ফালুসহ ৭জন জমি আত্মসাৎকারীর বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশিট অনুমোদন

image

ভালুকার বনবিভাগের ১২৭ শতাংশ জমি আত্মসাতের অভিযোগে বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য মোসাদ্দেক আলী ফালু ও ভালুকার সাব-রেজিস্টার ফজলার রহমানসহ (বরখাস্ত) সাত জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ১৬ মে বৃহস্পতিবার দুদকের প্রধান কার্যালয়ে চার্জশিট অনুমোদন দেয় কমিশন। যে কোন দিন আদালতে চার্যশিট দাখিল করবে তদন্ত কর্মকর্তা।

দুদকে উপ পরিচালক( জনসংযোগ কর্মকর্তা) প্রনব কুমার ভট্টাচার্য্য জানান চার্জশিটভুক্ত অন্যরা হলেন-জমির ভুয়া মালিক ময়মনসিংহের মৃত রিয়াজ উদ্দিনের স্ত্রী মোছা. জুবেদা খাতুন, খন্দকার আমিনুর রহমানের স্ত্রী মোছা. মাজেদা বেগম, মো. খোকা মিয়া, সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের দলিল লেখক মো. আকরাম হোসেন (জুয়েল) ও মো. রুহুল আমিন। এর আগে জমি আত্মসাতের অভিযোগে ২০১৭ সালে ১৯ অক্টোবর ভালুকা (ময়মনসিংহ) মডেল থানা মামলা হয়েছিল। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ময়মনসিংহ সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের দুদকের উপসহকারী পরিচালক মো. এনামুল হক।

দুদকের প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়, আসামিরা জালিয়াতি ও প্রতারণার আশ্রয়ে পরস্পর যোগসাজেশে ময়মনসিংহ জেলা ভালুকা উপজেলাধীন পাঁলগাও মৌজার এস. এ ১২৮৯ দাগের বনবিভাগের গেজেটভুক্ত সরকারি ১২৭ শতাংশ সম্পত্তি আত্মসাৎ করেছেন। দুদকের তদন্তে অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় ওই ৭ জনের বিরুদ্ধে কমিশন চার্জশিট দাখিলের অনুমোদন দেয়। শিগগিরই সংশ্লিষ্ট আদালতে চার্জশিট দাখিল হবে।

২০১৭ সালে বন বিভাগের প্রায় ১০ একর জমি জালিয়াতির মাধ্যমে নিজ নামে রেজিস্ট্রি করার অভিযোগে বিএনপি চেয়ারপারসনের সাবেক উপদেষ্টা ও সংসদ সদস্য মোসাদ্দেক আলী ফালুসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে পৃথক ছয় মামলা করেছিল দুদক।