এবারও কঠিন হবে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যপূরণ

image

বেসরকারি খাতে ১৪ দশমিক ৮০ শতাংশ ঋণ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যপূরণ করাও কঠিন হবে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, চলতি অর্থবছরের মুদ্রানীতিতে যে লক্ষ্য ধরা হয়েছে তা গত অর্থবছরের প্রকৃত প্রবৃদ্ধির চেয়ে বেশি। অর্থাৎ গত বছরের মুদ্রানীতির লক্ষ্য থেকে অনেক কম বিতরণ হয়েছে। এর মূল কারণ বাজারের ঋণের চাহিদা কম এবং ব্যাংকগুলোতে তারল্য সংকট। চলতি অর্থবছরের ঋণ বিতরণ লক্ষ্যও একই কারণে ব্যর্থ হবে। তবে মূল্যস্ফীতি ও জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যপূরণ হবে বলে মনে করছেন তারা। মুদ্রানীতি ঘোষণা বছরের একবার করার সিদ্ধান্তও মুদ্রাবাজারের সঙ্গে সামঞ্জস্য নয় বলে মনে করছেন অনেকে। তাদের মতে মুদ্রানীতি একটি প্রাক্কলন মাত্র। অর্থনীতির প্রাক্কলন যত অল্প সময়ের জন্য হয় ততই ভালো। এছাড়া বছরে একবার মুদ্রানীতি দেয়া হলে তা হয়ত বাজেটের মধ্যেই হারিয়ে যাবে এমন আশঙ্কাও রয়েছে তাদের। তবে যদি একবছরের জন্যও করা হয় তবে মধ্যবর্তী সময়ে পুনর্মূল্যায়ন (রিভিও) করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশ্লেষকরা।

বুুধবার ২০১৯-২০ অর্থবছরের জন্য নতুন মুদ্রানীতি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এতোদিন বছরের দুই বার মুদ্রানীতি ঘোষণা হলেও চলতি মুদ্রানীতিটি করা হয়েছে পুরো বছরের জন্য। বছরের দ্বিতীয়ার্ধের জন্য মুদ্রানীতি ঘোষণাতে বিশেষ কোন তাৎপর্য দেখছে না কেন্দ্রীয় ব্যাংক। তাই বছরে একবারই মুদ্রানীতি ঘোষণার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন গভর্নর ফজলে কবির। ঘোষিত মুদ্রানীতিতে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য ধরা হয়েছে ১৪ দশমিক ৮ শতাংশ। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এ খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধি ১৬ দশমিক ৫০ শতাংশ প্রাক্কলন করা হয়েছিল। কিন্তু অর্থবছর শেষে অর্জিত হয়েছে মাত্র ১১ দশমিক ৩০ শতাংশ। বেসরকারি খাতে কমলেও বাড়ানো হয়েছে সরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য। ২০২০ সালের জুন পর্যন্ত সরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য ধরা হয়েছে ২৪ দশমিক ৩ শতাংশ। যদিও ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ১০ দশমিক ৯ শতাংশ ধরা হয়েছিল। কিন্তু অর্থবছরের শেষে অর্জিত হয়েছে প্রায় দ্বিগুণ, তথা ২১ দশমিক ১ শতাংশ। তবে ঘোষিত মুদ্রানীতিতে রেপো ও রিভার্স রেপোর সুদহার যথাক্রমে ৬ ও ৪ দশমিক ৭৫ শতাংশ অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে।

এ বিষযে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর ইব্রাহীম খালেদ বলেন, প্রাইভেট সেক্টরে ক্রেডিট গ্রোথের যে লক্ষ্য ধরা হয়েছে তা এবছরও ফেল করবে। কারণ এ খাতে ক্রেডিটের চাহিদা যেমন কম তেমন তারল্য সঙ্কটও রয়েছে। তবে চাহিদা কেন কম তা কেন্দ্রীয় ব্যাংককে গবেষণা করে বের করতে হবে। তবে মুদ্রাস্ফীতি ও জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যপূরণ হবে। কেননা মেগা প্রকল্পগুলোর বিনিয়োগও জিডিপিতে যোগ হয়। সুতরাং মেগা প্রজেক্টগুলো এবছরও চলমান রয়েছে।

