সম্রাট শাওন খালেদ ও শামীমের আরও ১৩ প্রতিষ্ঠানের অ্যাকাউন্ট স্থগিতের নির্দেশ

image

অবৈধ ক্যাসিনো ব্যবসায়ের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন, ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট, খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া ও জিকে শামীমের মালিকানায় থাকা আরও ১৩ প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক হিসাব স্থগিতের নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর উল্লেখ করে চিঠিতে বলা হয়েছে, এসব ব্যক্তির একক অথবা যৌথ নামে বা তাদের মালিকানাধীন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নামে পরিচালিত ব্যাংক হিসাবের সব ধরনের মেয়াদি আমানত হিসাব (এফডিআর ও এসটিডি), যে কোন ধরনের কিংবা নামের মেয়াদি আমানত হিসাব অথবা ফরেন কারেন্সি অ্যাকাউন্ট ও বিভিন্ন ব্যাংকের লকার বা ভল্টে রাখা সম্পদ স্থগিত রাখতে নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট। বিএফআইইউ থেকে বিভিন্ন ব্যাংকে পাঠানো চিঠি থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। এর আগে শাওন সম্রাট ও খালেদ ও শামীমসহ তাদের স্ত্রীদের ব্যাংক হিসাব স্থগিত করেছিল বাংলাদেশ ব্যাংক। কিন্তু এবার তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক হিসাব স্থগিত রাখতে বিভিন্ন ব্যাংককে এ নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

১৩ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শাওন ও তার স্ত্রী ফারজানা চৌধুরীর মালিকানায় থাকা ব্যাংক হিসাবগুলো হলো মেসার্স নওয়াল কনস্ট্রাকশন, মেসার্স মায়সা ট্রেডার্স (জেভি), নওয়াল কনস্ট্রাকশন, বিদ্যানিকেতন প্রি-ক্যাডেট স্কুল, ফারজানা বুটিক, ইনটিশার ফিশারিজ ও মেসার্স ডিজিটাল টেক। এসব ব্যাংক হিসাবের সব ধরনের লেনদেন স্থগিত রাখার নির্দেশ দিয়ে বিভিন্ন ব্যাংকে নির্দেশনা দিয়ে চিঠি দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। একই সঙ্গে সম্রাট ও তার স্ত্রী শারমিন চৌধুরীর মালিকানায় থাকা মেসার্স শারমিন এন্টারপ্রাইজ, মেসার্স হিশ মুভিস ও প্রিন্সিপাল রিয়েল স্টেটের নামে রাখা যে কোন মেয়াদি আমানত (এফডিআর ও এসটিডি), ফরেন কারেন্সি অ্যাকাউন্ট, ক্রেডিট কার্ড এবং লকার বা ভল্টে রাখা সব ধরনের সম্পদ স্থগিত রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে বিভিন্ন ব্যাংককে।

শামীমের মালিকানায় থাকা মেসার্স জিকে বিল্ডার্স, জিকেবি অ্যান্ড কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেড নামে বিভিন্ন ব্যাংকে থাকা ব্যাংক হিসাবে রাখা যে কোন ধরনের সঞ্চয়ী হিসাব অথবা চলতি স্কিমের অর্থ উত্তোলন বা স্থানান্তর স্থগিত রাখার জন্য বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংককে নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। একই সঙ্গে শামীমের স্ত্রী শামীমা সুলতানার ব্যাংক হিসাব স্থগিত রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে বিএফআইইউ থেকে। এছাড়া শামীমের আত্মীয় আফসার উদ্দিন মাস্টারের স্ত্রী আয়শা আক্তারের ব্যাংক হিসাব স্থগিত রাখার নির্দেশ দিয়ে বিভিন্ন ব্যাংকে চিঠি দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। আয়শা আক্তারের জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বরও উল্লেখ করা হয়েছে ওই চিঠিতে।

এদিকে খালেদের মালিকানায় থাকা মেসার্স অর্পণ প্রপার্টিজের ব্যাংক হিসাব ও সঞ্চয়পত্র বা যে কোন সেভিংস ইন্সট্রুমেন্ট কিংবা ইনভেস্টমেন্ট স্কিম অথবা ডিপোজিট স্কিমের সব ধরনের লেনদেন স্থগিত রাখতে বিভিন্ন ব্যাংকে বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) থেকে চিঠি দিয়েছে।

এর আগে গত মঙ্গলবার (২৪ সেপ্টেম্বর) এনবিআরের সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স সেল (সিআইসি) আয়কর অধ্যাদেশ ১৯৮৪-এর ১১৩ (এফ) ধারা এবং ১১৬ মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংককে চিঠি দিয়েছে। এতে বলা হয়, বিভিন্ন ব্যাংকে ঋণের বিপরীতে রাখা জামানতের বিবরণীতে ২০১২ সালের ১ জুলাই থেকে হালনাগাদ পর্যন্ত শাওন, সম্রাট, খালেদ ও শামীমের মালিকানায় থাকা প্রতিষ্ঠানগুলোর ব্যাংক হিসাবগুলোর তথ্য চায় এনবিআর। চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে ইতোমধ্যে বিভিন্ন ব্যাংককে চিঠি দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। একই সঙ্গে তাদের স্ত্রী ও শামীমের মায়ের ব্যাংক হিসাবের তথ্যও উল্লেখ করা হয়েছে ওই চিঠিতে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক সিরাজুল ইসলাম সংবাদকে বলেন, এটা বাংলাদেশ বিএফআইইউয়ের ব্যাপার। তারা আলাদা প্রতিষ্ঠান। বাংলাদেশ ব্যাংকের বিষয় হলে মন্তব্য করতে পারতাম।

এদিকে এনবিআরের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া সংবাদকে বলেন, চলমান ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে এনবিআর এ উদ্যোগ নিয়েছে। গোয়েন্দা সূত্রে প্রাপ্ত তথ্য মতে, তারা বিপুল অঙ্কের অর্থ অবৈধভাবে অর্জন করেছেন বলে জানতে পেরেছে এনবিআর। নিজেদের ব্যাংক হিসাবে তারা অবৈধভাবে অর্জিত অর্থ রেখেছেন সন্দেহ থেকেই এনবিআর এ আদেশ দিয়েছে।