প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে বাবা-চাচারাই খুন করে তুহিনকে : ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার

image

সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার রাজানগর ইউনিয়নের কেজাউরা গ্রামে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে শিশু তুহিনকে নৃশংস ও নিষ্ঠুরভাবে খুন করে বাবা আবদুল বাছির ও চাচারা। মঙ্গলবার (১৫ অক্টোবর) সন্ধ্যা পৌনে ৭ টায় সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপারের সম্মেলনকক্ষে প্রেসব্রিফিংয়ের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান পিপিএম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার প্রেসব্রিফিংয়ে আরও জানান, মঙ্গলবার বিকেলে নিহত শিশু তুহিন হত্যা মামলায় তুহিনের বাবা আবদুল বাছির ও চাচা আবদুল মোছাব্বির এবং জমসেদকে সুনামগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আবু তাহের মোল্লা বাবা ও ২ চাচাকে হাজির করলে আদালতের বিচারক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শ্যাম কান্ত সিনহা তাদের ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

ভারপ্রাপ্ত পুলিশ মিজান আরও জানান, নিহত তুহিনের অপর চাচা নাছির ও চাচা ভাই শাহরিয়ারের সুনামগঞ্জ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত দিরাই জোনের বিচারক মো. খালেদ মিয়ার আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন।

মিজান প্রেসব্রিফিং-এ জানান, ১৩ অক্টোবর রোববার রাত ১টার দিকে নিহত শিশু তুহিনের বাবা আবদুল বাছির শিশুকে ঘুম থেকে নিয়ে গিয়ে চাচাদের সহায়তায় বাড়ির অদূরে গ্রামের রাস্তায় প্রথমে গলা কেটে হত্যা করে। পরে কান ও লিঙ্গ কেটে পেটে ছুরি ঢুকিয়ে বাড়ির পাশে একটি কদম গাছের সঙ্গে রশি দিয়ে বেধে রেখে ঝুলিয়ে রেখে বাড়িতে চলে আসে। পরে রাত ৩ টার দিকে আবদুল বাছিরের ভাতিজি তানিয়া বেগম বাছিরের বসতঘরের দরজা খোলা দেখে ডাক দেয়। পরে আবদুল বাছিরসহ তার ভাই ভাতিজাকে নিয়ে শিশু তুহিনকে খুঁজতে থাকে। এ বিষয়ে পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে। ১৪ অক্টোবর সোমবার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহত শিশু তুহিনের লাশ উদ্ধার করে এবং তুহিনের বাবা আবদুল বাছির, চাচা মোছাব্বির, জসিম, নাছির ও চাচাতো ভাই শাহরিয়ারসহ ৭ জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে। পরে মঙ্গলবার তুহিনের বাবা, চাচা মোছাব্বির, জসিম, নাছির ও চাচাতো ভাই শাহরিয়ার পৃথক আদালতে নিলে নাছির ও শাহরিয়ার ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়।

ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার আরও জানান, নিহত তুহিনের বাবা একটি হত্যা মামলাসহ কয়েকটি মামলার আসামি। প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে বাছির তার ভাই ও ভাতিজাদের নিয়ে এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। নিহত তুহিনের মা মনিরা বেগম বাদী হয়ে সোমবার রাতে অজ্ঞাত ১০ জনকে আসামি করে দিরাই থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

প্রেস ব্রিফিং-এ অন্যদের মধ্যে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. হায়াতুন নবী, মাহবাবুর রহমান, জেলা বিশেষ শাখার ওসি আনোয়ার হোসেন মৃধা, সুনামগঞ্জ সদর ওসি মোহাম্মদ সহিদুর রহামন, দিরাই থানার ওসি কেএম নজরুল ইসলাম, জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ওসি কাজী মুক্তাদীর আহমদ প্রমুখ। এদিকে, তুহিনের হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে সুনামগঞ্জে মানববন্ধন করেছে সুনামগঞ্জস্থ দিরাই কল্যাণ সমিতি, মানববন্ধন করেছে সুশাসনের জন্য নাগরিক সুজন ও জেলা খেলাঘর।

আমানত হিসেবে রাখা ইয়াবা সেবন করে ফেলায় বন্ধুকে হত্যা

image

নুসরাত হত্যাকাণ্ডে কোন আসামির কি কাণ্ড ছিলো!

image

হত্যা মামলায় ৭ দিনের রিমান্ডে ক্যাসিনো খালেদ

image

স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি : আবরার পানি চেয়েছে দেওয়া হয়নি, হাসপাতালে নেওয়ার কথা বলা হয়েছে কিন্তু নেয়নি বড় ভাইয়ারা

image

মা ইলিশের লালসায় নদীতে লুঙ্গি পড়া জেলের সাজে আটক চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় নি প্রশাসন

image

অবৈধ সম্পদ অর্জন ও ভোগদখলের অভিযোগে খালেদ-শামীমের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

image

টং এর দোকানদার টু ঢং এর কাউন্সিলর ভায়া কোন এক সাবেক প্রতিমন্ত্রী

image

স্পর্শ ছাড়াই ঘুষের টাকা স্ত্রীর কাছে পৌঁছে যেতো

image

তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারীর বিরুদ্ধে দেশে বিদেশে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ

image