ভিশনস্প্রিং এর ক্লিয়ার ভিশন ওয়ার্কপ্লেস (সিভিডব্লিউ) প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত

image

চোখের স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও সাশ্রয়ী মূল্যে চশমা সরবরাহ করার মাধ্যমে কর্মীদের সুরক্ষা ও উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি করা বিষয়ক সম্প্রতি অনুষ্ঠিত এক সভায় অর্ধ শতাধিক কর্পোরেট প্রতিনিধি, আন্তর্জাতিক সংস্থা, সরকার ও শিল্প প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিগণ অংশ নিয়েছেন। ভিশনস্প্রিং এর ক্লিয়ার ভিশন ওয়ার্কপ্লেস (সিভিডব্লিউ) প্রোগ্রামের অংশ হিসেবে আয়োজিত এই সভায় প্রতিষ্ঠানের কর্মী কল্যাণ ও উৎপাদনশীলতা বাড়ানোর অন্যতম কার্যকরী সমাধান হিসেবে চশমা ব্যবহারের উপর জোর দেওয়া হয়েছে।

ভিশনস্প্রিং এর একটি সামাজিক উদ্যোগের আওতায় বিশ্বব্যাপী ৬ মিলিয়নেরও বেশি মানুষের জন্য চশমাকে সুলভ করা হয়েছে। সভায় ‘ক্লিয়ার ভিশন’কে একটি শক্তিশালী অর্থনৈতিক ও সামাজিক প্রভাবক হিসাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। সিভিডব্লিউ প্রোগ্রামের মাধ্যমে ইতোমধ্যে বাংলাদেশের ১৮ হাজারেরও বেশি পোশাক শ্রমিক চশমা পেয়েছেন। চশমা ব্যবহারের পর এই শ্রমিকদের ৬২% জানিয়েছেন সূচে সুতা লাগানোর কাজটা তাদের জন্য আগের তুলনায় অনেক সহজ হয়ে গেছে এবং ৭৯% জানিয়েছেন কর্মক্ষেত্রে হতাশাও অনেক কমে গেছে।

সভায় ইউ.এস. এজেন্সি ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভলপমেন্ট (ইউএসএআইডি)-এর মিশন ডিরেক্টর ডেরিক ব্রাউন বলেন, “বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের চোখের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা এবং প্রতিষ্ঠানের কর্মী ও পরিচালনা পর্ষদের জন্য সাশ্রয়ী মূল্যে রিডিং গ্লাস ও চিকিৎসক কর্তৃক সুপারিশকৃত চশমা বিতরণে ভিশনস্প্রিং ও আরএমজি (তৈরি পোশাক খাত) সোর্সিং ব্র্যান্ডগুলোর সহযোগী হয়েছে ইউএসএআইডি।”

সভার প্রধান অতিথি পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান ও ইন্টার পার্লামেন্টারি ইউনিয়নের (জেনেভা) প্রেসিডেন্ট সাবের হোসেন চৌধুরী তার বক্তব্যে বলেন, “ভিশনস্প্রিং এর ক্লিয়ার ভিশন ওয়ার্কপ্লেস প্রোগ্রাম এবং তার অংশ হিসেবে আয়োজিত আজকের এই সভা বাংলাদেশের শিল্প প্রতিষ্ঠানসমূহের জন্য কর্মক্ষেত্রে চোখের ক্লিয়ার ভিশন নিশ্চিত করার মাধ্যমে অগ্রগতি বাড়ানোর ক্ষেত্রে একটি ভালো সুযোগ।”

ভিশনস্প্রিং-এর সিইও এলা গুডউইন বলেন, “বিশ্বের কমপক্ষে এক-চতুর্থাংশ শ্রমিকের চশমা ব্যবহার করা আবশ্যক”। “ঝাপসা চোখে সূচে সুতা লাগানো, ফেব্রিকের ত্রুটি খোঁজা, তাঁত চালানো কিংবা চায়ের কুঁড়ি সংগ্রহ করার চিত্রটি একবার ভাবা যাক। এমন দৃশ্য সত্যিই বেদনাদায়ক।”

২০১৮ সালে বাংলাদেশে প্রোগ্রামটি চালু হওয়ার পর থেকে ১৬টি কারখানার প্রায় ৬৬,০০০ কর্মী ভিশন স্ক্রিনিং সুবিধা গ্রহণ করেছেন। মোট কর্মীর ২৭ শতাংশেরই চশমা ব্যবহারের প্রয়োজন ছিল এবং তাদের মধ্যে ৭০ শতাংশই ছিলেন নারী। সভায় ভিশনস্প্রিং ২০২২ সালের মধ্যে ২ লক্ষ ৫০ হাজার কর্মীর চোখ স্ক্রিনিং করার প্রতিশ্রুতি প্রদানের পাশাপাশি নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেছে।

ই-গভর্নমেন্ট ইআরপি প্রকল্পের ইনভেন্টরি মডিউলের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম উদ্বোধন

image

আইইডিসিআর এর হটলাইন নম্বরে বাংলালিংক গ্রাহকদের ফ্রি কল করার সুযোগ

image

১৫তম বছর পূর্ণ করলো ইমপ্যাক্ট পিআর

image

তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে ঢাকা-১০ আসন তথা দেশের উন্নয়ন করতে চাইঃ শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন

image

লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং সেক্টরে গবেষণা ও উন্নয়নের লক্ষ্যে কাজ করবে বিডা, এটুআই এবং বামা

image

ঢাকায় শেষ হল নারীদের জন্য ইনোভেশন ও উদ্যোক্তা বুটক্যাম্প

image

ন্যাশনাল হ্যাকাথন অন ফ্রন্টিয়ার টেকনোলজিস এ ১০ বিজয়ী

image

গ্যালাক্সি এস২০ সিরিজের প্রি-অর্ডার নিচ্ছে স্যামসাং ও গ্রামীণফোন

image

ঢাকায় শুরু হলো তিন দিনব্যাপী গার্লস ইনোভেশন ও উদ্যোক্তা বুটক্যাম্প

image