download

মুসলিমদের লাখ লাখ ফরাসিকে হত্যা করার অধিকার রয়েছে : মাহাথির

image

অতীত গণহত্যার জন্য লাখ লাখ ফরাসি মানুষ হত্যার অধিকার রয়েছে মুসলিমদের।, এমন মন্তব্য করে বিতর্কের ঝড় তুলেছেন মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ।

৯৫ বছর বয়সী এ নেতা বলেছেন, তিনি মুক্তবাকে বিশ্বাসী। কিন্তু সেটি কাউকে অপমানের জন্য ব্যবহার করা উচিত নয়।

মাহাথির বলেন, অতীত গণহত্যার জন্য লাখ লাখ ফরাসি মানুষ হত্যার অধিকার রয়েছে মুসলিমদের। কিন্তু এখন পর্যন্ত মুসলিমরা ‘চোখের বিনিময়ে চোখ’ নীতির প্রয়োগ করেনি। তার কথায়, মুসলিমরা এটা করে না। ফরাসিদেরও করা উচিত নয়।

বর্ষীয়ান এ নেতা তার বক্তব্যটি নিজের ব্লগ ও টুইটার অ্যাকাউন্টে শেয়ার করেছেন। তবে নীতি ভঙ্গের দায়ে তার একটি পোস্ট মুছে ফেলেছে টুইটার কর্তৃপক্ষ।

চলতি মাসের শুরুর দিতে উত্তর-পশ্চিম প্যারিসের একটি স্কুলের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক স্যামিয়েল প্যাটি তার ক্লাসে মহানবী (স)-এর ব্যঙ্গচিত্র দেখান। এর জেরে তাকে শিরশ্ছেদ করে হত্যা করেন এক মুসলিম যুবক। পরে পুলিশের গুলিতে নিহত হন তিনি।

এ ঘটনার পর ফরাসি প্রেসিডেন্টে এমান্যুয়েল ম্যাক্রোঁ ঘোষণা দেন, মুসলিমদের তীব্র আপত্তি সত্ত্বেও তার দেশ মহানবী (স)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন বন্ধ করবে না। পরে দেশটির দু’টি সরকারি ভবনে প্রজেক্টরের মাধ্যমে বড় করে সেই বিতর্কিত ছবি দেখানো হয়।

এরপরই ক্ষোভের আগুন ছড়িয়ে পড়ে গোটা মুসলিম বিশ্বে। প্রিয়নবীকে অপমানের জবাবে শুরু হয় তুমুল বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ। দেশে দেশ ছড়িয়ে পড়ে ফ্রান্স বয়কটের ডাক। এমনকি, ফরাসি রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কারের দাবিও উঠেছে অনেক জায়গায়।

এ বিষয়ে ইঙ্গিত করে মাহাথির মোহাম্মদ লিখেছেন, মাত্র একজন ক্ষুব্ধ ব্যক্তির কাজের জন্য আপনি যখন সব মুসলিম ও মুসলিমদের ধর্মকে দোষারোপ করেন, তখন মুসলিমদেরও অধিকার রয়েছে ফরাসিদের শাস্তি দেয়ার।

ফরাসি প্রেসিডেন্টের সমালোচনা করে প্রবীণ এ নেতা বলেন, তিনি খুবই সেকেলে।ফরাসি জনগণের উদ্দেশে মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী বলেন, ফরাসিদের উচিত তাদের মানুষদের অন্যের অনুভূতিকে সম্মান করতে শেখানো।

এদিকে, বৃহস্পতিবার ফ্রান্সের নিস শহরে ছুরি হামলায় তিনজন নিহত এবং বহু মানুষ আহত হওয়ার দিনই মাহাথিরের এমন বক্তব্যে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে বিভিন্ন মহল।

ফ্রান্সের ডিজিটাল শিল্প ও যোগাযোগ বিষয়ক জুনিয়র মন্ত্রী সেড্রিক ও বলেছেন, তিনি টুইটারের স্থানীয় ব্যবস্থাপনা পরিচালকের সঙ্গে কথা বলেছেন এবং মাহাথিরের অ্যাকাউন্টটি ডিলিট করে দেয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন।

তার মতে, এটি না করলে ‘হত্যাকাণ্ডের আনুষ্ঠানিক আহ্বানের সহযোগী’ হিসেবে দায়ী থাকবে টুইটার।

অবশ্য মাহাথির মোহাম্মদের ‘লাখ লাখ ফরাসি হত্যা’ বিষয়ক টুইট মুছে ফেলা হলেও ‘অন্যদের সম্মান’ বিষয়ক টুইট এখনও দেখা যাচ্ছে। রয়েছে মালয়েশীয় নেতার টুইটার অ্যাকাউন্টও।