জি কে শামীমের অবৈধ কজের সহযোগী হয়ে সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুই প্রকৌশলীসহ তিনজনকে দুদকের তলব

image

টেন্ডার মাফিয়া গোলাম কিবরিয়া শামীম ওরফে জি কে শামীমকে অবৈধভাবে কাজ দিয়ে সহযোগিতা এবং কমিশন ও ঘুষের মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের দুই প্রকৌশলীসহ ৩ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন দুদক। দুদকের পরিচালক ইকবাল মাহমুদের স্বাক্ষরিত চিঠিতে তাদের তবল করা হয়। যাদের তলব করা হয়েছে তারা হলেন, নির্বাহী প্রকৌশলী মুনিফ আহমেদ (বর্তমানে সাময়িক বরখাস্ত), উপসহকারী প্রকৌশলী আশরাফুজ্জামান এবং ডিকে শামীমের ঠিকাদারি কাজের সহযোগী বিশ্বার্স বিল্ডার্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নজরুল ইসলাম। আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি ৩ জনকে দুদকে হাজির থাকতে বলা হয়েছে।

নোটিশে অভিযোগের বিষয়ে বলা হয়, ‘ঠিকাদার জি কে শামীমসহ অন্যান্য ব্যক্তির বিরুদ্ধে সরকারি কর্মকর্তাদের শত শত কোটি টাকা ঘুষ দিয়ে বড় বড় ঠিকাদারি কাজ নিয়ে বিভিন্ন অনিয়মের মাধ্যমে সরকারি অর্থ আত্মসাৎ, ক্যাসিনো ব্যবসা করে শত শত কোটি টাকা অবৈধ প্রক্রিয়ায় অর্জন করে বিদেশে পাচার ও জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে অনুসন্ধান চলছে। সুষ্ঠু অনুসন্ধানের স্বার্থে আপনার বক্তব্য রেকর্ড করে পর্যালোচনা করা একান্ত প্রয়োজন।

দুদক সূত্র জানায়, ক্যাসিনো কা-ে অভিযানের পর অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনকারীদের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান শুরু করে। রাজনৈতিক নেতা, বিভিন্ন সরকারি কর্মকর্তা, ঠিকাদারসহ অনেকের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগের অনুসন্ধানে এর মধ্যে ২০টির বেশি মামলা হয়েছে। এদের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে আলোচিত ঠিকাদার জি কে শামীম। জি কে শামীমের বিরুদ্ধে সরকারি বিভিন্ন দফতর নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে সরকারি বড় বড় প্রকল্পের কাজ ভাগিয়ে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। এসব প্রকল্পের কাজ করতে গিয়ে তিনি বিভিন্ন দফতরের কর্মকর্তাদের মোটা অঙ্কের ঘুষ দিয়েছেন। এ বিষয়ে দুদকের অনুসন্ধান চলছে। অনেক কর্মকর্তা এসব ঘটনায় সংশ্লিষ্ট থেকে জি কে শামীমকে সহযোগিতা করার পাশাপাশি নিজেরাও লাভবান হওয়ার মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জন করেছেন। এসব অভিযোগে গণপূর্তের বেশ কয়েকজন প্রকৌশলীকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে এবং তাদের বিষয়ে অনুসন্ধান চলমান রয়েছে। অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে গৃহায়নের দুই প্রকৌশলী এবং বিশ্বাস বিল্ডার্সের এমডিকেও তলব করা হয়েছে। এ ৩ জনের বিরুদ্ধেও জি কে শামীমের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট থেকে বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতির মাধ্যমে অবৈঝ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ রয়েছে। অভিযোগের অনুসন্ধানের স্বার্থেই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদের তলব করা হয়েছে।

উল্লেখ, গত ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান শুরু হয়। এরপর ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে ক্যাসিনোসহ বিভিন্ন মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনের বিষয়ে অনুসন্ধানে নামে দুদক। এখন পর্যন্ত ক্যাসিনোসহ বিভিন্ন মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ২০টি মামলা করেছে দুদক। ক্যাসিনোসহ বিভিন্ন মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে প্রায় ২০০ জনের তালিকা ধরে অনুসন্ধান করছে দুদক। দুদকের পরিচালক ছাড়া অনুসন্ধান টিমের অপর সদস্যরা হলেন- উপ-পরিচালক মো. জাহাঙ্গীর আলম, মো. সালাহউদ্দিন, গুলশান আনোয়ার প্রধান, সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ চৌধুরী, সাইফুল ইসলাম, আতাউর রহমান ও মোহাম্মদ নেয়ামুল আহসান গাজী।

সম্রাট-শামীমের নিয়ন্ত্রনে গণপূর্ত টেন্ডার ভাগ-ভাটোয়ারা করেছেন মুশফিক ও শাহে আলম

image

আওয়ামী লীগ নেতা ডাবলুর অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধান করবে দুদক

image

দক্ষিনের কাউন্সিলর ফরিদ উদ্দিন রতনকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ

image

ছদ্মবেশে পাসপোর্ট প্রত্যাশী দুদকের নিকট সরাসরি ঘুষ দাবি

image

দৈনিক পত্রিকার ওয়েবসাইটগুলোর নকলকারী ও বানোয়াট সংবাদ প্রচারক গার্ডিয়ানের এমডি গ্রেফতার

image

নাম অপ্রকাশিত এক সরকারি কর্মকর্তা মোটা ঘুষ লেনদেনে প্রমাণিত

image

শিক্ষার প্রকৌশল বিভাগের ৩ জনের বিরুদ্ধে দুদকের অনুসন্ধান

image

কিশোরগঞ্জের এমপি আফজালের বিরুদ্ধে অনুসন্ধানের নেমেছে দুদক

image

জি কে শামীমের বিরুদ্ধে অভিযোগের অনুসন্ধানে ব্যবসায়ী মোমতাহিদুরকে জিজ্ঞাসাবাদ

image