এনামুল বাছিরের বিরুদ্ধে ঘুষ নেয়ার অভিযোগে প্রাথমিক সত্যতা পেয়েছে দুদক

image

দুদকের বরখাস্ত হওয়া পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছিরের বিরুদ্ধে জিআইজি মিজানের কাছ থেকে ৪০ লাখ টাকা ঘুষ নেয়ার প্রাথমিক সত্যতা পেয়েছে দুদক। অভিযোগের সত্যতা পাওয়ার পর দুদক থেকে দুদকের সাবেক কর্মকর্তা এনামুল বাছিরের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি করে চিঠি পাঠিয়েছে অভিযোগ তদন্তের দায়িত্বে থাকা দুদক পরিচালক শেখ মো. ফানফিল্যা। ২৬ জুন বুধবার এ বিষয়ে পুলিশের ইমিগ্রেশন থানায় চিঠি পাঠানো হয়েছে। অবৈধ সম্পদের অভিযোগ থেকে দায়মুক্তি দেয়ার চুক্তিতে ডিআইজি মিজানের (বর্তমানে বরখাস্ত) বিরুদ্ধে অনুসন্ধানকালীন তৎকালীন অনুসন্ধান কর্মকর্তা ও দুদক পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছিরের (বর্তমানে বরখাস্ত) বিরুদ্ধে ৪০ লাখ টাকা ঘুষ নেয়া এবং ছেলের জন্য গাড়ি দাবি করার অডিও রেকর্ড ফাঁস করা হয়। এরপর খন্দকার এনামুল বাছিরকে অনুসন্ধানের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দিয়ে সাময়িক বরখাস্ত করে দুদক।

‘এনামুল বাছির দেশত্যাগ করতে পারেন’- এমন তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশের বিশেষ শাখার অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শককে দেয়া চিঠিতে বলা হয়, ‘ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির (খন্দাকার এনামুল বাছির) ঘুষ লেনদেন ও মানি লন্ডারিং সংক্রান্ত একটি গুরুত্বপূর্ণ অভিযোগের সত্যতা দুর্নীতি দমন কমিশনের অনুসন্ধানের প্রাথমিকভাবে প্রতীয়মান হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে বক্তব্য গ্রহণ করা একান্ত প্রয়োজন। ইতোমধ্যে অভিযোগ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বক্তব্য প্রদানের জন্য তার বরাবর নোটিশ প্রেরণ করা হয়েছে। বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, তিনি সপরিবারে দেশত্যাগ করে অন্য দেশে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। অনুসন্ধান কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য বাছিরের বিদেশ গমন ঠেকানো জরুরি। এছাড়া চিঠিতে তার নাম ও ঠিকানার বর্ণনা এবং পাসপোর্টের নম্বর উল্লেখ করা হয়েছে।

দুদকের একটি সূত্র জানায়, বাছিরের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে অভিযোগ সংশ্লিষ্ট ডিআইজি মিজানের কাছ থেকে ৪০ লাখ টাকা ঘুষ নেয়া এবং ছেলের জন্য গাড়ি দাবি করার কথোপকথনের যে অডিও ক্লিপ ফাঁস করা হয়, তা যাচাই-বাচাই করার জন্য ফরেনসিক ল্যাবে পাঠানো হয়। ফরেনসিক প্রতিবেদন অনুযায়ী ওই কণ্ঠ বরখাস্ত হওয়া দুদক পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছিরের মনে হয়েছে। ঘুষের বিষয়ে এবং গাড়ি চাওয়ার বিষয়ে জিআইজি মিজানের সঙ্গে কথা বলা ব্যক্তি বাছিরই। এ বিষয়ে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এর মধ্যে তিনি যাতে দেশ ছেড়ে অন্য কোথাও না যেতে পারেন, এ জন্য দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

