ভেনিসে গোল্ডেন লায়ন জিতল নোম্যাডল্যান্ড

image

যুক্তরাষ্ট্রের চলচ্চিত্র নোম্যাডল্যান্ড ভেনিস চলচ্চিত্র উৎসবের গোল্ডেন লায়ন পুরস্কার জিতেছে। কোভিড-১৯ মহামারির পর দর্শক উপস্থিতিতে এটিই প্রথম কোনো চলচ্চিত্র উৎসব।

চীনা বংশোদ্ভুত পরিচালক ক্লোয়ে ঝাও পরিচালিত নোম্যাডল্যান্ডের প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন ফ্রান্সেস ম্যাকডোরম্যান্ড। ছবিটিতে তিনি একজন বিধবা, যিনি ২০০৮ সালের অর্থনৈতিক সঙ্কটের পর থেকে যাযাবর বা নোম্যাড হিসেবে জীবনযাপন করেন। এছাড়া মেক্সিকান পরিচালক মিশেল ফ্রাঙ্কোর থ্রিলার নিউ অর্ডার এবং জাপানোর কিয়োশি কুরোসাওয়ার ঐতিহাসিক কাহিনী-নির্ভর ছবি ওয়াই অব এ স্পাই চলচ্চিত্র দুটি সিলভার লায়ন পুরস্কার পেয়েছে। চলচ্চিত্র উৎসবে আগত দর্শকদের মাস্ক পরতে হয়েছে। সিনেমা হলের অর্ধেক আসনই ছিল ফাঁকা, জানিয়েছে বিবিসি। বিশ্বের সবচেয়ে পুরোনো এ চলচ্চিত্র উৎসবে এবার তারকা উপস্থিতিও ছিল খুবই নগণ্য।

এটি ছিল উৎসবের ৭৭তম সংস্করণ। অস্ট্রেলীয় অভিনেত্রী কেট ব্ল্যানচেট বিচারকমণ্ডলীর নেতৃত্ব দেন। গত দশবছরে এই প্রথম কোনো নারী পরিচালকের ছবি সবচেয়ে বড় পুরস্কারটি পেলো। পুরস্কার বিতরণের সময় ক্যালিফোর্নিয়া থেকে জুমে কথা বলেন ম্যাকডারমড। তিনি বলেন, এরকম চরম উদ্ভট পরিস্থিতিতে, এবং এই উদ্ভট পদ্ধতিতে হলেও, আমাদের যে এই উৎসবে আসতে দিয়েছেন সেজন্য সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।

চলচ্চিত্র উৎসবের গ্রান্ড জুরি পুরস্কারও পেয়েছে ফ্রাঙ্কো পরিচালিত ছবিটি। আর কুরোসাওয়া পেয়েছেন সেরা পরিচালকের পুরস্কার। বিশেষ পুরস্কার দেওয়া হয়েছে রাশিয়ার পরিচালক আন্দ্রেই কোনচালভস্কি পরিচালিত ডিয়ার কমরেডসকে। ছবিটি ১৯৬২ সালে সোভিয়েতে প্রতিবাদকারীদের ওপর চালানো হত্যাযজ্ঞের ওপর।

যুক্তরাজ্যের ভেনেসা কিরবি পেয়েছেন উৎসবের শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর পুরস্কার। আর শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিবেচিত হয়েছেন ইতালির পিয়েরফ্রান্সিসকো ফ্যাভিনো। গত বছর এই উৎসবে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রের পুরস্কার পেয়েছিল জোয়াকিন ফিনিক্স অভিনীত জোকার। কান ও বার্লিনের পর সবচেয়ে বড় চলচ্চিত্র উৎসব এটি।