দুই সিটির প্রস্তাবিত বাজেট অস্পষ্ট

image

ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের প্রস্তাবিত বাজেটকে অস্পষ্ট বলে আখ্যা দিয়েছে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্স (বিআইপি)। তাদের মতে, ঘোষিত বাজেটে আয়ের ক্ষেত্রগুলো সবার জানা থাকলেও ব্যয়ের বিষয়ে স্বচ্ছ ধারণা দেয়া হয়নি। একই সঙ্গে, ঘোষিত বাজেট উন্নয়নের তুলনায় অপর্যাপ্ত বলেও মনে করে বিআইপি।

শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) বিআইপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট পর্যালোচনা শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলা হয়। সংবাদ সম্মেলনে বিআইপির সভাপতি ড. এ কে এম আবুল কালাম, উপদেষ্টা ড. গোলাম রহমান, সাধারণ ড. আদিল মুহাম্মদ খান, সহ-সভাপতি অধ্যাপক ড. আক্তার মাহমুদ ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. গোলাম মর্তুজা বক্তব্য রাখেন।

আদিল মুহাম্মদ খান বলেন, বাজেট অনুষ্ঠানে জবাবদিহিতা থাকতে হবে, যেটা পৌরসভাগুলোতে দেখা যায়। সেখানে একটা বাজেট প্রস্তাবের আগে অনেকবার আলোচনা হয়, সবার অংশগ্রহণ থাকে। কিন্তু ঢাকা দক্ষিণ সিটির প্রস্তাবিত বাজেট পেশের দিন এক সাংবাদিকের সঙ্গে কাউন্সিলরদের অসৌজন্যমূলক আচরণ দেখা গেছে, যা উদ্বেগের বিষয়।

বক্তারা বলেন, এ বাজেট শুধু খাতভিত্তিক একমাত্রিক বাজেট। এটি প্রণয়নের প্রক্রিয়া অংশগ্রহণমূলক জনপ্রতিনিধিত্বশীল নয়। বাজেটে বরাদ্দের ক্ষেত্রে খাতভিত্তিক বিবরণের সঙ্গে সঙ্গে এলাকাভিত্তিক বণ্টনের ন্যায্যতা অনুপস্থিত। গত বছরের বাজেট পর্যালোচনা করে দেখা যায়, এখানে সরকারি ও বৈদেশিক সাহায্যপুষ্ট প্রকল্পের আশানুরূপ বরাদ্দ পাওয়া যায়নি। এ বাজেটে স্থান, কাল, পাত্রের অভাব রয়েছে।

তারা বলেন, সক্ষমতা ছাড়া বাজেট বাস্তবায়ন সম্ভব না। বাজেটের আকার বাড়লেই উন্নয়ন হচ্ছে একথা বলা যাবে না। কারণ, বাজেটের আকারের সঙ্গে এর উন্নয়ন নির্ভরশীল নয়। বাজেট হতে হবে জনবান্ধব, জনকল্যাণমূলক, যেখানে জনগণের আশা-আকাক্সক্ষার প্রতিফলন ঘটবে, মেয়রে আকাক্সক্ষা প্রাধান্য পাবে না। প্রস্তাবিত বাজেটে আয়ের ক্ষেত্রগুলো কী কী, সেগুলো সবাই জানি। কিন্তু, এখানে ব্যয়ের কোন কোন ক্ষেত্র আছে, কোন ক্ষেত্রে কী পরিমাণ বরাদ্দ যাবে- সেটা উল্লেখ নেই। এ হিসেবে বলা যায়, দুই সিটির প্রস্তাবিত বাজেট অস্পষ্ট বাজেট।

