শিশু পর্নোগ্রাফি তৈরীর অপরাধে তিন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী গ্রেপ্তার

image

ঢাকার তিন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীকে আন্তর্জাতিক চক্রের সঙ্গে মিশে ‘শিশু পর্নোগ্রাফি তৈরি করে ছড়িয়ে দেওয়ার অপরাধে’ গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী দুই ব্যক্তির অভিযোগের পর দীর্ঘ দিন অনুসন্ধান চালিয়ে বোরহান উদ্দিন (২৬), মো. আব্দুল্লাহ আল-মাহমুদ (২৫) ও মো. অভি হোসেনকে (২৫) গ্রেপ্তার করা হয় বলে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট (সিটিটিসি) জানিয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার রাজধানীর শাহজাহানপুর, পল্লবী ও রামপুরা থানা এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয় বলে সিটিটিসির জ্যেষ্ঠ সহকারী কমিশনার ইশতিয়াক আহমেদ জানিয়েছেন।

তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, এই তিন যুবক ঢাকার প্রথম সারির তিনটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। তিনজনই শিশু পর্নোগ্রাফি তৈরির কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। এখন তারা কারাগারে আছেন।

তাদের কাছ থেকে মোবাইল ও কম্পিউটার ছাড়াও ৩০ জিবি ভলিউমের ৩ হাজার ৩১৬টি ফাইল জব্দ করা হয়। এগুলোর মধ্যে ৪৫ জন ‘ভিকটিমের’ নগ্ন ছবি রয়েছে।

এরা সাধারণত ৯ থেকে ১৫ বছরের ছেলে-মেয়েদের ‘টার্গেট’ করতেন জানিয়ে পুলিশ কর্মকর্তা ইশতিয়াক বলেন, “সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অ্যাকাউন্ট খুলে তারা দেশের বাইরের শিশু পর্নোগ্রাফি তৈরি গ্রুপের সাথে যোগাযোগ করে। তাদের দেওয়া নির্দেশনা অনুযায়ী বাংলাদেশে কাজ করে।

“তারা নামকরা স্কুলের শিশু-কিশোর-কিশোরীর অ্যাকাউন্ট অনুসরণ করত এবং নানাভাবে অসামাজিক কাজে উৎসাহিত করার মাধ্যমে নুড কনটেন্ট তৈরি করে ছড়িয়ে দিত। নিবন্ধিত সদস্য হিসাবে তারা অশ্লীল ডার্ক ওয়েবসাইটে ঢুকত।”

এই চক্র কখনও কখনও অবস্থাসম্পন্ন শিশুর অভিভাবকের কাছে কনটেন্ট পাঠিয়ে অর্থ হাতিয়ে নিতেন বলে জানান তিনি।

সহকারী কমিশনার ইশতিয়াক বলেন, এছাড়া তারা কখনও কখনও সমকামী হিসাবেও অনলাইনে নিজেদের পরিচয় দিতেন। গ্রেপ্তারের পর একদিন রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদের পরদিন রোববার আদালতে পাঠালে তারা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।