কোভিড-১৯: ভারতের উত্তর প্রদেশে প্রতিরোধ ও চিকিৎসায় আইভারমেকটিন

image

ভারতের উত্তর প্রদেশের সরকার কোভিড-১৯ এর প্রতিরোধ ও চিকিৎসায় হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইনের বদলে আইভারমেকটিন ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

দ্যা ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের খবরে বলা হয়, শনিবার অতিরিক্ত মুখ্য সচিব (স্বাস্থ্য ও ওষুধ) অমিত মোহন প্রসাদ রাজ্যের সব মেডিকেল অফিসারকে আইভারমেকটিনের ডোজ এবং ব্যবহার বিধি সংবলিত একটি আদেশ জারি করেছেন।

সংশ্লিষ্টরা জানায়, আগ্রায় পরীক্ষামূলক প্রয়োগে আশাব্যঞ্জক ফল পাওয়ার পর আইভারমেকটিন ব্যবহারের এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তারা জানায়, আইভারমেকটিন শুধু রোগীদের ক্ষেত্রেই নয়, কোভিড -১৯ চিকিৎসায় নিয়োজিত ফ্রন্টলাইন স্বাস্থ্যকর্মীদের মধ্যে সংক্রমণ রোধেও কার্যকর প্রমাণিত হয়েছে।

লক্ষ্নৌয়ের চিফ মেডিকেল অফিসার ডা. আরপি সিং বলেন, “হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন নিয়ে অনেক সমস্যা হয়েছিল। সুতরাং, এখন আমাদের আইভারমেকটিনের নির্দেশিত ডোজ ব্যবহারের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আমরা প্রথমে স্বাস্থ্যকর্মীদের এবং শনিবার থেকে সংক্রমিতদের এই ওষুধ দেবো।”

৪ আগস্ট ডিরেক্টর জেনারেল (মেডিকেল অ্যান্ড হেলথ) এর সভাপতিত্বে মেডিকেল বিশেষজ্ঞদের বৈঠকে ওষুধটি ব্যবহারের সিদ্ধান্ত এবং ডোজ প্রোটোকল চূড়ান্ত করা হয়। নির্দেশনায় কোভিড রোগীদের ক্ষেত্রে আইভারমেকটিনের সাথে ডক্সিসাইক্লিন দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের ক্ষেত্রে প্রথম দিন, সপ্তম ও ৩০তম দিনে এবং তারপরে মাসে একবার আইভারমেকটিন ডোজ দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

তবে, সাবধানতা হিসাবে গর্ভবতী নারীদের বা দুই বছরের কম বয়সী শিশুদের ক্ষেত্রে তা ব্যবহার না করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। ডক্সিসাইক্লিন ও আইভারমেকটিন ভাইরাসসহ জীবাণু সংক্রমণ ও ক্যান্সারের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। ৫ মাইক্রোমিটার আইভারমেকটিন প্রায় ৫০০০ গুণ সারস-কোভ-২ ও কোভিড-১৯ ভাইরাসের আরএনএ ধ্বংস করতে সক্ষম। কার্যকর ব্যবহারে এটি ৪৮ ঘন্টার মধ্যে সমস্ত ভাইরাস ধ্বংস করতে পারে।