ডেল্টা হাসপাতালের চিকিৎসক আক্রান্ত, পরিচালক কোয়ারেন্টিনে

image

রাজধানীর মিরপুরের টোলারবাগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া বৃদ্ধকে চিকিৎসা সেবা দেওয়া এক চিকিৎসক এ রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া কোয়ারেন্টিনে আছেন ওই হাসপাতালের পরিচালক। ২২ মার্চ শনিবার টোলারবাগের ওই বৃদ্ধের মৃত্যুর পর তার চিকিৎসায় নিয়োজিত ওই হাসপাতালের চার চিকিৎসক, ১২ জন নার্স ও তিনজন কর্মীকে হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছিল। তাদেরই একজন পরীক্ষায় করোনাভাইরাস পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। আক্রান্ত ওই চিকিৎসক বর্তমানে উত্তরার কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে আইসোলেশনে আছেন। রোববার (২৩ মার্চ) তিনি বলেন, আইইডিসিআরে নমুনা পরীক্ষায় নভেল করোনাভাইরাস ধরা পড়েছে। শরীর কিছুটা দুর্বল। এখনও শ্বাসকষ্ট হচ্ছে। আপনারা আমার জন্য দোয়া করবেন। অসুস্থ্য বোধ করায় রোববার থেকে হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন ডেল্টা হাসপাতালের পরিচালক ডা.বদিউজ্জামানও। গত রোববার থেকে আমার কাছেও প্রবলেম মনে হচ্ছে। বাসায় আছি একেবারেই একা। কাউকে সঙ্গে রাখি নাই। আপনারা আমার জন্য দোয়া করবেন।

টোলারবাগের বৃদ্ধকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া ওই চিকিৎসকের শারীরিক সমস্যা ধরা পড়ে শনিবার সকাল থেকে। রোববার দুপুরের দিকে শ্বাসকষ্ট শুরু হলে তাকে কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে নেওয়া হয়। তিনি ডেল্টা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক হিসেবে টোলারবাগের সত্তরোর্ধ্ব ওই বৃদ্ধকে চিকিৎসা দিয়েছিলেন। তার পরিবারের সদস্যরা এখনও হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন। নভেল করোনাভাইরাসে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে ৩৩জন আক্রান্ত এবং তিনজনের মৃত্যু খবর জানিয়েছিল আইইডিসিআর। তবে রাতে টোলারবাগে ৭৬ বছর বয়সী আরেক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়, আগের দিন মারা যাওয়া বৃদ্ধের ঘনিষ্ঠজন ছিলেন। পুলিশের দারুস সালাম জোনের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মাহমুদা আফরোজ লাকী বলেন, দ্বিতীয় বৃদ্ধেরও করোনাভাইরাস পজিটিভ ছিল বলে আইইডিসিআর নিশ্চিত করেছে। তবে এ বিষয়ে আইডিসিআরের বক্তব্য জানা যায়নি।