প্রথম দফার ভোটগ্রহণ

image

ভারতের সাধারণ নির্বাচন মানে লোকসভা সদস্যদের নির্বাচন করার পদ্ধতি। লোকসভায় মোট আসন সংখ্যা ৫৪৫ হলেও নির্বাচন হয় ৫৪৩টি আসনে। বাকি দুটি আসন ভারতের অ্যাংলো-ইন্ডিয়ান সম্প্রদায়ের জন্য সংরক্ষিত। তাদের দুই প্রতিনিধি কে হবেন, তা ঠিক করেন ভারতের রাষ্ট্রপতি। দেশটির জাতীয় নির্বাচন কমিশনের তথ্য মতে, প্রতিটি আসনে গড়ে ১৪ জন প্রার্থী থাকে ভারতে। এখনও পর্যন্ত একটি আসনে সর্বোচ্চ ৪২ জন প্রার্থী হয়েছেন। ভারতের সাধারণ নির্বাচন যাতে সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়, তার দায়িত্ব পড়ে সরকারি কর্মচারীদের ওপর। গত নির্বাচনে এ দায়িত্ব পান প্রায় ৫০ লাখ সরকারি কর্মকর্তা ও নিরাপত্তাকর্মীরা। এই কর্মীরা সারা ভারতজুড়ে পায়ে হেঁটে, বাসে-ট্রামে- ট্রেনে-নৌকায়, এমনকি দেশটির প্রত্যন্ত বা দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় হাতির পিঠে চড়েও ভোটগ্রহণ কেন্দ্রে পৌঁছেছেন বলে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এ বিশালাকারের দেশের নির্বাচন খরচসাপেক্ষ হওয়ায় নির্বাচন কমিশন প্রকাশিত তথ্য মতে, গত ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে খরচ হয় প্রায় সাড়ে পাঁচ কোটি মার্কিন ডলার সমান (ভারতীয় মুদ্রায় যা দাঁড়ায় ৩,৮৭০ কোটি রুপির কাছাকাছি)

মোট ১৮টি রাজ্যসহ কেন্দ্র শাসিত দুটি অঞ্চলে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন।

মোট আসন : ৯১

পশ্চিমবঙ্গে ভোটগ্রহণ ২টি আসনে : কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার। আন্দামান-নিকোবরে ১ আসনে : আন্দামান ও নিকোবর।

অন্ধ্রপ্রদেশের ২৫ আসনে : অমলাপুরম, অনাকাপল্লী, অনন্তপুর, আরাকু, বাপাটলা, চিত্তুর, এলুরু, গুন্টুর, হিন্দুপুর, কাডাপা, কাকিনাড়া, কুরনুল, মছলিপত্তনম, নান্দিয়াল, নরসরাওপেট, নরসাপুরম, নেল্লোর, ওঙ্গল, রাজামুন্দ্রি, রাজমপেট, শ্রীকাকুলাম, তিরুপতি, বিজয়ওয়াঙা, বিশাখাপত্তনম, বিজয়নগরম। অরুণাচল প্রদেশে ২টি : অরুণাচল পূর্ব, অরুণাচল পশ্চিম।

আসামে ১৪টি আসনের ৫টিতে ভোটগ্রহণ হবে : ডিব্রুগড়, জোরহাট, কলিয়াবর, লখিমপুর, তেজপুর। বিহারে ৪০টি আসনের ৪টিতে ভোটগ্রহণ : অওরঙ্গাবাদ, গয়া, জমুই, নওয়াদা। ছত্তীশগড়ের ১১টি আসনের ১টি ভোটগ্রহণ : বস্তার। জম্মু ও কাশ্মীরের ৬টি আসনের ২টি ভোটগ্রহণ : বারামুলা, জম্মু। লক্ষদ্বীপের ১টি আসনে ভোটগ্রহণ : লক্ষদ্বীপ।

