ওমানের সুলতান কাবুস বিন সাঈদের মৃত্যু

image

ওমানের নতুন শপথ নেয়া সুলতান হাইথাম বিন তারিক (ডান) এবং জেনারেল সুলতান বিন মোহাম্মদ আল নোমানি (বাম) প্রয়াত নেতা সুলতান কাবুসের কফিনটি রাজপরিবার কবরস্থানে নিয়ে যান-ডেইলি মেইল

মধ্যপ্রাচ্যের তেলসমৃদ্ধ দেশ ওমানের সুলতান কাবুস বিন সাইদ আল সাইদের মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেছে দেশটির সরকার। প্রাসাদের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘রাজপ্রাসাদ গভীর দুঃখ ও কষ্টের সঙ্গে মাননীয় সুলতান কাবুস বিন সাইদকে স্মরণ করছে, যিনি ১০ জানুয়ারি শুক্রবার আমাদের ছেড়ে গেছেন।’ ৭৯ বছর বয়সী কাবুস গত মাসেই বেলজিয়ামে স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরেছিলেন। তিনি ক্যান্সারে ভুগছিলেন বলে সেসময় বিভিন্ন গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে সন্দেহ করা হয়েছিল। কাবুস অবিবাহিত ছিলেন, তার কোন উত্তরাধিকার বা মনোনীত উত্তরসূরি নেই বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমগুলো। বিবিসি ।

ওমানের নতুন সুলতান হাইথাম বিন তারিক

কাবুস বিন সাইদের মৃত্যুর পর ওমানের নতুন সুলতান মনোনীত হয়েছেন হাইথাম বিন তারিক আল সাইদ। দেশটির সংবাদ মাধ্যম আল ওয়াতান ও আল রয়া জানিয়েছে, শনিবার সকালে রাজ পরিবারের কাউন্সিলের সামনে সালতানাতের দায়িত্ব নিয়েছেন সাবেক সংস্কৃতিমন্ত্রী হাইথাম। তবে সরকারের পক্ষ থেকে এই বিষয়ে এখনও কোনও ঘোষণা দেয়া হয়নি। শুক্রবার সন্ধ্যায় মারা যান ওমান সালতানাতের শাসক কাবুস বিন সাইদ আল সাইদ। শনিবার ভোরে দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন তার মৃত্যুর ঘোষণা দিয়ে ৩ দিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করে। দেশটির সংবিধান অনুযায়ী, সুলতান পদ শূন্য হওয়ার ৩ দিনের মধ্যে উত্তরাধিকার নির্ধারণ করতে হবে। ওমানের নতুন সুলতান হবে রাজ পরিবারের সদস্য। তাকে অবশ্যই মুসলমান, প্রাপ্তবয়স্ক, যৌক্তিক এবং ওমানের মুসলমান বাবা-মায়ের পুত্র হতে হবে। শর্তপূরণে সক্ষম ৮০ জনেরও বেশি পুরুষ থাকলেও নতুন সুলতান হিসেবে মনোনয়েন দৌড়ে এগিয়ে ছিলেন কাবুসের তিন চাচাতো ভাই। এদের মধ্য থেকে হাইথাম বিন তারিকই নতুন সুলতান মনোনীত হলেন। ৬৫ বছর বয়সী হাইথাম বিন তারিক ১৯৯০ দশকের মাঝামাঝিতে ওমানের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। তার আগে তিনি পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেছেন তিনি। এছাড়া ’৮০-র দশকে ওমানের ফুটবল ফেডারেশন গঠনের পর প্রথম প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন হাইথাম। কাতার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপসাগরীয় গবেষণা কেন্দ্রের অধ্যাপক মাহজুব জাওয়েইরি বলেন, পরিণত রাষ্ট্র হিসেবে ওমানের মর্যাদা টিকিয়ে রাখাই হাইথামের গুরুত্বপূর্ণ কাজ। তিনি বলেন, ‘বেকারত্বসহ নতুন চ্যালেঞ্জের কথা বিবেচনায় নিয়ে নতুন নেতৃত্বকে সব বিষয়েই খেয়াল রাখতে হবে।’ এ বিশ্লেষকের মতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ার সঙ্গে নিবিড়ভাবে যুক্ত ছিলেন হাইথাম। ফলে বড় ধরনের কোনও পরিবর্তন আসবে বলে মনে করেন না তিনি।