সুদানে অভ্যুত্থানকারী সামরিক নেতা আউফের পদত্যাগ

image

অভ্যুত্থানের মাধ্যমে তিন দশকের শাসক ওমর আল বশিরকে ক্ষমতাচ্যুত করার এক দিনের মাথায় পদত্যাগ করেছেন সুদানের সামরিক কাউন্সিলের প্রধান ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী আওয়াদ ইবনে আউফ। তবে বশিরের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ অব্যাহত থাকায় পরদিন (শুক্রবার) রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে সামরিক কাউন্সিল প্রধান হিসেবে পদত্যাগের ঘোষণা দেন আউফ। এসময় নিজের উত্তরসূরি হিসেবে দেশটির সামরিক বাহিনীর লেফটেন্যান্ট জেনারেল আবদেল ফাত্তাহ আবদেলরহমান বুরহানের নাম ঘোষণা করেছেন তিনি।

১১ এপ্রিল বৃহস্পতিবার সাবেক প্রেসিডেন্ট বশিরকে ক্ষমতাচ্যুত করার পরই আওয়াদ ইবনে আউফ দেশটির সামরিক কাউন্সিলের প্রধান হন। অভ্যুত্থানের পর সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয় দুই বছর ক্ষমতায় থাকার পর নির্বাচন দেবেন তারা। গত ডিসেম্বরে জ্বালানি ও রুটির দাম বৃদ্ধির এক সরকারি ঘোষণাকে কেন্দ্র করে সুদানে বিক্ষোভ শুরু হয়। ১৯৮৯ সাল থেকে ক্ষমতায় থাকা প্রেসিডেন্ট ওমর আল বশিরকে সরাতে এসময় সামরিক বাহিনীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন বিক্ষোভকারীরা। তবে সামরিক বাহিনী দৃশ্যত প্রেসিডেন্টের পক্ষে থাকায় সম্প্রতি দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত সেনাসদরের সামনে অবস্থানের ঘোষণা দেন আন্দোলনকারীরা। এরমধ্যেই বৃহস্পতিবার সেনা অভ্যুত্থানের খবর আসে। ওই অভ্যুত্থানের নেতৃত্ব দেন সামরিক কাউন্সিলের প্রধান আওয়াদ ইবনে আউফ। তবে তাকেও বসিরের ঘনিষ্ঠ আখ্যা দিয়ে রাজপথে অবস্থান ধরে রাখে বিক্ষোভকারীরা। উদ্ভূত পরিস্তিতে পদত্যাগের ঘোষণা দিলেন তিনি। ২০০০ সালে দারফুরে সংঘাতের সময় সুদানের সামরিক গোয়েন্দা শাখার প্রধান নিযুক্ত হন আওয়াদ ইবনে আউফ। ২০০৭ সালে তার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র। আউফের পদত্যাগকে নিজেদের বিজয় আখ্যা দিয়েছেন সুদানের বিক্ষোভের নেতৃত্ব দেয়া সংগঠন সুদানের পেশাজীবী সংস্থা। সামরিক বাহিনী দুই বছর ক্ষমতায় থাকার ঘোষণা দিলেও বিক্ষোভকারীরা বেসামরিক শাসনের দাবিতে বিক্ষোভ অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন।

বিক্ষোভে পুলিশের গুলিতে নিহত ১৬

এদিকে দেশটিতে চলমান বিক্ষোভে পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছেন কমপক্ষে ১৬ বেসামরিক নাগরিক। এছাড়াও এতে আহত হয়েছেন আরও ২০ জন। ১৩ এপ্রিল শনিবার এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে দেশটির পুলিশ। বিবৃতিতে বলা হয়, বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার বিক্ষোভে পুলিশ গুলি চালালে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। পুলিশের মুখপাত্র হাসেম আলী বলেন, বিক্ষোভকারীরা বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি ভবনে হামলা চালিয়েছে। দারিদ্র্যপীড়িত সুদানে বিগত তিনমাস ধরেই রুটি ও জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর কারণে দেশটির রাষ্ট্রপতি বশির আল-ওমরের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ শুরু হয়। বিক্ষোভকারীদের হটাতে নিরাপত্তা বাহিনীর বলপ্রয়োগের কারণে উল্টো এ বিক্ষোভ তার পতনের দাবিতে বৃহত্তর আন্দোলনে রূপ নেয়। এসব ঘটনার জেরে ১১ এপ্রিল প্রেসিডেন্ট বশিরের পদত্যাগ ঘোষণা করে দেশটির সামরিক বাহিনী।