মহারাষ্ট্রের ৪৮টি আসনে ভোট গ্রহণ ৭টিতে: ভান্ডারা-গোন্ডিয়া, চন্দ্রপুর, গঙচিরৌলি-চিমুর, নাগপুর, রামটেক, ওয়ার্ধা, যবতমল-ওয়াশিম। মণিপুরের ২টি আসনের ১টিতে ভোটগ্রহণ : আউটার মণিপুর। মেঘালয়ের ২টি আসনের ২টিতেই ভোটগ্রহণ : শিলং, তুরা। মিজোরামের ১টি আসনে ভোটগ্রহণ : মিজোরাম। নাগাল্যান্ডের ১টি আসনে ভোটগ্রহণ : নাগাল্যান্ড। ওডিশার ২১টি আসনে ৪টিতে ভোটগ্রহণ : ব্রহ্মপুর, কালাহান্ডি, কোরাপুট, নবরংপুর। সিকিমের একটি আসনের ভোটগ্রহণ : সিকিম। তেলঙ্গানার ১৭টি আসনের ১৭টিতেই ভোটগ্রহণ : আদিলাবাদ, ভোঙ্গির, চেলভেলা, হায়দরাবাদ, করিমনগর, খাম্মাম, মেহবুবাবাদ, মেহবুবনগর, মালকাজগিরি, মেডক, নগরকুরনুল, নালগোন্ডা, নিজামাবাদ, পেড্ডাপল্লে, সেকন্দরাবাদ, বরঙ্গল, জাহিরাবাদ। ত্রিপুরার ২টি আসনের ১টিতে ভোটগ্রহণ : ত্রিপুরা পশ্চিম। উত্তরপ্রদেশের ৮০টি আসনে ৮টিতে ভোটগ্রহণ : বাগপত, বিজনৌর, গৌতম বুদ্ধনগর, গাজিয়াবাদ, কৈরানা, মেরঠ, মুজফফরনগর, সহারানপুর। উত্তরাখ-ের ৫টি আসনের ৫টিতে ভোটগ্রহণ : আলমোঙা, গাড়োয়াল, হরিদ্বার, নৈনিতাল-উধম সিংহনগর, টেহরি গাড়োয়াল। পশ্চিমবঙ্গের ৪২টি আসনের ২টিতে ভোটগ্রহণ : আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার।

পশ্চিমবঙ্গে দুপুর পর্যন্ত ভোট পড়েছে প্রায় ৫৫ শতাংশ

সংবাদ ডেস্ক

দেশের মোট ৯১টি আসনের মতো পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের আলিপুরদুয়ার ও কোচবিহার এ-দুটি লোকসভা কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে কাল। এ রাজ্যের ক্ষমতাসীন দল তৃণমূল কংগ্রেস ও কেন্দ্রের ক্ষমতাসীন দল বিজেপি হল এ দুই লোকসভা কেন্দ্রের দুই মূল প্রতিদ্বন্দ্বী দল। এছাড়াও এ দুই কেন্দ্রে অস্তিত্বের লড়াই বামফ্রন্ট ও কংগ্রেসও রয়েছে। বামফ্রন্ট সমর্থিত ফরওয়ার্ড ব্লক প্রার্থী লড়াই করেন কোচবিহার থেকে এবং বামফ্রন্ট সমর্থিত আরএসপি প্রার্থী লড়াই করবেন আলিপুদুয়ার থেকে। রাজ্যের উত্তরবঙ্গের এ দুই কেন্দ্রের নির্বাচনী মূল ইস্যুগুলো হলো- দুর্নীতি, সাম্প্রদায়িকতা, এনআরসি, চিটফান্ড কেলেঙ্কারি, উন্নয়ন, নিরাপত্তা এবং চা বাগানের শ্রমিকদের উন্নতি। যে ইস্যুগুলোর কথা আলিপুরদুয়ার ও উত্তরবঙ্গ কেন্দ্রে জনসভা করতে এসে বারবার বলেছেন বিভিন্ন দলের নেতা ও নেত্রীরা। পশ্চিমবঙ্গের দুই আসন আলিপুরদুয়ার ও কোচবিহারে দুপুর ১টা পর্যন্ত ভোট পড়েছে ৫৫ দশমিক ৪ শতাংশ। এমন তথ্য জানিয়েছে নির্বাচনী কর্মকর্তারা। অতিরিক্ত মুখ্য নির্বাচনী কর্মকর্তা সঞ্জয় বসু জানিয়েছেন, ‘শান্তিপূর্ণভাবেই ভোটগ্রহণ চলছে সর্বত্র। আমরা এমন কোন অভিযোগ এখনো পাইনি, যা সমাধান করা সম্ভব নয়।’

সকাল ৯ টা : পশ্চিমবঙ্গে ১৮ দশমিক ১০ শতাংশ ভোট পড়েছে কয়েকটি বুথে। তৃণমূল ভোটারদের প্রভাবিত করছে বলে দাবি করলেন কোচবিহারের বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিক। কোচবিহারের একটি বুথে পুনরায় ভোটের দাবি জানলেন তৃণমূলের জেলা সভাপতি রবীন্দনাথ ঘোষ।

সকাল ০৮:১৬ : দিনহাটার কয়েকটি জায়গায় বিরোধী এজেন্টদের বসতে দেয়া হয়নি বলে অভিযোগ করা হয়েছে

সকাল ০৮:০৩ : রাজ্যের দুটি কেন্দ্রের জন্য ৮৩ কোম্পানি সিআরপিএফ মোতায়েন করা হয়েছে।

সকাল ০৭:৫৩ : কোচবিহারের বিজেপি প্রার্থী জন বার্লার অভিযোগ অনেক বুথেই কেন্দ্রীয় বাহিনী নেই।