পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে যুবক নিহত

image

রাজধানীর খিলগাঁওয়ে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে সোহেল হাওলাদার ঝুনা নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। ২১ মার্চ শনিবার রাতে নাগদারপাড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ বলছে, সোহেল পুলিশের তালিকাভূক্ত মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে হত্যা, হত্যাচেষ্টা, গুরুতর জখম, মাদকসহ ১৭টি মামলা রয়েছে। নিহতের বাবার নাম সুরুজ হাওলাদার। গ্রামের বাড়ি ফরিদপুরের ভাঙ্গা থানার পুকুরপাড়ে। বতর্মানে ঢাকার মুগদা এলাকায় স্ত্রী শাহনাজকে নিয়ে থাকতো সোহেল।

নিহতের ভাই মোহাম্মদ জামাল হাওলাদার জানান, শনিবার বিকালে চট্টগ্রাম থেকে বিমানযোগে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর আসে সোহেল। সেখান থেকে পুলিশ তাকে আটক করে খিলগাঁও থানায় হস্তান্তর করে। সোহেল একজন সফল ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে একটি মারামারি ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলা ছিল। মিথ্যা এ মামলায় সোহেলকে ধরে নিয়ে বন্ধুকযুদ্ধে দিয়েছে পুলিশ।

খিলগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান জানান, সোহেলকে খোঁজা হচ্ছিল। শনিবার বিমানবন্দর থেকে এপিবিএন সদস্যরা তাকে আটক করে খিলগাঁও থানায় হস্তান্তর করে। রাতে তাকে নিয়ে খিলগাঁওয়ের নাকদারপাড়ে অভিযানে যাই। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তার সহযোগিরা গুলি চালায়। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। এতে সোহেল গুলিবিদ্ধ হয়। তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ওসি আরও বলেন, সোহেল বিভিন্ন সময় জেলে ছিলেন। সর্বশেষ ৭/৮ মাস আগে তিনি জামিনে ছাড়া পান। শনিবার কক্সবাজার থেকে বিমানে ঢাকায় আসেন সোহেল। এরপর পুলিশের হাতে ধরা পড়েন। মাদকের কেনাবেচার জন্য তিনি প্রায়ই কক্সবাজার যেতেন। জিজ্ঞাসাবাদে সোহেল বেশ কয়েকজন ইয়াবা ব্যবসায়ীর নাম বলেছে। তাদের ধরতে অভিযান চলছে।