প্রকাণ্ড কৃষ্ণগহ্বরের সন্ধান!

image

সম্প্রতি সূর্যের চেয়েও ১০০ গুণ বেশি ভরবিশিষ্ট প্রকাণ্ড এক কৃষ্ণগহ্বরের সন্ধান পাওয়া গেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এতে বিজ্ঞানীরা এতটাই ভড়কে গেছেন যে, তারাও চাইছেন, বাস্তবে যেন এমন কিছুর অস্তিত্ব না থাকে! এদিকে ইউরোপভিত্তিক মহাকর্ষীয় পর্যবেক্ষক সংস্থা লিগো অ্যান্ড ভারগো এখনই সম্ভাব্য এ কৃষ্ণগহ্বরের বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে।

১ সেপ্টেম্বর রোববার রুশ সংবাদ মাধ্যম আরটি এক প্রতিবেদনে জানায়, পর্যবেক্ষক সংস্থা লিগো অ্যান্ড ভারগোর মহাকর্ষীয়-তরঙ্গ শনাক্তকারী যন্ত্র সম্ভাব্য এ কৃষ্ণগহ্বরটি শনাক্ত করেছে। এর আগ পর্যন্ত পদার্থবিদরা সর্বোচ্চ যত বড় কৃষ্ণগহ্বরের অস্তিত্ব আন্দাজ করতেন, এটি তার চেয়েও দ্বিগুণ। কীভাবে এত বড় কৃষ্ণগহ্বরের জন্ম হতে পারে তার ব্যাখ্যা খুঁজতে বিজ্ঞানীদের গলদঘর্ম হতে হচ্ছে। বিজ্ঞানবিষয়ক মার্কিন ম্যাগাজিন কোয়ান্টার একটি ব্যাখ্যা হচ্ছে, হয়তোবা ছোট ছোট কৃষ্ণগহ্বর মিলিত হয়ে এমন অতিকায় কিছুর সৃষ্টি হয়ে থাকতে পারে। মহাবিশ্বের ঘনত্ববহুল কোনো স্থানে এ ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে বলেও বিজ্ঞানীদের ধারণা। এটি গুজব নাকি সত্যি, এ বিষয়েও পর্যবেক্ষক সংস্থা লিগো অ্যান্ড ভারগো একেবারে নিশ্চুপ। চলতি বছরের এপ্রিলে কৃষ্ণগহ্বরটি নিয়ে নতুন পর্যায়ে পর্যবেক্ষণ শুরু করেছে প্রতিষ্ঠানটি। এ নিয়েও এখন পর্যন্ত বিস্তারিত কিছু জানায়নি তারা। আগামী ২০২০ সালের বসন্ত নাগাদ লিগো অ্যান্ড ভারগো এ বিষয়ে জানাবে বলে আশা করা হচ্ছে। ফলে সম্ভাব্য এ কৃষ্ণগহ্বর আদৌ আছে কি-না, কিংবা থাকলেও কী করে তা সম্ভব, তা জানতে হলে ততো দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।