লঞ্চঘাটের রাস্তার নিচের মাটি ইতিমধ্যে নদী গর্ভে

image

রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী) : এভাবেই বিলীন হচ্ছে কোড়ালিয়া লঞ্চ ঘাট-সড়ক-সংবাদ

নদী গর্ভে বিলীন হতে যাচ্ছে পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার কোড়ালিয়া লঞ্চঘাট। ঝুঁকির মুখে রয়েছে লঞ্চঘাটের পাকা রাস্তাসহ দোকান পাট। রাস্তার নিচের মাটি নদী গর্ভে চলে গেছে। বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় ঝুঁকি নিয়ে ওই রাস্তা দিয়ে যান বাহনে আসা যাওয়া করছে। যে কোন সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে মনে করছেন সবাই।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, রাঙ্গাবালীর সর্ববৃহৎ লঞ্চ ঘাট কোড়ালিয়া। দেশের যে কোন অঞ্চল থেকে স্থল বা নৌপথে রাঙ্গাবালী যেতে হলে প্রথমেই পড়ে কোড়ালিয়া লঞ্চ ঘাট। প্রতিদিন শতশত যাত্রী আসা যাওয়া করে ওই ঘাট দিয়ে। ঢাকা থেকে দুটি দোতলা ও পটুয়াখালী থেকে তিনটি একতলা লঞ্চ নিয়মিত আসা যাওয়া করে। এছাড়াও পানপট্টি থেকে কোড়ালিয়া,স্পীড বোটে যাতায়াত করে যাত্রীরা। এ জন্যই যাত্রীদের ভিড় থাকে বেশি। টারমিনাল থেকে শুরু করে ১০০ মিটারের মতো পাকা রাস্তা এখন ঝুঁকির মুখে।। আগুনমুখা নদীর ঢেউয়ে রাস্তার নিচের মাটি অধিকাংশ চলে গেছে নদী গর্ভে। দু’মাথায় ও এক পাশে কিছু মাটি থাকায় কোন মতে টিকে আছে রাস্তাটি। বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায়, ওই রাস্তা দিয়ে মোটরসাইকেল ও টমটমে আসা যাওয়া করে যাত্রী সহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ। রাস্তা ভেঙ্গে নিচে পরে গিয়ে যে কোন সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে এমনটা আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। লঞ্চ ঘাটের দোকানদাররা জানান, নদী ভাঙনের কবলে পরে দুইবার তাদের দোকান সরিয়ে নিতে বাধ্য হয়েছে এখন আর সরানোর মতো কোন জায়গা নেই। বাধ্য হয়ে ব্যবসা ছেড়ে দিতে হবে। সামনের রাস্তাটির নিচের মাটি চলে গেছে নদীতে। অন্য কোন জায়গা না থাকায় ওই রাস্তার ওপর মোটরসাইকেল ও টমটম রাখতে বাধ্য হয় চালকরা। যে কোন সময় রাস্তা ভেঙ্গে নিচে পরে গিয়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। কোড়ালিয়া গ্রামের বশির হওলাদার, জাহাঙ্গীর হাওলাদার জানান, রাস্তাটি ঝুঁকিপূর্ণ। অবিলম্বে বিকল্প রাস্তা নির্মাণ করা একান্ত প্রয়োজন।