বছরে একবার মুদ্রানীতি ঘোষণার বিষয়ে তিনি বলেন, এটি মনে হয় ঠিক হবে না। কারণ মুদ্রানীতি একটি প্রজেকশন মাত্র। আর প্রজেকশন যত কম সময়ের জন্য হয় ততই ভালো। তবে পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে নীতিগুলোকে সমন্বয় করা যায়। তবে যদি এক বছরের জন্যও করা হয় তবে মাঝখানে রিভিও করতে হবে। যাতে প্রকৃত চিত্র বোঝা যায়।

ড. সালেহ উদ্দিন গভর্নর থাকার সময় ২০০৬ সালের জানুয়ারিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক প্রথমবারের মতো অর্থবছরের দ্বিতীয়ার্ধের জন্য মুদ্রানীতি ঘোষণা করে। এর আগে বছরে একবারই মুদ্রানীতি ঘোষণা হত।

বুধবার মুদ্রানীতি ঘোষণা অনুষ্ঠানের লিখিত বক্তব্যে বছরে একবার মুদ্রানীতি ঘোষণার পক্ষে যুক্তি দিয়ে বর্তমান গভর্নর ফজলে কবির বলেন, প্রথাগতভাবে অর্থবছরের শুরুতে সমগ্র বছরের জন্য মুদ্রানীতি কার্যক্রম প্রণয়ন করা হয় এবং মধ্যবর্তীকালে যেকোন সময়ে নীতি সুদহার ও নগদ জমার/তারল্যের বিধিবদ্ধ হারসমূহকে প্রয়োজনসাপেক্ষে তাৎক্ষণিকভাবে পরিবর্তন করে প্রকাশ করা হয়। সুতরাং অর্থবছরের দ্বিতীয়ার্ধের জন্য আলাদাভাবে মুদ্রানীতি ঘোষণা বিশেষ কোন তাৎপর্য বহন করে না।

এ বিষয়ে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা এ বি মির্জ্জা আজিজুল ইসলামও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বর্তমান অবস্থানের সঙ্গে একমত নন। তিনি বলেন, মুদ্রানীতি একটা স্বল্পমেয়াদি পলিসি টুল। এটা বছরে দু’বার হওয়া ভালো। বাংলাদেশে এমনিতে মুদ্রানীতি তেমন কাজ করে না, মুদ্রানীতির লক্ষ্যগুলো অর্জিত হয় না। কিন্তু মুদ্রানীতির কিছু সিগন্যালিং ইফেক্ট আছে। বছরে একবার হলে সেটাও আর থাকবে না।

ডুয়িং বিজনেস রেংকিংয়ে বাংলাদেশের অবস্থান নিশ্চিত করার জন্য বিডাকে উদ্যোগ নেয়ার আহ্বান

image

শিগগিরই পুঁজিবাজারে আসছে সরকারি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান

image

গার্ডিয়ান লাইফের ৬ষ্ঠ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীউদযাপন

image

শিক্ষার্থীরাই দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে: আইনমন্ত্রী

image

ক্যাসিনো সামগ্রী আমদানি বন্ধ করা হয়েছে : এনবিআর চেয়ারম্যান

image

চামড়া সংরক্ষণের গোডাউন স্থাপন করা হবে প্রতিটি জেলায় : শিল্পমন্ত্রী

image

ব্যবসা পরিচালনার সূচকে উন্নয়নে সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টা দরকার

image

জুনিয়র চেম্বার ইন্টারন্যাশনালের পুরস্কার পেলেন শায়ান এফ রহমান

image

বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কয়লা প্রথম জাহাজ পায়রা বন্দরে

image