বরিশালে বিক্ষোভ

রাষ্ট্রীয় পাটকল চালু করার মাধ্যমে আধুনিকায়ন করণ, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল সহ ১০ দফা দাবীতে বরিশালে বিক্ষোভ সমাবেশ

বিকাশ হ্যাকার চক্রের ৯ সদস্য গ্রেফতার

মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) রাতে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে বিকাশ হ্যাকার চক্রের ৯ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) বিভাগ।

সরকারি হাতেম আলী কলেজের প্রধান সহকারিকে লঞ্ছিত করেছে ছাত্রলীগের ক্যাডাররা

অবৈধভাবে শিক্ষার্থী ভর্তি করাতে না পেরে বরিশাল সরকারি সৈয়দ হাতেম আলী কলেজের প্রধান সহকারী ওয়াহিদুজ্জামান সুমনকে মারধর

দক্ষিণাঞ্চলের বরগুনায় একটি হত্যাকারী কিশোর গ্যাংয়ের বিচারে সকল মহলে নতুন আশা

বরগুনার বহুল আলোচিত রিফাত হত্যার বিচারের মধ্যে দিয়ে বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) দক্ষিণাঞ্চলে প্রথম কোন কিশোর গ্যাং-এর বিচার