ডিএসইতে প্রধান সূচক সামান্য বাড়লেও সিএসইতে সব সূচকের পতন

image

সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস বৃহস্পতিবার দেশের শেয়ারবাজারে বেশিরভাগ দামি কোম্পানির শেয়ারের দরপতন হয়েছে। এতে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার পরও সূচকে মিশ্র প্রবণতা দেখা গেছে। সেই সঙ্গে কমেছে লেনদেনের পরিমাণ। প্রধান শেয়ারবাজর ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান মূল্যসূচক বাড়লেও কমেছে বাছাই করা ডিএসই-৩০ সূচক। আর অপর শেয়ারবাজর চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সবক’টি মূল্যসূচকের পতন হয়েছে।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, বৃহস্পতিবার (৩ অক্টোবর) সূচকের নেতিবাচক প্রবণতা দেখা দিলেও দুই বাজারেই বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া ১৭৩টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার বিপরীতে দরপতন হয়েছে ১৩১টির। আর ৫০টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়লেও শেয়ারের দামের দিক থেকে শীর্ষে থাকা ১০টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৯টি শেয়ারের দাম কমেছে। বিপরীতে দাম বেড়েছে মাত্র ১টির। আর শেয়ার দাম ৪শ’ টাকার ওপরে থাকা ২২টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৫টির দরপতন হয়েছে। বিপরীতে দাম বেড়েছে ৭টির। এর ফলে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম বাড়ার পরও ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স মাত্র ১ পয়েন্ট বেড়ে ৪ হাজার ৯৩৭ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই শরিয়াহ্ দশমিক শূন্য ৫ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ১৩৬ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। আর ডিএসই-৩০ সূচক ৩ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৭৫৫ পয়েন্টে ওঠে অবস্থান করছে।

এদিকে ডিএসইতে কমেছে লেনদেনের পরিমাণ। দিনভর বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ৩২৮ কোটি ৬৩ লাখ টাকা। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৩৪৬ কোটি ৩ লাখ টাকার। সে হিসাবে লেনদেন কমেছে ১৭ কোটি ৪০ লাখ টাকা।

ডিএসইতে টাকার পরিমাণে সব থেকে বেশি লেনদেন হয়েছে ন্যাশনাল টিউবসের শেয়ার। কোম্পানিটির ১৪ কোটি ৫৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা বিকন ফার্মাসিউটিক্যালসের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১১ কোটি ৩৭ লাখ টাকার। ১০ কোটি ৯৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশন। এছাড়া লেনদেনের শীর্ষ ১০ কোম্পানির মধ্যে রয়েছে- এসইএমএলএফবিএসএল গ্রোথ ফান্ড, স্ট্যান্ডার্ড সিরামিক, মুন্নু জুট স্টাফলার্স, কপারটেক ইন্ডাস্ট্রিজ, সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্স, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবলস এবং এসইএমএল লেকচার ইক্যুয়িটি ম্যানেজমেন্ট ফান্ড।

অপরদিকে বৃহস্পতিবার ডিএসইতে দরপতনের তালিকার শীর্ষে রয়েছে প্রিমিয়ার সিমেন্ট লিমিটেড। এদিন কোম্পানির শেয়ার দর আগের দিনের চেয়ে ৫.৪১ শতাংশ বা ৩ টাকা ৬০ পয়সা কমেছে। কোম্পানিটির শেয়ার সর্বশেষ ৬৩ টাকা দরে লেনদেন হয়েছে। এ তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে প্রাইম ফাইন্যান্স লিমিটেড। কোম্পানিটির শেয়ার দর আগের দিনের চেয়ে ৫ শতাংশ বা দশমিক ৪ পয়সা কমেছে। কোম্পানিটির শেয়ার সর্বশেষ ৭ টাকা ৬০ পয়সা দরে লেনদেন হয়েছে। দরপতনের তালিকায় থাকা অন্য কোম্পানিগুলো হচ্ছে- ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ, ফার্স্ট ফিন্যান্স, পপুলার লাইফ ইন্স্যুরেন্স, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক, সোনারবাংলা ইন্স্যুরেন্স, ইউনাইটেড পাওয়ার, মুন্নু জুট স্ট্যাফলার্স ও যমুনা অয়েল লিমিটেড।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৩৩ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৫ হাজার ৭ পয়েন্টে। বৃহস্পতিবার সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১৫ কোটি ১১ লাখ টাকা। এর আগের কার্যদিবসে সিএসইতে লেনেদেন হয়েছিল ১১ কোটি ৮৯ লাখ টাকা। সেই হিসেবে সিএসইতে বৃহস্পতিবার লেনদেন কমেছে ৩ কোটি ২২ লাখ টাকা। এদিন সিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া ২৫৭ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ১১৯টির, কমেছে ৯৮টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪০টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দর।