‘সত্যিকার সুপার হিরো' ব্ল্যাক প্যান্থার তারকা চ্যাডউইক বোসম্যান

image

চ্যাডউইক বোসম্যান মারা গেলেন ৪৩ বছর বয়সে। ব্ল্যাক প্যান্থার চলচ্চিত্রের অভিনেতা হিসেবেই ছিলেন সর্বাধিক পরিচিত।

কোলন ক্যান্সার হয়েছিল ২০১৬ সালে। কিন্তু কখনো তা প্রকাশ্যে বলেননি।

তার মৃত্যুতে শিল্প-সংস্কৃতি, খেলাধুলার জগত ও রাজনীতির মানুষেরা শোক করছেন।

তার পরিবারকে উদ্ধৃত করে বিবিসি জানাচ্ছে, অসুস্থ হওয়ার পরও অনেকগুলো ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি। এমনকি সেইসময় অনেকগুলো অস্ত্রপচারও তাকে অভিনয় থেকে দূরে রাখতে পারেনি।

চ্যাডউইক বোসম্যানকে মানুষ স্মরণ করছেন কারণ তিনি সংস্কৃতির বেড়াজাল ভাংতে পেরেছিলেন। আর একটি প্রজন্মের কৃষ্ণাঙ্গদের অনুপ্রেরনা জুগিয়েছেন, বলছে ইংল্যান্ডের পত্রিকা দ্য গার্ডিয়ান।

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেছেন, ধন্য এ অভিনেতা।

টুইটে তিনি স্মরণ করেছেন ২০১৩ সালে ‘ফরটিটু’ চলচ্চিত্রের জ্যাকি রবিনসন চরিত্রের চিত্রগ্রহণের জন্য চ্যাডউইকের হোয়াইট হাউসে আসার কথা।

ওবামা বলেন, “তাকে দেখলেই বোঝা যেতো কী পরিমাণ আশীর্বাদপ্রাপ্ত একজন মানুষ ছিলেন। তারুণ্যদীপ্ত, সহজাত মেধার, এবং কৃষ্ণাঙ্গ। সবার সামনে নায়কের প্রতিমূর্তি হয়ে উঠেছিলেন। যন্ত্রণা নিয়েই এসব করে গেছেন। সময়কে কতটা অর্থবহ করে গেছেন।”

রেসিং ড্রাইভার লুইস হ্যামিলটন তার সাম্প্রতিক বিজয়কে উৎসর্গ করেছেন প্রয়াত এই অভিনেতার প্রতি।

টুইটারে শোক জানিয়ে তিনি লিখেছেন, “তিনি একটি প্রজন্মের কালো তরুণদের অনুপ্রাণিত করেছেন। শক্তি নিয়েই থেকো, বন্ধু লিখেছেন তিনি।”

বোসম্যান দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ায় জন্মেছিলেন। টেলিভিশনে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে যাত্রা শুরু হয়েছিল তার।

বাস্তব চরিত্রের চলচ্চিত্র রূপায়নের মাধ্যমেই তারকা খ্যাতি তুঙ্গে ওঠে তার। বেইসবল তারকা জ্যাকি রবিনসনের চরিত্রে অভিনয়ের পরে ২০১৪ সালের ‘গেটআপঅন’ এ গায়ক জেমস ব্রাউনের চরিত্রেও অভিনয় করেন।

তবে সুপার হিরো ব্ল্যাকপ্যান্থারের ভূমিকার জন্যই তিনি সর্বজন বিদিত।