বিসিএস :সাধারণ জ্ঞান প্রস্তুতি

image

প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার জন্য সাধারণ জ্ঞান জানার বিকল্প নেই। কারণ সব পরীক্ষায়ই এই অংশের জন্য ভালো একটা নম্বর বরাদ্দ থাকে। তাছাড়া সাধারণ জ্ঞানে শক্ত দখল থাকলে আপনি সাধারণ জ্ঞান অংশ ছাড়াও বাংলা ও ইংরেজি রচনা ইত্যাদিতে অনেক ডাটা যুক্ত করতে পারবেন। বিভিন্ন পরীক্ষায় সংক্ষিপ্ত প্রশ্নের উত্তর দিতে পারবেন। এছাড়া ভর্তি পরীক্ষায় মানবিক বিভাগের ইউনিট ও বিভাগ পরিবর্তনকারী ইউনিটের জন্য সাধারণ জ্ঞান একটি অত্যাবশ্যকীয় বিষয়।

সাধারণ জ্ঞানের প্রস্তুতির জন্য বাজারে প্রচলিত যে কোনো ভালো মানের একটি বই অনুসরণ করুন। সে বইয়ের প্রতিটি টপিকের শেষে দেওয়া আছে বিগত সালে ওই টপিক থেকে আসা প্রশ্নগুলো।

যেসব টপিক থেকে বিগত সালে বেশি প্রশ্ন এসেছে সেসব বিষয়ে অধিক গুরুত্ব দিন।

ভারতীয় উপমহাদেশের ইতিহাস, ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ, সংবিধান, সরকারব্যবস্থা, বাজেট, বিশিষ্ট ব্যক্তি, গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান/সংস্থা, বিভিন্ন দেশের মুদ্রা, রাজধানী, বিভিন্ন যুদ্ধ, চুক্তি, গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা, প্রণালি, চ্যানেল, বিভিন্ন স্থানের প্রাচীন নাম, গুরুত্বপূর্ণ দিবস, পূর্ণরূপ, বিভিন্ন পুরস্কার/অর্জন, খেলাধুলা প্রভৃতি থেকে প্রশ্ন এসে থাকে। সাধারণ জ্ঞানের প্রস্তুতির ক্ষেত্রে সাল মনে রাখা কঠিন।

এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি সাল মনে রাখুন, অন্যগুলো মনে রাখতে কষ্ট হলেও দুশ্চিন্তার কিছু নেই। অন্য আর যেসব বিষয় কঠিন মনে হয় সেক্ষেত্রে ছন্দ বানিয়ে পড়তে পারেন। এতে সহজে সব মনে রাখতে পারবেন। ছন্দে ও কৌশলে শিখতে মহিউদ্দীনের লেখা ‘শর্টটেকনিক’ বইটা অনুসরণ করতে পারেন। অন্যদিকে সাম্প্রতিক বিভিন্ন বিষয় থেকে প্রশ্নও এসে থাকে। এ বিষয়ে ভালো করার জন্য নিয়মিত জাতীয় দৈনিক পত্রিকা পড়া ও বিবিসি শোনা যেতে পারে। মাঝে মাঝে পত্রিকায় আন্তর্জাতিক আর বাণিজ্য পাতায় চোখ রাখতে হবে।

দৈনিক পত্রিকার পাশাপাশি কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স, মাসিক নির্বাচিত সম্পাদকীয় সমাচারের মতো মাসিক পত্রিকাগুলো পড়তে পারেন।

আর ভর্তি পরীক্ষার ১০-১৫ দিন আগে ট্যাবলয়েড জাতীয় সাম্প্রতিকের অল্প কয়েকটা পৃষ্ঠার কিছু বই পাওয়া যায়; সেগুলো সংগ্রহ করেও পড়তে পারেন। কঠিন টপিক অথচ গুরুত্বপূর্ণ এসব বিষয়ে বেশি বেশি জোর দিন।

বিভিন্ন বিশ^বিদ্যালয়ে আসা বিগত সালের প্রশ্ন ও বিসিএসসহ বিভিন্ন চাকরির নিয়োগ পরীক্ষায় আসা প্রশ্নগুলো বেশি বেশি চর্চা করতে পারেন। সাধারণ জ্ঞানে ভালো করতে হলে ম্যাপ সম্পর্কে ভালো ধারণা রাখার জুড়ি নেই।

আরও কিছু পরামর্শ

১. গুরুত্বপূর্ণ সাল/তারিখ ছাড়া অপ্রাসঙ্গিক সাল/তারিখ না পড়ার চেষ্টা করবেন। যেমন : পলাশী যুদ্ধের সাল গুরুত্বপূর্ণ কিন্তু নবাব সিরাজউদ্দৌলার জন্মসাল গুরুত্বপূর্ণ নয়।

২. সংস্থা/সংগঠনের প্রতিষ্ঠা, সদরদফতর, সদস্য এবং কী উদ্দেশ্যে প্রতিষ্ঠিতÑ এ তথ্যগুলো পড়লেই চলবে।

৩. যা পড়বেন তা অন্যের সঙ্গে শেয়ার করবেন বা নিজে নিজেই বলার চেষ্টা করবেন।

৪. প্রতিদিন জাতীয় দৈনিক পত্রিকা পড়ে তা নিজে নিজে অথবা কারোর সঙ্গে আলাপ করলে সাধারণ জ্ঞান বাড়ে।

৫. ব্যক্তি সম্পর্কে পড়ার সময় তার জন্ম-মৃত্যু সালের দিকে গুরুত্ব না দিয়ে তার কর্ম সম্পর্কে তথ্য পড়ুন।

সস্ত্রীক করোনায় আক্রান্ত আনু মুহাম্মদ

image

নটর ডেমসহ চার কলেজে ভার্চুয়াল ভর্তি পরীক্ষা

image

গণিত অলিম্পিয়াডের অনলাইন কোর্স শুরু

image

৬ আগস্টের মধ্যে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রত্যাহার না হলে কঠোর আন্দোলন

image

সেপ্টেম্বরের আগে খুলছে না শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান

image

গুজব ছড়ালে আইনগত ব্যবস্থা : শিক্ষামন্ত্রী

image

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮৬৯ কোটি টাকার বাজেটে গবেষণায় বরাদ্দ মাত্র ১ শতাংশ

image

মাধ্যমিকে ৭০ লাখ কপি বইয়ের চাহিদা কমেছে

আগামী শিক্ষাবর্ষে মাধ্যমিক শিক্ষা স্তরে প্রায় ৭০ লাখ কপি বইয়ের চাহিদা কমেছে। তবে প্রাথমিক স্তরে বইয়ের সংখ্যা কমছে না। এই দুই

বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের বোনাসের টাকা ব্যাংকে যাবে আজ

image