তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত পরীক্ষা তুলে দেয়ার উদ্যোগ

image

প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথম থেকে তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত ছাত্রছাত্রীদের পরীক্ষা তুলে দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। পরীক্ষা বাদ দিয়ে ‘অ্যাসেসমেন্ট’র (মূল্যায়ন) ভিত্তিতে শিক্ষার্থীদের নিচের ক্লাস থেকে উপরের ক্লাসে উত্তীর্ণ করার নতুন সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে মন্ত্রণালয়। ২৪ মার্চ রোববার এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব আকরাম-আল-হোসেন। তবে এ বছর থেকেই প্রথম থেকে তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত পরীক্ষা বাদ যাচ্ছে কিনা-তা স্পষ্ট করেননি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব। তিনি বলেন, ‘প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম থেকে তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের কিভাবে মূল্যায়ন করা হবে, তা চূড়ান্ত হলেই এই তিন শ্রেণীর পরীক্ষা তুলে দেয়ার ঘোষণা দেবে সরকার।’ সাংবাদিকদের এক প্রশ্নে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব আকরাম-আল-হোসেন বলেন, ‘তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত পরীক্ষা রাখব না, প্রধানমন্ত্রীও মৌখিকভাবে বলেছেন। তবে মাঠ পর্যায়ে এখনও কোন নির্দেশনা দেয়া হয়নি।’

যদিও জাতীয় শিক্ষানীতিতে বলা হয়েছে, ‘তৃতীয় শ্রেণী থেকে ত্রৈমাসিক, অর্ধবার্ষিক ও বার্ষিক মূল্যায়ন পদ্ধতি অব্যাহত থাকবে।’ পরীক্ষা তুলে দেয়ার পর প্রথম থেকে তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের কোন পদ্ধতিতে মূল্যায়ন করা হবে তা ঠিক করতে এনসিটিবিকে (জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড) সুপারিশপত্র তৈরি করতে বলা হয়েছে জানিয়ে গণশিক্ষা সচিব বলেন, ‘এনসিটিবির সুপারিশপত্রের আলোকে শিক্ষক, কর্মকর্তা, শিক্ষাবিদ ও অভিভাবকদের একটি কর্মশালা করে অ্যাসেসমেন্ট পদ্ধতি ঠিক করা হবে। অ্যাসেসমেন্ট পদ্ধতি নির্ধারণ করা গেলে কবে থেকে পরীক্ষা হবে না সে বিষয়ে মাঠ পর্যায়ে যারা আছেন তাদের নির্দেশনা দেয়া হবে।’

তিন শ্রেণীর পরীক্ষা তুলে দেয়ার ঘোষণা কবে নাগাদ দেয়া হতে পারে সে বিষয়ে স্পষ্ট কোন ধারণা না দিয়ে আকরাম-আল-হোসেন বলেন, ‘আমরা কাজ করছি, এনসিটিবিও কাজ শুরু করেছে। অ্যাসেসমেন্ট টুলস ফাইনাল করার পরে বলব, সময় মতো জানানো হবে।’

সচিব জানান, ‘শিক্ষার্থীদের এক শ্রেণী থেকে আরেক শ্রেণীতে উন্নীত করা হবে কি হবে না, তা মূল্যায়ন পদ্ধতির আলোকে নির্ধারণ করা হবে। নিচের ক্লাস থেকে উপরের ক্লাসে উত্তীর্ণ করতে এ প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকবে। আর তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত পরীক্ষা তুলে দিলেও চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণীর চূড়ান্ত পরীক্ষা এবং প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা চলবে।’ কিছুদিন আগে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, আগামী বছর থেকে তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত পরীক্ষা নেয়া হবে না।

শিক্ষানীতিতে কী রয়েছে : ‘জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১০’-এ বলা হয়েছে, ‘স্কুল কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীতে ধারাবাহিক মূল্যায়ন এবং তৃতীয় শ্রেণী থেকে ত্রৈমাসিক, অর্ধবার্ষিক ও বার্ষিক মূল্যায়ন পদ্ধতি অব্যাহত থাকবে। সব শ্রেণীতে কার্যকরভাবে ধারাবাহিক মূল্যায়ন করা হবে। খেলাধুলা ও শরীরচর্চার দক্ষতা ধারাবাহিক মূল্যায়নে স্থান পাবে।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে সচিব আকরাম-আল-হোসেন বলেন, ‘সারাদেশে কোচিংগুলোর বিরুদ্ধে অভিযান চলছে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।’