কাবুলে বিয়ের অনুষ্ঠানে আত্মঘাতী হামলা : নিহত ৬৩

image

কাবুলে আত্মঘাতি হামলায় এক নিহতের স্বজনের আহাজারি

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে আত্মঘাতী বোমা হামলা চালানো হয়েছে। এতে কমপক্ষে ৬৩ জন নিহত হয়েছেন। এছাড়াও আহত হয়েছেন প্রায় দুইশ’ মানুষ। ১৭ আগস্ট শনিবার স্থানীয় সময় রাত ১০টা ৪০ মিনিটের দিকে নগরীর পশ্চিমের শিয়া মুসলমান অধ্যুষিত এলাকায় একটি কমিউনিটি হলে এ ঘটনা ঘটে বলে জানায় প্রত্যক্ষদর্শীরা। আফগান সরকারের বিরুদ্ধে সশস্ত্র সংগ্রামরত বিদ্রোহীগোষ্ঠী তালেবান এ হামলার দায় অস্বীকার করেছে। হামলার কয়েক ঘণ্টা পর দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে হতাহতের সংখ্যা নিশ্চিত করা হয়।

এক প্রতিবেদনে বলা হয়, হলরুমে বিয়ের অনুষ্ঠান চলাকালে নিজের কাছে থাকা বোমার বিস্ফোরণ ঘটায় এক আত্মঘাতী হামলাকারী। এ সময় হলরুমভর্তি মানুষ ছিলেন। আকস্মিক বিস্ফোরণের পর মুহূর্তেই ধোঁয়ায় ছেয়ে যায় পুরো হলরুম। লোকজন আতঙ্কে ছোটাছুটি করতে থাকে। ঘটনাস্থলে পড়ে থাকতে দেখা যায় অনেকের নিথর দেহ। হতাহতদের মধ্যে নারী ও শিশুরাও রয়েছে বলে জানিয়েছেন আফগান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নাসরাত রাহিমি। বিস্ফোরণের সময় হলটিতে এক হাজারেরও বেশি অতিথি ছিলেন। আফগানিস্তানে বিয়েতে সাধারণত পুরুষদের জন্য আলাদা এবং নারী ও শিশুদের জন্য আলাদা বসার ব্যবস্থা থাকে। বিস্ফোরণটি ঘটানো হয় পুরুষদের হলরুমে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ছবিতে কমিউনিটি হলের চারপাশে মরদেহ পড়ে থাকতে দেখা গেছে। বিয়ের অতিথি মোহাম্মদ ফারহাজ বিবিসিকে বলেন, কমিউনিটি হলে তিনি নারী অতিথিদের বসার জায়গায় ছিলেন। ওই সময় হঠাৎ করেই পুরুষ অতিথিদের বসার জায়গায় প্রচ- শব্দে বিস্ফোরণ হয়। সবাই চিৎকার করে ও কাঁদতে কাঁদতে বেরিয়ে যাওয়ার জন্য দৌড়াতে থাকে।

বিস্ফোরণের ২০ মিনিট পরও পুরো হল ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন হয়েছিল। ওই সময় পুরুষদের বসার জায়গায় যারা ছিলেন তাদের সবাই হয় নিহত বা আহত হয়েছেন।’ দীর্ঘদিনের যুদ্ধের অবসান ঘটিয়ে আফগানিস্তানে শান্তি ফিরিয়ে আনতে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্যোগে তালেবান নেতাদের সঙ্গে আলোচনা চলছে। শান্তি ফিরিয়ে আনার পথরেখা তৈরির ওই আলোচনার মধ্যেই দেশটিতে একের পর এক বোমা হামলার ঘটনা ঘটছে। সপ্তাহ তিনেক আগে কাবুলে একটি পুলিশ স্টেশনে তালেবান জঙ্গিদের আত্মঘাতী বোমা হামলায় ১৪ জন নিহত ও ১৪৫ জন আহত হন।