সেই মেয়েটি

image

প্রিয়দর্শিনী মৌসুমী অভিনীত নাজমুল হূদা মিন্টু পরিচালিত ‘মৌসুমী’ সিনেমার ‘সেই মেয়েটি আমাকে ভালোবাসে কী না আমি জানিনা’ গানটি এখনো শ্রোতা দর্শকের মাঝে বেশ জনপ্রিয়। গাজী মাজহারুল আনোয়ারের লেখা এই গানটির সুর সঙ্গীত করেছিলেন প্রয়াত আনোয়ার পারভেজ (নায়ক জাফর ইকবাল ও সঙ্গীতশিল্পী শাহনাজ রহমতুল্লাহর বড় ভাই)। গানটিতে কন্ঠ দিয়েছিলেন প্রয়াত খালিদ হাসান মিলু। পরবর্তীতে খালিদ হাসান মিলু মারা যাবার পর এই গানটি সঙ্গীতা থেকে আবারো প্রকাশ করা হয়। গানটি নতুন করে গেয়েছিলেন প্রতীক হাসান। প্রতীক হাসানের কন্ঠেও গানটি শ্রোতা দর্শকেরা তার বাবার কারণেই নতুন করে আলোচনায় এনে দিয়েছিলো। আলোচনায় এসেছিলো এই গানের মডেল মুক্তিও। মুক্তি বলেন,‘ এটি ছিলো আমার প্রথম মিউজিক ভিডিও। যেহেতু আমাদের শ্রদ্ধেয় নায়িকা মৌসুমী আপুর নামেই সিনেমাতে এই গানটিতে পারফর্ম করেছিলেন মৌসুমী আপু নিজেই। তাই পরবর্তীতে এই গানে আমার মডেল হিসেবে কাজ করাটাও ছিলো ভীষণ চ্যালেঞ্জের। ’

মুক্তি লকডাউন শুরুর আগে সর্বশেষ সাজ্জাদ হোসেন দোদুলের নির্দেশনায় ‘ছায়াবিবি’ ধারাবাহিকে অভিনয় করেছিলেন। ১৯৯৯ সালে ‘বিনোদন বিচিত্রা ফটোসুন্দরী’ প্রতিযোগিতার মাধ্যমে নিজেকে মিডিয়ার সাথে সম্পৃক্ত করেন। মিনহাজুর রহমানের পরিচালনায় একুশে টিভিতে প্রচারিত তৌকীর আহমেদ’র বিপরীতে ‘অগ্নিগিরি’ নাটকে মুক্তি প্রথম অভিনয় করেন। পরবর্তীতে সালাহ উদ্দিন লাভলুর নির্দেশনায় ‘রঙ্গের মানুষ’ ধারাবাহিকে দিলখুশ চরিত্রে অভিনয় করেন। মুক্তির বাবা প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আবদার রহমান, মা রোকেয়া রহমান। সার্ফ এক্সেলের বিজ্ঞাপনে মুক্তি প্রথম তারিক আনাম খানের নির্দেশনায় বিজ্ঞাপনে মডেল হন। পরবর্তীতে তিনি সালাহ উদ্দিন লাভলু, আনজাম মাসুদ’সহ আরো অনেকের বিজ্ঞাপনে মডেল হিসেবে কাজ করেন। করোনা’র এই সময়ে এখনো শুটিং-এ ফিরেননি তিনি।