সুনামগঞ্জে পাহাড়ি ঢল-বৃষ্টিতে ৩শ’ কিমি. সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত

image

সুনামগঞ্জ : পাহাড়ি ঢল ও ভারি বর্ষণে বিধ্বস্ত সড়ক-সংবাদ

সীমান্তের ওপার থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে ও ভারি বৃষ্টি পাতের কারণে সৃষ্ট বন্যায় সুনামগঞ্জ জেলার বিভিন্ন সড়ক বিধ্বস্ত হয়ে যান চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে। শুধু পাকা সড়ক নয় গ্রামীণ অভ্যন্তরীণ মাটির সড়ক ও সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়েছে। ফলে এসব সড়কে চলাচলকারী লক্ষ লক্ষ মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়েছেন। এসব সড়কের ক্ষয়ক্ষতি টাকার অঙ্কে প্রায় ৩শ কোটি হবে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। সুনামগঞ্জ এলজিইডি নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মাহবুব আলম জানান সম্প্রতি বন্যায় ১১টি উপজেলায় বিভিন্ন সড়কে প্রায় ৩শ কিলোমিটার সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে যা টাকার অঙ্কে প্রায় ২৫০ কোটি টাকা হবে। তিনি আরও জানান উল্লেখযোগ্য ক্ষতিগ্রস্ত সড়কগুলো হচ্ছে, জামালগঞ্জ সেলিমগঞ্জ ১০০ মিটার, সুনামগঞ্জ ছাতক সড়কের কাটাখালির পাশে ২০০ মিটার, হাসাউরা মাঠগাও সড়কে ৩০ মিটার, সুনামগঞ্জ নবীনগর, ধারারগাও, মঙ্গল কাটা সড়কে ৪০ মিটার, ধর্মপাশা মধ্য নগর, কলমাকানদা সড়কে ১০০মিটার, দোয়ারা বাজার, হক নগর, বাংলা বাজার সড়কে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। জাউয়া বাজার, ছাতক সড়ক এখনও পানির নিচে প্লাবিত রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে। এছাড়া জেলার বিভিন্ন স্থানে ব্রিজ, কালভার্ট এর এপরোচ প্রচুর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে । আবার অনেক স্থানে ওয়াশ আউট হয়ে ব্রিজ থেকে মাটি সরে গিয়ে একেবারেই যান চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ফলে মানুষের দুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে। সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগ সুনামগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. জহিরুল ইসলাম জানান, আমাদের ১১ উপজেলার ৫টি সড়ক বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বেশি। প্রায় ২৫কিলোমিটার এর উপর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যা টাকার অঙ্কে প্রায় ২৫ কোটি টাকা হবে। ক্ষতিগ্রস্ত সড়কগুলো হচ্ছে, বিশ্বম্ভরপুর, তাহিরপুর, জামালগঞ্জ, সুনামগঞ্জ। দোয়ারা বাজার, ছাতক সড়ক। গোবিন্দগঞ্জ, ছাতক দোয়ারা বাজার সড়ক। বিশ্বম্ভরপুর, কাঁচিরগাতি সড়ক। এসব সড়কে প্রচুর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ইতোমধ্যে সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলো নিজ নিজ উরধবতন কর্তৃপক্ষ বরাবর ক্ষয়ক্ষতির প্রতিবেদন পাঠিয়েছেন। তারা জানিয়েছেন যত দ্রুত বরাদ্দ আসবে আমরা তত দ্রুত মেরামত ও সংস্কার কাজ শুরু করব। এই সড়কগুলো ছাড়া ও গ্রামীণ অভ্যন্তরীণ মাটির সড়কগুলো ও অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সম্প্রতি সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. আব্দুল আহাদ ক্ষতিগ্রস্ত বিভিন্ন সড়ক পরিদর্শন করে সংশ্লিষ্টদের তাগিদ দিয়েছেন দ্রুত মেরামত ও সংস্কার করে মানুষের দুর্ভোগ লাগব করতে।