download

মাংস আমদানি বন্ধে সরকারের কাছে ১০ দফা দাবি

image

দেশের হোটেল রেস্তোরাঁগুলোতে বিদেশ থেকে আমদানি করা মাংস খাওয়ানো হয়। এতে দেশের খামারিরা কম দামেও গরু বিক্রি করতে পারে না। ফলে তাদের ব্যবসা ধ্বংস হতে বসেছে। তাই বিদেশ থেকে মাংস আমদানি বন্ধ করে দেশের খামারিদের বাঁচাতে সরকারের কাছে ১০ দফা দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মারস অ্যাসোসিয়েশন।

রোববার (২৫ অক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দশ দফা দাবির কথা জানান সংগঠনটির নেতারা।

বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মারস অ্যাসোসিয়েশনের যাত্রাবাড়ী থানার সভাপতি এসএম শাহনুর বলেন, খামারিদের সবাইকে গরুর খাবার কিনেই খামার চালাতে হয়। গো-খাদ্যের দাম বেশি হলে খামারিরা ক্ষতিগ্রস্ত হন। তখন গরুর দাম বেশি হয়ে যায়। গরু উৎপাদনে আমাদের বেশি খরচ পড়ায় মাংস বেশি দামে বিক্রি করতে হয়। কিন্তু বিদেশি মাংস আরও কম দামে পেয়ে আমাদের কাছ থেকে আর নিতে চায় না। ফলে আমরা খামারিরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। গো-খাদ্যের দাম কমানোর জন্য সরকারের কাছে আমরা দাবি জানাচ্ছি।

গাবতলী গরুর হাট গরু ব্যবসায়ী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ঢাকাসহ সারাদেশে হোটেল রেস্তোরাঁয় এখন বিদেশ থেকে আমদানি করা মাংস খাওয়ানো হয়। অন্যদিকে তারা গ্রাম থেকে এবং বিভিন্ন খামার থেকে গরু কিনে এনে দিনের পর দিন বাজারে বসে থাকেন, বিক্রি হয় না। অনেক সময় কম দামেও গরু বিক্রি করতে হয়। আমাদের তো অন্য কোন কাজ জানা নেই, সারা জীবন ধরেই গরু ব্যবসার সঙ্গে জড়িত রয়েছি। আমাদের ব্যবসা এখন ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। গো-খাদ্যের দাম কমালে আমরা কম দামে গরু কিনতে পারব। আমাদের ব্যবসাটা বাঁচান।

হিমায়িত মাংস আমদানি বন্ধে সরকারের সরাসরি হস্তক্ষেপ চেয়ে চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী ওয়াসিব জামান বলেন, আমরা মানসম্মত গরু উৎপাদন করছি। অথচ বিদেশ থেকে হিমায়িত মাংস আমদানি করে একদিকে সাধারণ মানুষের ক্ষতি করছে, অপরদিকে আমরা যারা খামারি আছি, তারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। বিদেশ থেকে হিমায়িত মাংস আমদানি বন্ধ করা হোক।

ঢাকা ও ঢাকার বাইরে থেকে আসা খামারিদের উপস্থিতিতে এই সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ ইমরান হোসেন তাদের দশ দফা দাবি পড়ে শোনান। দাবিগুলো হলো- ১. টিসিবির মাধ্যমে পশুখাদ্য আমদানি করে প্রতিটি উপজেলায় খামারিদের মাঝে দ্রুত বিতরণের ব্যবস্থা করা। ২. দেশের মাংস শিল্পকে রক্ষার জন্য ভারত থেকে হিমায়িত মাংস আমদানি বন্ধ করা। ৩. বাণিজ্যিক হারের বদলে কৃষি খাতের হারে পশুর খামারের বিদ্যুৎ বিল নির্ধারণ। ৪. এই শিল্পে বিশ বছর আয়কর বেয়াত দেয়া। ৫. এন্টি ডাম্পিং ট্যাক্স আরোপের মাধ্যমে গুঁড়া দুধ আমদানিতে শুল্ক হার বাড়িয়ে শতভাগ করা। ৬. আমদানি কমিয়ে দেশে সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে গুঁড়া দুধের প্লান্ট নির্মাণ করে দেশীয় শিল্পকে অগ্রাধিকার দেয়া। ৭. আমদানি করা নিম্নমানের কাঁচামাল দিয়ে অস্বাস্থ্যকর কনডেনসড মিল্ক তৈরি বন্ধ করে দেশীয় দুধ ও কাঁচামাল দিয়ে কনডেনসড মিল্ক তৈরি। ৮. খামারিদের বিনা জামানতে কম সুধে ঋণ সুবিধা দেয়া। ৯. ডেইরি বোর্ড গঠন। ১০. পশু ভ্যাকসিন, ওষুধ এবং চিকিৎসাসেবা সহজতর করা এবং বিনামূল্যে দেয়া।

