ক্যালিফোর্নিয়ায় বারে বন্দুকধারীদের গুলিতে নিহত ১২

image

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের একটি বারে বন্দুকধারীর এলোপাতাড়ি গুলিতে এক পুলিশ কর্মকর্তাসহ কমপক্ষে ১২ জন নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন আরও ১২ জন। পরে বন্দুকধারী নিজেও গুলি করে আত্মহত্যা করে। গত বুধবার (৭ নভেম্বর) স্থানীয় সময় রাতে অঙ্গরাজ্যটির থাউস্যান্ড ওয়াকস শহরের বর্ডারলাইন বার অ্যান্ড গ্রিলে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় বারটিতে শতাধিক কলেজ শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে সংগীত অনুষ্ঠান চলছিল। হামলাকারীর পরিচয় পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। তার গুলি চালানোর উদ্দেশ্য কি তাও জানা যায়নি। ডেইলি মেইল, লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমস। স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তা জানান স্থানীয় সময় রাত ১১টা ২০ মিনিটে বর্ডারলাইন বারটিতে কালো রঙের ওভারকোট পরিহিত সন্দেহভাজন এক বন্দুকধারী তরুণ-তরুণীদের লক্ষ্য করে গুলি চালানো শুরু করে। এতে হতাহতের এ ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে একজন দারোয়ান, বারের এক নারী কোষাধ্যক্ষ ও কয়েকজন কলেজ শিক্ষার্থী রয়েছেন। হামলার সময় বারটিতে কলেজ কান্ট্রি সংগীত সন্ধ্যা চলছিল।

এ সময় সেখানে ২০০ জন উপস্থিত ছিলেন। স্থানীয় পুলিশ কার্যালয়ের ক্যাপ্টেন গারো কুরেদজিয়ান বলেছেন, জরুরি নম্বর ৯১১-এ ফোন পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন ডেপুটি শেরিফ সার্জেন্ট রন হেলাস। সেখানে তিনি গুলিবিদ্ধ হন। দ্রুত তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে তিনি সেখানে মারা যান। গত ২৯ বছর ধরে তিনি পুলিশ বিভাগে চাকরি করছেন। দুই এক বছরের মধ্যে চাকরি থেকে অবসরে যাওয়ার কথা ছিল তার। হামলাকারীর পরনে কালো রঙের ওভারকোট, চোখে কালো রঙের সানগ্লাস এবং মুখের নিচের অংশে মুখোশ পরা ছিল। সে বারের প্রবেশদ্বারে এসে দারোয়ানকে গুলি করে। এরপর ওই হামলাকারী এক নারী কোষাধ্যক্ষকে গুলি করে ড্যান্স ফ্লোরে দর্শকদের ওপর স্মোক গ্রেনেড ছুড়ে মারেন এবং এলোপাতাড়ি গুলি করা শুরু করেন। পুলিশ জরুরি নম্বরে ফোন পেয়ে ১১টা ২৩ মিনিটে ঘটনাস্থলে পৌঁছান। সেখানে বন্দুকধারীর সঙ্গে তাদের গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটে। কিছুক্ষণ পর সোয়াট টিম ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছান। তারা বারের ভেতর থেকে ১১ জনের মরদেহ উদ্ধার করেন।

এ সময় সন্দেহভাজন হামলাকারীকেও মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। ধারণা করা হচ্ছে, গুলি চালানোর পর তিনি নিজেও আত্মহত্যা করেন। কর্মকর্তারা বলছেন, এ হামলা পূর্ব পরিকল্পিত। হামলাকারীর স্মোক গ্রেনেড ব্যবহারই তার প্রমাণ। ওয়াশিংটন থেকে আল জাজিরার প্রতিবেদক রব রেনল্ডস জানান, বন্দুকধারী গুলি চালানোর আগে বারটিতে প্রচুর কলেজ শিক্ষার্থীর জমায়েত ছিল। রব রেনল্ডস বলেন, ‘বন্দুকধারী একটি স্বয়ংক্রিয় পিস্তল থেকে গুলি ছুড়েছে।

পিস্তলের পাশাপাশি সন্দেহভাজন হামলাকারী স্মোক গ্রেনেড ব্যবহার করেছেন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও জরুরি বিভাগের সদস্যরা ঘটনাস্থলে রয়েছেন। একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, অনেকেই বারের জানালা ভেঙে পালিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছেন।