নিমগ্ন নির্জন কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন

image

নবরাগ প্রকাশনী : গাঁও গেরামের কথারুকুনউদ্দৌলাহপ্রচ্ছদ চারু পিন্টু স্টল নম্বর ৩৬৫-৩৬৬

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গুলশান বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তীর লেখা ‘নিমগ্ন নির্জন’ কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচিত হলো ১২ ফেব্রুয়ারি বুধবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অমর একুশে বইমেলা প্রাঙ্গণে মোড়ক উন্মোচন মঞ্চে ‘নিমগ্ন নির্জন’ কাব্যগ্রন্থের উন্মোচন করেন ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম। এ সময় ডিএমপির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ সুধীজন উপস্থিত ছিলেন।

মোড়ক উন্মোচন করে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডিএমপি কমিশনার বলেন, আমরা যারা আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় কাজ করি, তাদের পক্ষে কাজের বাইরে অন্য সময় বের করা অনেকটা দুরূহ। সেই দুরূহ কাজটি সুদীপ (লেখক) সময় নিয়ে অনেক পরিশ্রম করে বইটি লিখেছেন। আপনারা বইটি পড়বেন। আর এতে গঠনমূলক ত্রুটি থাকলে সমালোচনা করে শুধরে নেয়ার সুযোগ দিবেন। আমি তার (লেখক) সাফল্য কামনা করছি।

নিমগ্ন নির্জন কাব্যগ্রন্থের লেখক সুদীপ কুমার চক্রবর্তী বলেন, আমরা জননিরাপত্তায় নিয়োজিত থেকে একটা জিনিস হৃদয় দিয়ে অনুভাব করি আমরা এই সমাজ থেকে উঠে এসেছি। আমাদের ভেতরও আবেগ খেলা করে। মানবিকতা ও মনুষ্যত্ব নিয়ে আমরা পেশাগতভাবে চর্চা করি। এটি আমার তৃতীয় বই। আশা করি বইটি আপনাদের ভালো লাগবে। নিমগ্ন নির্জন কাব্যগ্রন্থে চিরায়ত চেতনার উন্মেষ ঘটেছে, পাশাপাশি সব হারানোর মাঝে পাওয়ার তীব্র আকাক্সক্ষাও ফুটে উঠেছে। এছাড়া আধুনিক নগরজীবনের প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি, চাওয়া-পাওয়া, অবসাদ, কান্তি, নিঃসঙ্গতা, হতাশা-সংশয়সহ সাম্প্রতিক সময়ের নানা প্রসঙ্গ প্রাসঙ্গিকভাবে চিত্রময়তার সঙ্গে বিচিত্র হয়েছে। কাক্সিক্ষত জীবনের নানা দিক এই গ্রন্থের কবিতায় ধ্বনিত হয়েছে ভালোবাসার সর্বজনীন সুর। ভালোবাসার আরাধনা নির্জনতার পরশে অনিন্দ্যসুন্দর হয়ে ওঠে। তারই অপরূপ ভাস্বর এই কাব্যগ্রন্থ।

উল্লেখ নিমগ্ন নির্জন কাব্যগ্রন্থটি লেখকের তৃতীয় বই। বইটি প্রকাশ করেছে পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লিমিটেড। লেখক সুদীপ কুমার চক্রবর্তী ২০১২ সালে নিরন্তর নির্বাসন ও ২০১৩ সালে নীলিমায় বালিহাঁস নামের কাব্যগ্রন্থ লিখেছেন।