বাংলাদেশের আমদানি নীতি অনুযায়ী, শূকর ছাড়া অন্য কোন পশুর হিমায়িত মাংস আমদানিতে কোন নিষেধাজ্ঞা নেই। প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের অনুমতি নিয়ে কয়েকটি শর্ত পূরণ করে ৩৩ শতাংশ শুল্ক দিয়ে হিমায়িত মাংস আমদানি করা যায়। শর্ত হলো, মোড়কের গায়ে উৎপাদনের তারিখ ও মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ থাকতে হবে, মাংস অ্যান্টিবায়োটিক বা রোগমুক্ত কিনা- সেই সনদ থাকতে হবে এবং বন্দরে খালাসের সময় সেই মাংস পরীক্ষা করবে বাংলাদেশি কর্তৃপক্ষ। গত বছর প্রতি মাসে গড়ে পাঁচ লাখ ১৬ হাজার কেজি মাংস আমদানি হয়েছে দেশে। এর বেশিরভাগটাই আসে পাশের দেশ ভারত থেকে। এছাড়া চীন, মায়ানমার ও নেপাল থেকেও আমদানি হয়।

ট্যারিফ কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, আমদানি করা এসব হিমায়িত মাংসের দাম স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত মাংসের বাজার মূল্য থেকে অর্ধেক। ফলে হোটেল রেস্তোরাঁগুলো বেশি লাভের জন্য দেশি গরুর মাংসের বদলে আমদানি করা মাংসই বিক্রি করছে। অথচ প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের হিসাবে, প্রতিবছর দেশে প্রায় আড়াই লাখ টন মাংস উদ্বৃত্ত হয়। কোরবানির চাহিদা এখন দেশে উৎপাদিত পশু দিয়েই শতভাগ পূরণ হয়। সে কারণে দেশের খামারিদের স্বার্থ রক্ষায় বিদেশ থেকে হিমায়িত গরুর মাংস আমদানি না করার দাবি জানিয়ে আসছে এ খাত সংশ্লিষ্ট সংগঠনগুলো। এ বিষয়ে একটি রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে গত বছর হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ রুলও জারি করে, যা এখনও শুনানির অপেক্ষায় রায়েছে।

রবির আইপিওতে ১০ গুণ পরিমাণ টাকার আবেদন

image

উভয় শেয়ারবাজারে সূচকের উত্থান বেড়েছে লেনদেন ও শেয়ারদর

আগেরদিনের মতো বৃহস্পতিবারও (২৬ নভেম্বর) উত্থানে শেষ হয়েছে শেয়ারবাজারের লেনদেন।

সরকারের দক্ষতায় করোনায় ক্ষয়-ক্ষতি কম হয়েছে : বাণিজ্যমন্ত্রী

image

সূচক বাড়লেও লেনদেন কমেছে শেয়ারবাজারে

২৪ নভেম্বর মঙ্গলবারের মতো বুধবারও উত্থানে শেষ হয়েছে শেয়ারবাজারের

বাণিজ্য সহায়ক পরিবেশ তৈরিতে কাজ করবে ঢাকা চেম্বার এবং আইসিএমএবি

বাণিজ্য সহায়ক পরিবেশ তৈরিতে পেশাজীবীদের সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করার অঙ্গীকার করেছে ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি

বিশ্ব শেয়ারবাজারে বড় উত্থান

image

মোট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ৯৮ শতাংশই এসএমই খাতের

বাংলাদেশের মোট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ৯৮ শতাংশের বেশিই এসএমই খাতের। এরমধ্যে ৮৪ ভাগের বেশি এসএমই প্রতিষ্ঠান গ্রামে অবস্থিত এবং ৮০

পশুপাখিতে এন্টিবায়োটিকের অযাচিত ব্যবহার বন্ধের তাগিদ

মানুষ ও পশুপাখিতে এন্টিবায়োটিকের অযাচিত ব্যবহার নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে সরকারের প্রাণিসম্পদ অধিদফতর ও ডিরেক্টরেট জেনারেল

উভয় শেয়ারবাজারেই পতন

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সোমবার মূল্য সূচকের পতনে লেনদেন শেষ হয়েছে। তবে সোমবার (২৩ নভেম্বর) ডিএসইতে টাকার