আফগান নিরাপত্তা বাহিনী তালেবান সংঘর্ষ : নিহত ৫৪

image

আফগানিস্তানের কুন্দুজ শহরের একাধিক জায়গায় দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী ও সশস্ত্র বিদ্রোহী গোষ্ঠী তালেবানের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে ১০ নিরাপত্তা কর্মীসহ ৬ বেসামরিক নাগরিক এবং ৩৮ তালেবান জঙ্গি নিহত হয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়াও আহত হয়েছেন। শনিবার (৩১ আগস্ট) এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। বিজনেস ইনসাইডার, আল-জাজিরা, সিনহুয়া। কাতারের দোহায় যুক্তরাষ্ট্র-তালেবান নেতাদের মধ্যে নতুন দফায় আলোচনা চলার মধ্যেই এ সহিংসতার ঘটনা ঘটল।

এক প্রতিবেদনে বলা হয়, শনিবার রাতে বহু অস্ত্রধারী তালেবান দেশটির কুন্দুজ প্রদেশের রাজধানী শহর কুন্দুজের কয়েকটি স্থান থেকে একযোগে বন্দুক হামলা শুরু করে। এসময় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়সহ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সরকারি ভবনের দখল নেয় তারা। তবে কাবুল দাবি করেছে, সেনাবাহিনীর পাল্টা হামলায় তারা ওইসব ভবন ছেড়ে চলে যায়। আফগান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়, কুন্দুজ শহরে শনিবার সকাল থেকে তালেবানের বিরুদ্ধে অভিযানে এ জঙ্গি গোষ্ঠীর ৩৮ সদস্য নিহত হয়েছে। অপরদিকে সশস্ত্র এ গোষ্ঠীর পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, তারা কমপক্ষে ১০ জন পুলিশ কর্মকর্তাকে হত্যা করেছে।

মার্কিন সেনা অর্ধেকে নামিয়ে আনার

পরিকল্পনা ট্রাম্পের

এদিকে প্রায় দুই দশক (১৮ বছর) ধরে আফগানিস্তানে অবস্থানরত মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। এবার দেশটি থেকে পাঁচ হাজার সেনা প্রত্যাহার করা হবে। ফলে সেখানে মার্কিন সৈন্যের সংখ্যা হবে আট হাজার ছয়শ’। সম্প্রতি মার্কিন রেডিও ফক্স নিউজকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা ধীরে ধীরে আফগানিস্তানে মার্কিন সৈন্য সংখ্যা কমিয়ে আনব। তবে আমরা সেখানে আমাদের উপস্থিতি বজায় রাখব।’

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে দীর্ঘ সময়ের যুদ্ধ হলো আফগানিস্তান যুদ্ধ। দেশটিতে প্রায় এক লাখ মার্কিন সৈন্য ছিল। আঠারো বছর পর এ সংখ্যা আট হাজারে এসে দাঁড়াবে। তবে সৈন্য সংখ্যা কমিয়ে আনলেও এ বিষয়ে হুঁশিয়ারি জারি রেখে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, ‘কোন সন্ত্রাসীগোষ্ঠী আফগানিস্তান থেকে আমেরিকাকে আক্রমণ করলে আমরা এমন ভয়ানকভাবে ফিরে আসব যে, তারা এত ভয়ানক রূপ আর কখনোই দেখেনি।’ প্রায় ১৮ বছর ধরে চলা যুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র ছাড়াও উত্তর আটলান্টিক সামরিক জোট ন্যাটোর সদস্য জার্মানি ও ব্রিটিশ সৈন্যও আফগানিস্তানে মোতায়েন রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে জার্মানির ১৩শ’ ও যুক্তরাজ্যের ১১শ’ সৈন্য।

কাতারের দোহায় আফগানিস্তানের সশস্ত্রবিদ্রোহী গোষ্ঠী তালেবান নেতাদের সঙ্গে মার্কিন কতৃপক্ষের আফগানিস্তানের ভবিষ্যৎ বিষয়ে ‘শান্তি আলোচনা’ চলছে।

তবে এ আলোচনায় আফগান সরকারের অংশগ্রহণ নেই। তাই এ উদ্যোগ কতটা ফলপ্রসূ হবে বা আফগানিস্তানের জন্য কতটা ইতিবাচক হবে তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করছে দেশটির সরকার। এদিকে আফগানিস্তান বিষয়ে কোন মতৈক্যে পৌঁছাতে তালেবানরা যে শর্ত দিয়েছে এর মধ্যে অন্যতম হলো দেশটি থেকে মার্কিন সৈন্যদের পুরোপুরি ফিরিয়ে নেয়া।