নির্বাচনের দায়িত্ব পালনকালে সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারীদেরকে গ্রেফতারের দাবিতে আল্টিমেটাম

image

ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সাংবাদিকদের ওপর হামলায় জড়িতদের গ্রেফতার করা না হলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে। বুধবার (৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধন ও প্রতিবাদ কর্মসূচিতে সাংবাদিক নেতারা এ হুঁশিয়ারি দেন। গত ১ ফেব্রুয়ারি নির্বাচনের দায়িত্ব পালনকালে সাংবাদিক মোস্তাফিজুর রহমান সুমনকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা, নুরুল আমিন জাহাঙ্গীর, উজ্জল হোসেন জিসান ও মাহবুব মমতাজীর ওপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ক্র্যাবের সভাপতি আবুল খায়ের, সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান বিকু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত কাওসার, সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুজ্জামান লাবু, দফতর সম্পাদক শহিদুল ইসলাম রাজী, সাবেক সভাপতি আবু সালেহ আকন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান খান, দীপু সরোয়ার, মাহাবুবুল আলম লাভলু, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সভাপতি রফিকুল ইসলাম আজাদ, সাবেক সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশাসহ ক্র্যাব, ডিআরইউ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে), বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) নেতারা।

মানববন্ধনে নেতারা বলেন, নির্বাচনে সাংবাদিকদের ওপর হামলা কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না। প্রতিটি হামলার ঘটনায় ভিডিও ফুটেজ থাকলেও পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি। অথচ খিলগাঁওয়ে পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় নির্বাচিত এক কাউন্সিলরকে দ্রুত সময়ের মধ্যে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এতে বোঝা যায় পুলিশের আন্তরিকতার অভাবে সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারীদের গ্রেফতার হচ্ছে না। আগামী শনিবারের মধ্যে যদি আওয়ামী লীগ নামধারী অতি উৎসাহী ওই হামলাকারীদের গ্রেফতার না করা হয় তাহলে ডিআরইউ, ক্র্যাব, ডিইউজে, বিএফইউজের সমন্বয়ে কঠোর কর্মসূচি হাতে নিতে বাধ্য হবে সাংবাদিক সমাজ। বক্তারা আরও বলেন, সাংবাদিকদের মধ্যে কোন মতপার্থক্য নেই।