বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত ৬০ লাখ ছাড়াল

মৃত্যু ৩ লাখ ৬৬ হাজার

image

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। গত ডিসেম্বরের শেষে চীনের উহানে শুরু হওয়া করোনার সংক্রমণ বিশ্বের ২১৫টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। করোনায় এ পর্যন্ত বিশ্বে আক্রান্ত হয়েছে ৬০ লাখ ৩৩ হাজার ৮৩৫ জন মানুষ। মৃত্যু হয়েছে ৩ লাখ ৬৬ হাজার ৮৯১ জনের। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২৬ লাখ ৬১ হাজার ১৬৩ জন মানুষ।

করোনা সংক্রমণের শীর্ষ ১০ দেশের তালিকায় যথাক্রমে রয়েছে- যুক্তরাষ্ট্র, ব্রাজিল, রাশিয়া, স্পেন, যুক্তরাজ্য, ইতালি, ফ্রান্স, জার্মানি, ভারত ও তুরস্ক। মৃত্যুর হিসেবে শীর্ষ পাঁচে রয়েছে যথাক্রমে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ইতালি, ফ্রান্স ও স্পেন। বাংলাদেশ রয়েছে সংক্রমণ তালিকার ২২ নম্বরে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের পরিসংখ্যান প্রদানকারী নির্ভরযোগ্য সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটারের ওয়েবসাইট থেকে শনিবার (৩০ মে) বাংলাদেশ সময় বেলা সাড়ে ১০টায় সংগৃহীত তথ্যানুযায়ি, সংক্রমণ তালিকার ১১ থেকে ১৫ নম্বর অবস্থানে আছে যথাক্রমে পেরু, ইরান, চিলি, কানাডা ও মেস্কিকো। ১৬ থেকে ২০ নম্বর অবস্থানে রয়েছে যথাক্রমে চায়না, সৌদি আরব, পাকিস্তান, বেলজিয়াম ও কাতার। ২১ নম্বরে নেদারল্যান্ড এবং এরপরই (২২ নম্বরে) বাংলাদেশের অবস্থান।

এখনো কার্যকর কোন প্রতিষেধক আবিস্কার না হওয়ায় যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, জার্মানীসহ বিশ্বের শক্তিশালী রাষ্ট্রগুলো প্রাণঘাতি এ ভাইরাসটির সংক্রমণ মোকাবিলায় হিমশিম খাচ্ছে।

আক্রান্ত ও মৃত্যুর শীর্ষে থাকা দেশ যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যুর সংখ্যা এক লাখ ছাড়িয়ে গেছে। দেশটিতে করোনায় মোট আক্রান্ত হয়েছেন ১৭ লাখ ৯৩ হাজার ৫৩০ জন মানুষ। মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৪ হাজার ৫৪২ জনের। আক্রান্তের হিসেবে মৃত্যুর হার ১৭ শতাংশ। আয়তনে চতুর্থ এবং জনসংখ্যায় তৃতীয় অবস্থানে থাকা বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী দেশটি ভাইরাসটি প্রতিরোধে হিমশিম খাচ্ছে।

প্রায় ৯৩ লাখ ৩৭ হাজার বর্গ কিলোমিটার আয়তনের দেশ যুক্তরাষ্ট্র ৩৩ কোটি মানুষের বসবাস। দেশটিতে করোনার শনাক্তের জন্য মোট ১ কোটি ৬৮ লাখ ১০ হাজার ৭৭৮টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। দেশটিতে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৫ লাখ ১৯ হাজার ৫৬৯ জন মানুষ।

সংক্রমণ তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা দক্ষিণ আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে আক্রান্তের সংখ্যা ৪ লাখ ৬৮ হাজার ৩৩৮, মৃত্যু হয়েছে ২৭ হাজার ৯৪৪ জনের। রাশিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ৮৭ হাজার ৬২৩, মৃত্যু হয়েছে ৪ হাজার ৩৭৪ জনের। স্পেনে আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৮৫ হাজার৬৪৪, মৃত্যু হয়েছে ২৭ হাজার ১২১ জনের। যুক্তরাজ্যে (ব্রিটেন) আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৭১ হাজার ২২২, মৃত্যু হয়েছে ৩৮ হাজার ১৬১ জনের। ইতালিতে আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৩২ হাজার ২৪৮, মৃত্যু হয়েছে ৩৩ হাজার ২২৯ জনের। ফ্রান্সে আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৮৬ হাজার ৮৩৫, মৃত্যু হয়েছে ২৮ হাজার ৭১৪ জনের। জার্মানিতে আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৮৩ হাজার ১৯, মৃত্যু হয়েছে ৮ হাজার ৫৯৪ জনের। ভারতে আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৭৩ হাজার ৭৬৩, মৃত্যু হয়েছে ৪ হাজার ৯৮০ জনের। তুরস্কে আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৬২ হাজার ১২০, মৃত্যু হয়েছে ৪ হাজার ৪৮৯ জনের।

সংক্রমণ তালিকার ২২ নম্বরে থাকা বাংলাদেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৪২ হাজার ৮৪৪, মৃত্যু হয়েছে ৫৮২ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৯ হাজার ১৫ জন।

করোনার উৎসস্থল চীন চলে গেছে সংক্রমণ তালিকার ১৬ নম্বরে। দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৮২ হাজার ৯৯৯, মৃত্যু হয়েছে ৪ হাজার ৬৩৪ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৭৮ হাজার ৩০২ জন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রে করোনার সংক্রমণকে পার্ল হারবার এবং টুইন টাওয়ারে হামলার চেয়েও মারাত্মক বলে মন্তব্য করেছেন। ট্রাম্প ও তার মিত্ররা করোনা মাহামারীর জন্য সরাসরি চীনকে দায়ী করছে। তবে চীন বরাবরই এই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। এদিকে শুরুতে বিপাকে পড়লেও প্রায় সাড়ে চার মাসে প্রাদুর্ভাব অনেকটাই সামলে উঠেছে করোনার উৎসস্থল চীন। যদিও নতুন করে হারবিন শহরে সংক্রমণ ধরা পড়েছে।

নভেল (নতুন) করোনাভাইরাসের উৎস চীনের গবেষণাগার নাকি প্রাকৃতিকভাবেই এর উৎপত্তি; বিষয়টি তদন্ত করে দেখতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের আহ্বানে একজোট হওয়া একশ’রও বেশী দেশের জোরালো দাবির মুখে তাতে সম্মত হয়েছে চীন। চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বলেছেন, এ ধরণের তদন্ত অবশ্যই ‘বস্তুনিষ্ঠ এবং নিরপেক্ষভাবে’ হতে হবে। তিনি আরও বলেন, এই তদন্তে বৈজ্ঞানিক এবং পেশাদার মনোভাব থাকা দরকার। তদন্তটি বিশ্ব স্বাস্থ সংস্থার নেতৃত্বে হওয়া প্রয়োজন।

সাড়ে চার মাসে প্রাণঘাতি এ ভাইরাসের সংক্রমণে থমকে গেছে গোটা বিশ্ব। লকডাউনে স্থবির হয়ে পড়েছে অর্থনীতি।