ঈদের বিশেষ পরিবর্তন

image

ঈদের পরদিন রাত ১০টায় বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচার হবে ঈদের বিশেষ ‘পরিবর্তন’। সাহরিয়ার মোহাম্মদ হাসানের প্রযোজনায় পরিবর্তনের পরিকল্পনা, গ্রন্থনা, উপস্থাপনা ও নির্দেশনা দিয়েছেন আনজাম মাসুদ। আগস্ট শোকের মাস বিধায় এবারের পরিবর্তন একটু ভিন্ন মেজাজে সাজানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন আনজাম মাসুদ। ১৯টি পরিবেশনা রয়েছে এবারের পরিবর্তনে। পরিবর্তনের এবারের পর্বের জন্য তৈরি করা হয়েছে ৩টি নতুন গান। ৩টি গানেই বাংলাদেশ, সম্প্রীতি, এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়সূচক কথাবার্তা প্রাধান্য পেয়েছে।

‘ধর্ম যার যার উৎসব সবার” বর্তমান সরকারের অন্যতম এই নীতিকে প্রাধান্য দিয়ে করা একটি গানে বাংলাদেশে বসবাসকারী সব ধর্মের শিল্পী কলাকুশলী অংশ নিয়েছেন। গানটির কথা লিখেছেন প্রখ্যাত গীতিকবি লিটন অধিকারী রিন্টু। সুজন আরিফ এর সুর ও সংগীত পরিচালনায় গানটি গাইবেন এ প্রজন্মের ৬ জন আলোচিত সংগীতশিল্পী বেলী আফরোজ, বৃষ্টি, পুলক অধিকারী, শাহরিয়ার রাফাত, জুলি এবং বৃষ্টি মুৎসুদ্দী।

জাহিদ আকবরের কথায় সুজন আরিফের সুর ও সঙ্গীতে উড়তে থাকো পাখির ডানায় শিরোনামে আরেকটি গান গাইবেন নামের প্রথম অক্ষর “ক” দিয়ে শুরু এই প্রজন্মের তিনজন জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী কিশোর, কর্ডুয়া এবং কতা (বিন্দুকতা)।

বাংলাদেশের অপার সৌন্দর্য্য এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশ শিরোনামে জনপ্রিয় গীতিকবি দেলোয়ার আরজুদা শরফ এর লেখা একটি গান গাইবেন শওকত আলী ইমন, ইবরার টিপু এবং আরফিন রুমি। গানটির সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছেন ইবরার টিপু। সমসাময়িক বিষয় নিয়ে লেখা ছড়া দিয়ে মিলনায়তনের মধ্য থেকে লটারির মাধ্যমে নির্বাচিত তিনজন দর্শক নিয়ে রয়েছে দর্শক প্রতিযোগিতা পর্ব। এবারের প্রতিযোগিতার বিষয় তথ্যপ্রযুক্তি। নির্বাচিত তিনজন দর্শক এর সঙ্গে এই পর্বে অংশ নিয়েছেন ছোট পর্দার তিন প্রিয়মুখ জ্যোতিকা জ্যোতি, কামাল হোসেন বাবর এবং আয়েশা মুক্তি।

নতুন কম্পোজিশনের তিনটি রবীন্দ্র সংগীতের সঙ্গে ইভান শাহরিয়ার সোহাগের পরিচালনায় সোহাগ ড্যান্স ট্রুপের সহশিল্পীদের নিয়ে নৃত্য পরিবেশন করবেন নৃত্যশিল্পী রুহানী লাবন্য, মিম চৌধুরী, সিনথিয়া ইয়াসমিন এবং বারিশ হক। এছাড়া রয়েছে হজম আলী, মামা-ভাগ্নে, মদন-ভোলো, পরিবর্তন পাঠশালা, খাঁচকাটা খাঁচকাটা, উল্টোচলা, হিট করছে, মমিন-হাতেম, দুই মহিলা, তিন ব্যক্তি, মানিক-রতন, বিয়াই-বিয়াইন প্রভৃতি নিয়মিত পর্বে রয়েছে সমাজের সমসাময়িক ঘটনাবলি, নানা অসংগতি ও ত্রুটি বিচ্যুতি নিয়ে রচিত ব্যাঙাত্মক ও হাস্য রসাত্মক বিভিন্ন নাট্যাংশ। নাট্যাংশগুলোতে কোরবানির গোস্ত বণ্টন, কোরবানির পশু, গবাদি পশু মোটাতাজাকরণ পদ্ধতি, ঘুষ লেনদেন ছাড়া পুলিশ নিয়োগ, গুজব, প্রযুক্তির অতি এবং অপব্যবহার, পরনিন্দা পরচর্চা, দুর্নীতি ও বিদেশি অপসংস্কৃতি চর্চা প্রাধান্য পেয়েছে।

নাট্যংশগুলোতে অভিনয় করেছেন- দিলু খান, মামুনুল হক টুটু, আফরোজা হাসান, আশরাফ কবির, মাসুদ রানা মিঠু, তমাল মাহবুব, শাহীন খান, বি এম আজাদ, মনা সিদ্দিক হৃদয়, উত্তম, ফারুক মল্লিক, সৈয়দ আল মামুন, নূর-এ আলম নয়ন, জাহাঙ্গীর, শিউলী শিলা, শ্যামলী, ফাহমিদা শারমীন, টুটুল চৌধুরী, বিনয় ভদ্র, লিটন খন্দকার, ফিরোজ হোসাইন, শ্যামল, বুলবুল ভূইয়া, আনোয়ার, আল আমিন, সুমন, ছোট লিটন, রুহুল আমিন, মঞ্চ মনির, মেঘা, জান্নাত রুপু প্রমুখ নিয়মিত শিল্পীরা।