কথায় গানে ও নৃত্যে অধ্যাপক ফখরুল আলমের জন্মদিন উদ্‌যাপন

image

বিশিষ্ট রবীন্দ্র গবেষক, শিক্ষাবিদ ও অনুবাদক অধ্যাপক ফখরুল আলম পা দিয়েছেন ৬৯ বছরে। এ উপলক্ষে ২০ জুলাই শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র মিলনায়তনে সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘সুচর্চা’ আয়োজন করে ‘প্রিয় গান’ শিরোনামের এক অনুষ্ঠান। এতে ফখরুল আলমকে নিয়ে যেমন কথা বলেন তার প্রিয়জনরা, তেমনি শিল্পীরা পরিবেশন করেন তার প্রিয় গানগুলো। সঙ্গীতের সঙ্গে ছিল নৃত্য ও আবৃত্তি পরিবেশনাও।

অনুষ্ঠানে ড. ফকরুল আলম ছাড়া অধ্যাপক নজরুল ইসলাম, সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. এম এম শহীদুল হাসান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে রবীন্দ্রনাথকে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানিয়ে স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন বিধান চন্দ্র পাল। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন কৃষ্টি হেফাজ।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই ‘আগুনের পরশমণি ছোঁয়াও প্রাণে’ ও ‘আকাশ ভরা সূর্য তারা’ গানের সঙ্গে পরিবেশিত হয় সমবেত নৃত্য। এরপর রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘দায় মোচন’ কবিতাটি পাঠ করেন বাচিক শিল্পী ডালিয়া দাস। নৃত্য আর কবিতার পর শিল্পী অভয়া দত্ত পরিবেশন করেন ‘তেমায় গান শুনাব’। পাপিয়া সরোয়ার পরিবেশন করেন ‘হৃদয় বাসনা পূর্ণ হলো’, বিকাশ গর্গ পরিবেশন করেন ‘প্রাণ ভরিয়ে তৃষা হরিয়ে’, প্রমিলা মুক্তি পরিবেশন করেন আমার মুক্তি আলোয় আলোয়’ গানটি। এছাড়া অন্যান্য শিল্পীরাও পরিবেশন করেন বিভিন্ন রবীন্দ্রসঙ্গীত। অনুষ্ঠানের শেষপ্রান্তে ‘ফুলে ফুলে ঢলে ঢলে’ এবং ‘আনন্দলোকে মঙ্গলালোকে’ গানের সঙ্গে পরিবেশিত হয় সমবেত নৃত্য। এরপর মঞ্চে আসেন অধ্যাপক ফখরুল আলম।

জন্মদিনের অনুভূতি ব্যক্ত করে ফখরুল আলম বলেন, আমার পরিবারেই রবীন্দ্রসঙ্গীত চর্চা ছিল। বাবা অনেকটা জোর করেই সে গান শোনাতেন। বাবা-মা অনেক কষ্ট করে আমাদের ভাইবোনদের গান শিখিয়েছেন। সেখান থেকেই রবীন্দ্রনাথ এই যে আমাদের ধরে বসল, আর ছাড়ছে না। আগামীতে মনের ভেতর রবীন্দ্রনাথকে নিয়ে আরও বড় যে কাজ করার ইচ্ছে আছে, তা যেন সম্পন্ন করতে পারি এই প্রত্যাশা করি। বিশিষ্ট সাহিত্যিক ও অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, অধ্যাপক ফখরুল আলম বুদ্ধিবৃত্তি ও হৃদয়বৃত্তির চর্চার পাশাপাশি একই সঙ্গে সাহিত্য ও সঙ্গীতের সমান্য অনুরাগী। আমি তার প্রতিভার, নিষ্ঠার, সততার এবং পা-িত্যের গুণমুগ্ধ দর্শক।