কানাডায় করোনা সক্রমনের দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হতে যাচ্ছে

image

উত্তর আমেরিকার দেশ কানাডায় শীঘ্রই করোনা সক্রমনের দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হতে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে কিছু কিছু প্রদেশে দ্বিতীয় পর্যায়ের করোনা সংক্রমণ শুরু হয়ে গেছে। কানাডার বিভিন্ন প্রদেশের মধ্যে ব্রিটিশ কলম্বিয়া, আলবার্টা, অর্ন্টারিও এবং কিউবেকে ভাইরাসটির সেকেন্ড ওয়েভ চলছে।

কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো তার ওয়স্ট ব্লক অফিস থেকে জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে এ কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘আমরা একটি পতনের দ্বারপ্রান্তে রয়েছি যা বসন্তের চেয়ে আরও খারাপ হতে পারে। সংক্রমণের হার জাতীয় পর্যায়ে বেড়েছে। বুধবারও সংক্রমণের হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২৪৮ জনে’।

তিনি বলেন, কানাডিয়ানরা সামাজিক অনুষ্ঠানের জন্য জমায়েত হবে না। দ্বিতীয় সংক্রমণকে নিয়ন্ত্রণে আনার ক্ষমতা আমাদের রয়েছে। জনসাধারণকে অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে। সবাইকে সরকারি নির্দেশনা মেনে চলতে হবে। কোভিড সতর্কতা অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করতে হবে। তাহলে করোনা পরীক্ষা করেছেন এমন ব্যক্তির সংস্পর্শে আসার পরে সংকেত দেবে অ্যাপটি। তিনি ভাষণে বলেন, কানাডিয়ান হিসেবে এখনই আমাদের সময় দেশের জন্য জন্য কিছু করার। সরকার জনসাধারণের জন্য প্রতিনিয়তই কাজ করে চলেছে। সবাইকে সতর্ক হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

প্রধান জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. থেরেসা ট্যামকে এখন সংক্রমণ প্রতিরোধের ব্যবস্থা দ্বিগুণ করতে বলেছে সরকার। অক্টোবরে ও আসন্ন শীত মৌসুমে পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, তা নিয়েই চিন্তায় আছে দেশটির স্বাস্থ্য বিভাগ।

কানাডা স্টেজ-৩ বা লকডাউনের তৃতীয় ধাপে উঠে এসেছিল। এখন মাস্কবিহীন চলাফেরা, শারীরিক দূরত্ব বজায় না রাখা, বারবিকিউ পার্টি, গেটটুগেদার, বার-ক্লাবে ভিড় ইত্যাদি কারণে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

কানাডায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা উদ্বেগজনকহারে বাড়ছে। সবকিছু ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হতে থাকলেও করোনা সংক্রমণ থামছে না। সর্বপ্রথম কানাডায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ে ব্রিটিশ কলম্বিয়ায়। এরপর অন্যান্য প্রদেশে।