প্রসঙ্গত, গত ১ সেপ্টেম্বর ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের জন্য ৩ হাজার ৬৩১ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করা হয়। বাজেটে আগের বছরের স্থিতি রয়েছে ২০২ কোটি টাকা, রাজস্ব আয় ধরা হয়েছে ৯৭২ কোটি ৮০ লাখ টাকা, অন্য খাত থেকে আয় ধরা হয়েছে ৭ কোটি ৬৭ লাখ টাকা। বাজেটে সরকারি ও বৈদেশিক উৎস থেকে আয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ৪৪৮ কোটি ৯৩ লাখ টাকা। ঘোষিত বাজেটে মোট পরিচালনা ব্যয় ধরা হয়েছে ৬২৯ কোটি ৩৭ লাখ টাকা। অন্য খাতের ব্যয় ধরা হয়েছে সাড়ে ৩ কোটি টাকা। নতুন বাজেটের মূল ব্যয়ের প্রধান খাত তথা মোট উন্নয়ন ব্যয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ৮৯৪ কোটি ৯৩ লাখ টাকা। বছর শেষে ১০৩ কোটি ৬০ লাখ টাকা তহবিলের স্থিতি রাখার কথাও বলা হয়েছে।

আর, গত ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯-২০ অর্থবছরের জন্য ৩ হাজার ৫৭ কোটি ২৪ লাখ টাকার বাজেট ঘোষণা করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। এবারের বাজেট ২০১৮-১৯ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে থেকে ১ হাজার ২৩৪ কোটি ৬৩ লাখ টাকা বেশি। নতুন বাজেটে রাজস্ব আয়? ধরা হয়ে?ছে ১ হাজার ১০৬ কোটি ৪০ লাখ টাকা, যা আগের বছরের চেয়ে ৩১৩ কোটি ৪০ লাখ টাকা বেশি। রাজস্ব ব্যয় ধরা হয়েছে ৫৫১ কোটি ৪০ লাখ টাকা, উন্নয়ন ব্যয় ২ হাজার ৩৩৫ কোটি ৭৪ লাখ টাকাসহ অন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ১২ কোটি টাকা।

ইউনিভার্সেল মেডিকেলের করোনা হাসপাতালে দুর্বৃত্তদের হামলা

image

রাস্তায় জরুরি চলাচলে চালু হচ্ছে বিশেষ পুলিশ পাস

image

আশুলিয়ায় গৃহবধূ হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন!

আশুলিয়া গৃহবধূ মাছুরা খাতুনকে (৩৫) হত্যার ঘটনায় তার স্বামী মো. মোস্তফা মোল্লকে (৫০) নারায়ণগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে

মিরপুরে বেতন-বোনাসের দাবিতে পোশাক শ্রমিকদের সড়ক অবরোধ

image

রেলের পার্শ্বেল পরিবহণে শাক-সবজি এবং দেশিয় ফলমূলের ভাড়া কমা‌নো হ‌চ্ছে

বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃক প্রান্তিক ও ক্ষুদ্র কৃষকের উৎপাদিত শাক-সবজি, দেশিয় ফলমূল, দুধ, ডিম ইত্যাদি পণ্যের উপর ২৫% ভাড়া ছাড় এবং সকল প্রকার সার্ভিস চার্জ প্রত্যাহার করে বিদ্যমান ভাড়া সমন্বয় করা হয়েছে যা আজ ১৯ মে হতে কার্যকর হবে।

সিনিয়র সচিব হলেন নুরুল আমিন ও সৌরেন্দ্র নাথ

image

ভোক্তা অধিকার অধিদফতরের মহাপরিচালক বাবলু সাহা করোনায় আক্রান্ত

image

করোনামুক্ত হয়ে বাসায় ফিরলেন মুনতাসীর মামুন

image

সমুদ্রে মৎস্য আহরণে বিরত থাকা জেলেদের জন্য ২৩ হাজার ৪৯৭ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ

মানবিক সহায়তা কর্মসূচির আওতায় চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরে দেশের সামুদ্রিক জলসীমায় ৬৫দিন (২০ মে-২৩ জুলাই) মৎস্য আহরণ নিষিদ্ধকালীন জেলেদের জন্য ২৩ হাজার ৪৯৬ দশমিক ৯৮ মেট্রিক টন ভিজিএফ চাল বরাদ্দ করেছে সরকার।