সুশান্তের মৃত্যু : অপপ্রচারের অভিযোগে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে বলিউড প্রযোজক, তারকাদের মামলা

image

জুনের পর থেকে সুশান্তের মৃত্যুই ছিল বলিউড নিয়ে ভারতীয় গণমাধ্যমের প্রধান আলোচনার বিষয়। তা নিয়ে সংবাদ মাধ্যমে বাড়াবাড়ির অভিযোগও ছিলো। এবার সংবাদ প্রতিষ্ঠান, সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে আদালতে গেল বলিউডের প্রযোজক, শিল্পীরা।

দায়িত্বহীন সংবাদ পরিবেশনার অভিযোগ নিয়ে।

মামলা করেছে বলিউডের ৩৪ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ও চার সমিতি। আসামী করা হয়েছে দুটি সংবাদ প্রতিষ্ঠান এবং চার সাংবাদিককে বা সংবাদ উপস্থাপককে।

প্রতিষ্ঠান দুটো হচ্ছে রিপাবলিক টিভি ও টাইমস নাউ। আর সাংবাদিক চারজন হচ্ছেন, রিপাবলিক টিভির অর্ণব গোস্বামী ও প্রদীপ ভান্ডারী এবং রিপাবলিক টিভির রাহুল শিব শংকর ও নবিকা কুমার।

মামলাকারীদের মধ্যে তিন খান - শাহরুখ, সালমান ও আমিরের প্রতিষ্ঠান তো আছেই, আছে অক্ষয় কুমার, অজয় দেবগন, করন জোহরের প্রতিষ্ঠানসহ প্রথমসারির সবগুলোই।

এ নিয়ে বিবিসির পক্ষ থেকে ওই সাংবাদিকদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তাদের পাওয়া যায়নি।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, অভিযুক্তরা সীমা অতিক্রম করে বলিউডের সদস্যদের ব্যক্তিজীবনে ঢুকে পড়েছেলের। গোটা বলিউডকে অপরাধী ও মাদকাসক্ত হিসেবে চিত্রিত করে তাদের সুনামের চিরস্থায়ী ক্ষতিসাধন করেছে। জনমনে বলিউডকে অপরাধমূলক কর্মকা-ের সমার্থক বানিয়ে ফেলা হয়েছে।অভিযোগে উল্লেখ করা হয় অভিযুক্তরা বলিউড সম্পর্কে মারাত্মকভাবে মর্যাদাহানিকর কথাবর্তা বলেছেন।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে - অপপ্রচারে গোটা বলিউডের সুনাম ক্ষুন্ন হয়েছে। তা তাদের জীবিকার ওপর আঘাত হেনেছে।

বলিউড সংশ্লিষ্টদের ব্যক্তিজীবনের অধিকার লঙ্ঘিত হয়েছে। জনমনে তাদের ভাবমূর্তি দাঁড়িয়েছে অপরাধীর সমার্থকরূপে। তাদের চোখে বলিউড হয়ে গেছে মাদকের সাম্রাজ্য।

অভিযুক্তরা বলছেন বলিউডের আবর্জনা সরাতে হবে। তারা আরো বলেছেন, আরবের সমস্ত সুগন্ধী ছড়ালও বলিউডের এই দুর্গন্ধ যাবে না। তারা বলেন বলিউড কোকেন ও এলএসডিতে আচ্ছন্ন।

নিজ বাসায় থেকে সুশান্তের মৃতদেহ উদ্ধার হয় ১৪ জুন। পুলিশ তখন বলেছিল - আত্মহত্যা।

কিন্তু পরে সামাজিক মাধ্যমে শুরু হয় জল্পনার ঝড়। গণমাধ্যম নামে কাটাছেঁড়ায়। আর সুশান্তের পরিবার অভিনেতার প্রেমিকা রিয়া চক্রবর্তীকে দায়ী করে মামলা করলে ঘটনাকে ঘিরে জটিলতা অন্য মাত্রা পায়। এরপর তার সঙ্গে যুক্ত হয় মাদক প্রসঙ্গ।

এখন কেন্দ্রীয় সরকারের তিন সংস্থা তদন্ত করছে ঘটনার।

এযাবৎ বলিউড সংশ্লিষ্ট উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

মাদকের কথা আসার পর পুলিশ কার্যালয়ে যেতে হয়েছে দীপিকা পাডুকোনসহ আরো কয়েকজনকে।

অভিযোগকারীরা উল্লেখ করেছেন, অভিযুক্ত সাংবাদিকেরা বলিউড ও চলচ্চিত্রের মানুষদের নিয়ে ভয়াবহ মানহানিকর সব কথাবার্তা বলেছেন। বলেছেন, আমরা নাকি আবর্জনা, ময়লা, নোংরা, মাদকসেবী, আরও কত কী। এমনকি তারা এমন কথাও বলেছে, বলিউডের আবর্জনা পরিস্কার করতে হবে, আরবের সমস্ত সুগন্ধীতেও নাকি এর দুর্গন্ধ যাবে না। বলেছে এটা নাকি দেশের সবচে নোংরা জায়গা। আরো বলেছে, আমরা নাকি কোকেন, এলএসডিতে বুদ হয়ে থাকি।