হুটারও হাইড্রলিক হর্ণের বিরুদ্ধে অভিযানে ৪ হাজারেরও বেশী জব্দ

image

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক বিভাগের কড়া নিরাপত্তার মধ্যেও অনেকের নিয়ম বর্হিভূত ভাবে নিজস্ব গাড়িতে শব্দ দূষণ হয় এমন হর্ণ লাগিয়ে গাড়ি ব্যবহার করছে। এ নিয়ে ট্রাফিক বিভাগ গত এক সপ্তাহ ধরে অভিযানে নেমেছে। অভিযানে ৪ হাজারেরও বেশী হুটার ও হাইডোলিক হর্ণ উদ্ধার করা হয়েছে। এ সব ঘটনায় আইনী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। হুটার ও হাইড্রোলিক হর্ণ শব্দ দূষণ করে। অনেকেই প্রভাব বিস্তার করে নিজ গাড়ীতে এ সব হাইড্রোণিলক হর্ণ ব্যবহার করছে। যার কারনে ট্রাফিক বিভাগ থেকে গত এক সপ্তাহ ধরে অভিযান চালিয়ে হুটার ও হাইড্রোলিক হর্ণ জব্দ করা হয়েছে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের মিডিয়া শাখা থেকে জানা গেছে, পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস, অ্যাম্বুলেন্সের অপারেশন কাজ ব্যতীত অন্য কোন সরকারি বা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের গাড়িতে হুটার এবং বিকন লাইট ও হাইড্রলিক হর্ণ ব্যবহারের কোন সুযোগ নেই। এ নিয়ম ভঙ্গ করে অনেক সরকারি/বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের গাড়িতে হুটার ও হাইডোলিক হর্ণ ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এতে রাস্তায় দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশসহ সাধারণ জনসাধারণের ভোগান্তির শিকার হতে হয়। অনেক ব্যক্তি তার নিজের গাড়িতে অথবা বহরে চলমান পিকআপ/মাইক্রোবাসে প্রাইভেট সিকিউরিটি ব্যবহার করে থাকেন। এ সকল কর্মকাণ্ড বন্ধ করার লক্ষ্যে সপ্তাহব্যাপী বিশেষ অভিযান পরিচালনা করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ’র ট্রাফিক বিভাগ।

গত ২০ অক্টোবর রোববার থেকে গত ২৬ অক্টোবর শনিবার পর্যন্ত সাত দিনব্যাপী এ অভিযান পরিচালনা করে ডিএমপি’র ট্রাফিক বিভাগ। সপ্তাহব্যাপী এ অভিযানে, ট্রাফিক পূর্ব বিভাগ ১০৫২টি হাইড্রলিক হর্ণ জব্দ করেছে ও হাইড্রলিক হর্ণ ব্যবহারের অপরাধে ১১২৯টি মামলা এবং হুটার/ বিকন লাইট জব্দ করেছে ৬৮টি ও হুটার/বিকন লাইট ব্যবহারের অপরাধে ১২৪ টি মামলা করেছে।

ট্রাফিক পশ্চিম বিভাগ ৭৫২টি হাইড্রলিক হর্ণ জব্দ করেছে ও হাইড্রলিক হর্ণ ব্যবহারের অপরাধে ৬৬৭টি মামলা এবং হুটার/বিকন লাইট জব্দ করেছে ৬টি ও হুটার/বিকন লাইট ব্যবহারের অপরাধে ১০ টি মামলা করেছে।

ট্রাফিক উওর বিভাগ ৯৪৮টি হাইড্রলিক হর্ণ জব্দ করেছে ও হাইড্রলিক হর্ণ ব্যবহারের অপরাধে ১০৭৮টি মামলা এবং হুটার/বিকন লাইট জব্দ করেছে ৩২টি ও হুটার/বিকন লাইট ব্যবহারের অপরাধে ৪৯ টি মামলা করেছে।

ট্রাফিক দক্ষিণ বিভাগ ১১৫৪টি হাইড্রলিক হর্ণ জব্দ করেছে ও হাইড্রলিক হর্ণ ব্যবহারের অপরাধে ১০৭৩টি মামলা এবং হুটার/বিকন লাইট জব্দ করেছে ৫৭টি ও হুটার/বিকন লাইট ব্যবহারের অপরাধে ৭৬ টি মামলা করেছে।