বাচ্চা হাতিকে বাঁচাতে গিয়ে ৫টি হাতি প্রাণ হারায়!

image

থাইল্যান্ডে একটি জলপ্রপাত থেকে একে অপরকে রক্ষা করতে গিয়ে ছয়টি হাতির মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (৫ অক্টোবর) বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, খাও ইয়াই জাতীয় উদ্যানে ঝর্ণার ওপর থেকে একটি বাচ্চা হাতি পিছলে পড়ে গেলে সেটিকে উদ্ধার করতে গিয়ে একে একে আরও সাতটি হাতি নিচে পড়ে যায়। বাচ্চাসহ ছয়টি হাতি সেখানেই মারা যায়। দুটি কোন রকমে প্রাণে রক্ষা পায়। বেঁচে যাওয়া হাতি দুটি ঝর্ণার পাশে সরু খাঁড়িতে উঠে প্রাণপণে জীবন রক্ষার চেষ্টা করছিল। দেখতে পেয়ে উদ্যানের কর্মকর্তারা তাদের দড়ি দিয়ে বেঁধে টেনে উপরে তোলেন। যে ঝর্ণাতে হাতিগুলো পড়ে যায় সেটির নাম ‘হেউ নারক’। ওই ঝর্ণায় এ ধরনের দুর্ঘটনা খুব একটা ঘটে না। থাইল্যান্ডের ডিপার্টমেন্ট অব ন্যাশনাল পার্ক, ওয়াইল্ডলাইফ অ্যান্ড প্লান্ট কনজারভেশনের (ডিএনপি) কর্মকর্তারা জানান, স্থানীয় সময় শনিবার ভোররাত ৩টার দিকে একপাল হাতি হেউ নারক ঝর্ণার পাশ দিয়ে যাওয়া রাস্তা আটকে রাখলে উদ্যানের কর্মকর্তাদের ঘটনাস্থলে ডাকা হয়। তার তিন ঘণ্টা পর তিন বছর বয়সী বাচ্চা হাতিটির মৃতদেহ নিচে ঝর্ণার পানিতে খুঁজে পাওয়া যায়। বাকি পাঁচটি হাতির মৃতদেহও আশপাশেই খুঁজে পান কর্মকর্তারা। বেঁচে যাওয়া হাতি দুটির চিকিৎসা চলছে এবং সেগুলোকে সার্বক্ষণিক নজরদারিতে রাখা হয়েছে। উদ্যানটির মালিক এডউইন উইক বিবিসিকে বলেন, “এটা অনেকটা পরিবারের অর্ধেক সদস্যদের হারিয়ে ফেলার মতো। এখানে করার কিছুই ছিল না। দুর্ভাগ্য-জনকভাবে এটাই নিয়তি।” থাইল্যান্ডে প্রায় সাত হাজার এশীয় হাতির বাস। যেগুলোর অর্ধেকের বেশি নানা উদ্যানে বা অভয়াশ্রমে বন্দী রয়েছে।