আগের সময়টা পারফেক্ট ছিল না : তাহমিনা সুলতানা মৌ

image

মঞ্চ দিয়ে তাহমিনা সুলতানা মৌ এর যাত্রা শুরু, বর্তমানে তিনি টিভি নাটকের পরিচিত মুখ। দীপ্ত টিভিতে প্রচারাধীন জনপ্রিয় ধারাবাহিক নাটকে বকুলপুরের আছমা চরিত্রে অভিনয় করছেন। এছাড়া কয়েকটি টিভি চ্যানেলে প্রচার হচ্ছে তার অভিনীত একাধিক ধারাবাহিক নাটক। এই অভিনেত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন নিথর মাহবুব

বকুলপুর নাটক নিয়ে বলুন

‘বকুলপুর নাটকটি ইতোমধ্যে ২০০ পর্ব অতিক্রম করেছে। অনেক গুণী অভিনেতা অভিনেত্রীদের সঙ্গে এই নাটকে অভিনয় করছি। এই টিমের সঙ্গে কাজ করতে অনেক ভালো লাগছে। আরও ভালো লাগার বিষয় হলো নাটকটি দিয়ে দর্শকদের কাছ থেকে ভালো সাড়া পাচ্ছি। দীপ্ত টিভিতে সপ্তাহে পাঁচ দিন প্রচার হচ্ছে নাটকটি। নাটকে আমার চরিত্রের নাম আছমা। নাটকে আখম হাসান ভাইয়ের সঙ্গে জুটি হয়ে অভিনয় করছি।

আপনার অভিনীত আর কোন কোন নাটক প্রচার হচ্ছে?

আমার অভিনীত ‘ছায়াছবি’ ধারাবাহিক নাটক প্রচা হচ্ছে আরটিভিতে। এটি পরিচালনা করছেন আল হেজান এবং রচনা করছেন মামুন অর রশীদ। এই নাট্যকারের এবং পরিচালকের ‘হুলুস্থূল’ আমার অভিনিত আরেকটি ধারাবাহিক নাটকে প্রচার হচ্ছে এটিএন বাংলায়। যার মধ্যে ‘ছায়াছবি’ নাটকটি হচ্ছে শহর কেন্দ্রীক একটা অফিস পাড়ার গল্প নিয়ে। আর ‘হুলুস্থূল নাটকটি গ্রাম কেন্দ্রিক। সমাজে নারীদের একটা পরিবর্তন যে হচ্ছে এই পরিবর্তনটা নাটকে তুলে আনা হয়েছে। এছাড়া বিটিভিতে আমার অভিনীত একটি ধারাবাহিক নাটক প্রচার হচ্ছে বদরুল আলম সৌদ ভাইয়ের রচনা ও পরিচালনায়। নাটকের নাম ‘লোকচুরি লোকচুরি গল্প’।

এযাবৎ আপনার অভিনীত উল্লেখযোগ্য নাট কোনগুলো?

আমার অভিনীত উল্লেখযোগ্য ধারাবাহিক নাটকগুলোর মধ্যে আছে ‘গোলশান এভিনিউ’, ‘এলবেলে’, ‘অলসপুর’, ‘জননী’, ‘চাটাম ঘর’ ইত্যাদি। এছাড়া মোস্তফা কামাল রাজ ভাইয়ের পরিচালনায় আমার অভিনীত একঘণ্টার ‘মাইক’ নাটকটি খুব আলোচিত হয়। এক ঘণ্টার না ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় করতে ভালো লাগে? এক ঘণ্টার নাটকে কমই অভিনয় করছি। আসলে ধারাবাহিক নাটক বেশি অভিনয় করছি বলেই এক ঘণ্টার নাটকে সময় দিতে পারি না। তবে মাঝে মধ্যে বিশেষ দিবসের নাটকগুলোতে অভিনয় করছি।

আপনি নায়িকা সাবনাজের বোন, কিন্তু আপনাকে কখনও চলচ্চিত্রে দেখা যায়নি?

চলচ্চিত্রে অনেকগুলো কাজের প্রস্তাব পেয়েছি বা এখনও প্রস্তাব আসছে। কিন্তু করব কি করব না এটা নিয়ে সবসময় আমি দ্বিধাদ্বন্দ্বে এবং ভয়ে ছিলাম। বড় আপুর থেকে বয়সে আমি অনেক ছোট। বড় আপু যে সময়টাতে কাজ করেছে তখন চলচ্চিত্রের অনেক সুন্দর সময় ছিল। আর আমি যে সময়টায় বড় হয়ে উঠলাম; তখন সময়টা ছিল কাটপিছের। তবে এখন চলচ্চিত্রের অবস্থা ভালো হয়েছে অনেকটাই। এখন কাজ করতে রাজি আছি। দুই একটা ছবির বিষয়ে কথাও হয়েছে। নায়িকা করতে হবে এমন কোন কথা নেই। ভালো গল্পের ভালো চরিত্র হলেই আমি কাজ করতে আগ্রহী। আগের সময়টা পারফেক্ট ছিল না।’

আপনি তো থিয়েটারও করছেন

প্রথমে সূবচনের সঙ্গে কাজ শুরু করি। এই দলে ‘ক্ষুধিত পাষাণ’, ‘তীর্থাঙ্কর’, ‘ক্ষণা’ নাটকে কাজ করেছি। ওখান থেকে বের হয়ে পরে বটতলা নাটকের দলে কাজ শুরু করি। এই দলে ‘ধামাইল’ ও ‘ক্ষণা’ নাটকে কাজ করি। ‘ক্ষণা নাটকের কস্টিউম ডিজাইন আমার করা। ব্যস্ততার কারণে থিয়েটারে এখন তেমন সময় দিতে পারি না। তবে দলের সঙ্গে যোগাযোগ আছে। থিয়েটারটা করতে চাই।