এর আগে গত ২৪ জুন ঘুষের কেলেঙ্কারির অভিযোগ খতিয়ে দেখতে পুলিশের আলোচিত উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমান ও দুদকের বরখাস্তকৃত পরিচালক এনামুল বাছিরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করে দুদক। পৃথক তলবি নোটিশে তাদের আগামী ১ জুন হাজির হতে বলা হয়েছেÑ যেখানে বাছিরকে ওই তারিখ বিকেলে হাজির হতে বলা হয়েছে। বাছিরের বিরুদ্ধে ৪০ লাখ টাকা ঘুষ নেয়ার অভিযোগ ওঠে। অভিযোগ করেন পুলিশের সদ্য বরখাস্ত ডিআইজি মিজানুর রহমানই। মিজান ঘুষ দেয়ার বিষয়টি মিডিয়ায় ফাঁস করে দেয়ার পর বাছিরকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। যদিও পরিচালক এনামুল বারবার দাবি করেন রেকর্ডকৃত বক্তব্যগুলো কণ্ঠ নকল করে বানানো। এরপর ঘুষের বিষয়টি অনুসন্ধান করার জন্য দুদকের পরিচালক শেখ মো. ফানফিল্যার নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি টিমকে অনুসন্ধানের দায়িত্ব দায়িত্ব দেয়া হয়। টিমের অপর সদস্য হলেন দুদকের সহকারী পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান ও সালাহউদ্দিন আহমেদ।

২০১৮ সালের ৩ মে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ডিআইজি মিজানকে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক। প্রথমে অনুসন্ধান কর্মকর্তা ছিলেন দুদকের উপ-পরিচালক ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী। পরে এই দায়িত্ব পান খন্দকার এনামুল বাছির। তারও পরে অনুসন্ধান কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ পান দুদকের আরেক পরিচালক মো. মঞ্জুর মোরশেদ। ১২ জুন তাকে নিয়োগ দেয়া হয়। অনুসন্ধন শেষে ২৪ জুন তিন কোটি সাত লাখ টাকা সম্পদের তথ্য গোপন এবং তিন কোটি ২৮ লাখ টাকা অবৈধ সম্পদের অভিযোগে মামলা করে দুদক। মামলার আসামিরা হলেন পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমান, তার স্ত্রী সোহেলিয়া আনার রতœা, ভাগ্নে পুলিশের এসআই মাহমুদুল হাসান ও ছোট ভাই মাহবুবুর রহমান। একই সঙ্গে ডিআইজি মিজানসহ চার আসামির বিদেশ গমনে নিষেধাজ্ঞা দেয় দুদক। মামলা করার পর তারা যাতে বিদেশ গমন করতে না পারেন, এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে ইমিগ্রেশনের বিশেষ পুলিশ সুপারের বরাবর চিঠি দেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মঞ্জুর মোর্শেদ।

আমানত হিসেবে রাখা ইয়াবা সেবন করে ফেলায় বন্ধুকে হত্যা

image

নুসরাত হত্যাকাণ্ডে কোন আসামির কি কাণ্ড ছিলো!

image

হত্যা মামলায় ৭ দিনের রিমান্ডে ক্যাসিনো খালেদ

image

স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি : আবরার পানি চেয়েছে দেওয়া হয়নি, হাসপাতালে নেওয়ার কথা বলা হয়েছে কিন্তু নেয়নি বড় ভাইয়ারা

image

মা ইলিশের লালসায় নদীতে লুঙ্গি পড়া জেলের সাজে আটক চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় নি প্রশাসন

image

অবৈধ সম্পদ অর্জন ও ভোগদখলের অভিযোগে খালেদ-শামীমের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

image

টং এর দোকানদার টু ঢং এর কাউন্সিলর ভায়া কোন এক সাবেক প্রতিমন্ত্রী

image

স্পর্শ ছাড়াই ঘুষের টাকা স্ত্রীর কাছে পৌঁছে যেতো

image

তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারীর বিরুদ্ধে দেশে বিদেশে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ

image