শেষ হলো ৫ম বাংলাদেশ জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াডের জাতীয় পর্ব

image

বিজ্ঞান চর্চা ছড়িয়ে দেওয়ার আহবান জানিয়ে শেষ হলো ৫ম বাংলাদেশ জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াডের জাতীয় পর্ব। ৬ সেপ্টেম্বর শুক্রবার ঢাকার গ্রিন রোডের ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকে শুরু হয় আয়োজন। এতে অংশ নেয় সারা দেশে অনুষ্ঠিত আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক ৫ম বাংলাদেশ জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াডের আঞ্চলিক পর্বের বিজয়ী পাঁচ শতাধিক শিক্ষার্থী।

সকাল নয়টায় অলিম্পিয়াডটি উদ্বোধন করেন একুশে পদক প্রাপ্ত জাতীয় অধ্যাপক ও ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকের উপাচার্য ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী। তিনি বলেন, দুই দশক ধরে আমাদের জ্ঞানভিত্তিক অলিম্পিয়াড শুরু। আর গণিত অলিম্পিয়াড শুরু ২০০৩ সালে। বিজ্ঞান অলিম্পিয়াডে প্রাক বিশ^বিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থীরা অংশ নিচ্ছে। কিন্তু বিজ্ঞানে এখনো স্বর্ণপদক আসেনি। এটি আমার কাছে একটি দূর্বলতা বলে মনে হয়। আমাদের দেশের বিদ্যালয়গুলোতে ল্যাব ফ্যাসিলিটি পর্যাপ্ত নয়। এটি আমাদেরকে পিছিয়ে দিচ্ছে। আমাদের লক্ষ্য উচ্চশিক্ষার জন্য শিক্ষার্থীদের প্রস্তুত করা। এরাই বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।

কিশোর আলোর সম্পাদক আনিসুল হক লিয়েফ ত্লস্তোয় এর কথা উদ্ধৃত করে বলেন, “তোমার কাছে সব থেকে গুরত্বপুর্ন মানুষ হচ্ছে তোমার সামনের মানুষটি, সব থেকে গুরুত্বপুর্ন সময় এখন আর সব থেকে গুরুত্বপুর্ন কাজ হচ্ছে মানুষের সেবা করা”। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক সাজ্জাদুর রহমান ও বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. ফারসীম মান্নান মোহাম্মদি।

বিকেল চারটায় শুরু হয় আয়োজনের সমাপনী পর্ব। এই পর্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান। এসময় মন্ত্রী শিক্ষার্থীদের জ্ঞান চর্চার আহবান জানিয়ে বলেন, আমরা যারা যুদ্ধ করেছিলাম তারা তোমাদের কথা ভেবেছিলাম। তোমরা জ্ঞান চর্চার মাধ্যমে দেশকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাবে বলে আশা করি। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাব্বির আহমেদ। তিনি এবারের অলিম্পিয়াডের আন্তর্জাতিক আয়োজনে বাংলাদেশ স্বর্ণপদক জিতবে বলে আশা প্রকাশ করেন। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকের উপ-উপাচার্য ড. এম. আর কবির বলেন, জীবনে সফল হতে হলে দুইটি কাজ অবশ্যই করতে হবে। আত্নবিশ্বাসী ও ভালো মানুষ হতে পারলেই তাকে স্মার্ট বলা যাবে। আত্মবিশ্বাসী হলে জীবনে কেউ পিছিয়ে পড়বে না। আর ভালো মানুষ হলে নিজের যেমন উন্নতি হবে ঠিক তেমনি জাতিও উন্নতি করবে। আয়োজনে বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশনের কোষাধ্যক্ষ ডঃ রেজাউর রহমানের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন ৫ম বাংলাদেশ জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াডের আহ্বায়ক মুনির হাসান। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট জালাল আহমেদ।

আগামী ১১ সেপ্টেম্বর জাতীয় পর্বের বিজয়ীদের নিয়ে অনুষ্ঠিত হবে ৫ম বিডিজেএসও ক্যাম্প। বিডিজেএসও ক্যাম্পের সেরাদের নিয়ে আয়োজিত হবে বিডিজেএসও এক্সটেনশন ক্যাম্প। সেখান থেকে বাছাই করা হবে কাতারের দোহায় ডিসেম্বরে অনুষ্ঠেয় ১৬তম আন্তর্জাতিক জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াডের জন্য ছয় সদস্যের বাংলাদেশ দল।

বিডিজেএসও যৌথভাবে আয়োজন করছে বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতি (এসপিএসবি) ও বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশন (বিএফএফ)। আয়োজনটির পৃষ্ঠপোষক আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড। সহযোগী হিসেবে আছে দৈনিক প্রথম আলো। ম্যাগাজিন পার্টনার কিশোর আলো ও বিজ্ঞানচিন্তা। টেলিভিশন পার্টনার নাগরিক টিভি, কমিউনিকেশন পার্টনার বিজ্ঞান বাক্স ও নলেজ পার্টনার ম্যাসল্যাব।

অলিম্পিয়াডের বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে বিডিজেএসও-র ওয়েবসাইট www.bdjso.org এবং ফেইসবুক পেইজ www.facebook.com/bdjso এ।