ফুটপাতে দাঁড়ানো নারীর পা পৃষ্ট

image

অফিস থেকে বের হয়ে রাস্তা পার হয়ে ফুটপাতে দাঁড়িয়ে ছিলেন বিআইডব্লিউটিসির সহকারী ব্যবস্থাপক কৃষ্ণা রায়। কারওয়ান বাজার দিক থেকে শাহবাগমুখী ট্রাস্ট পরিবহনের একটি বাস বেপরোয়া গতিতে এসে ফুটপাতে দাড়িয়ে থাকা কৃষ্ণাকে চাপা দেয় । আর এতেই বাসের চাকার নিচে পড়ে দু পা পৃষ্ট হয় ওই নারী কর্মকর্তারা। মঙ্গলবার (২৭ আগস্ট) দুপুরে বাংলামটর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ বাসটিকে আটক করেছে। তবে চালক পালিয়ে যায়। গুরুত্বর অবস্থায় ওই নারী কর্মকর্তাকে জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল(পঙ্গু) ভর্তি করে অস্ত্রোপচার শুরু করা হয়। তার দুই পা কেটে ফেলার সম্ভবনা রয়েছে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বাসটি খুবই বেপরোয়া গতিতে কারওয়ান বাজারের দিক থেকে আসছিলো। বাংলামটর পৌছলে বাসটি ফুটপাটে উঠিয়ে দেওয়া হয়। বাসের চাপায় আহত ওই নারীর বাঁ পায়ের হাঁটুর নিচ থেকে অনেকটাই বিচ্ছিন্ন হয়ে শুধু চামড়ার সঙ্গে ঝুলে ছিল। ওই অবস্থায় তাকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। হয়তো তার পা কেটে ফেলতে হতে পারে।

বিআইডব্লিউটিসির জনসংযোগ কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম মিশা জানান, মঙ্গলবার দুপুরে অফিসের কাজে পুরান ঢাকায় যাওয়ার জন্য বাংলামোটরে বিআইডব্লিটিসির প্রধান কার্যালয় থেকে বের হন প্রতিষ্ঠানের সহকারী ব্যবস্থাপন কৃষ্ণা রায়। সড়ক পার হয়ে বাংলামোটরের পূর্ব পাশে ফুটপাতে দাঁড়িয়ে ছিলেন তিনি। বেলা দুইটার দিকে কারওয়ান বাজার থেকে শাহবাগগামী ট্রাস্ট পরিবহনের একটি বাস (ঢাকা মেট্রো ব ১১৯১৪৫) সড়ক থেকে ফুটপাতে উঠে কৃষ্ণা রায়কে চাপা দেয়। বাসের চাপায় কৃষ্ণা রায়ের বাঁ পায়ে প্রচন্ড আঘাত লাগে। উদ্ধার করে তাঁকে প্রথমে ঢাকা মেডিকেলে এবং পরে পঙ্গু হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

বিআইডব্লিউটিসির নিজস্ব চিকিৎসক খন্দকার মাসুম হাসান বলেন, পঙ্গু হাসপাতালে আনার পর বিকেলে কৃষ্ণা রায়ের পায়ে অস্ত্রোপচার শুরু করা হয়। অস্ত্রোপচার শেষে তাঁর পায়ের অবস্থা সম্পর্কে জানা যাবে। তবে কৃষ্ণা রায়ের অবস্থা গুররুতর।

ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগের (দক্ষিণ) অতিরিক্ত উপকমিশনার মেহেদী হাসান বলেন, ট্রাস্ট পরিবহনের বাসটি মিরপুর ডিওএইচএস থেকে শাহবাগ হয়ে মতিঝিল রুটে চলাচল করে। বাসের চাপায় কৃষ্ণা রায়ের একটি পা ভেঙে গেছে। দুর্ঘটনার পরপরই এর চালক ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে গেছেন। তবে বাসটি জব্দ করা হয়েছে।