আগামী কয়েকদিনে করোনা পরিস্থিতি আরো কঠিন হবে: ওবায়দুল কাদের

image

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ঈদের প্রাক্কালে গ্রামে ও শহরে মানুষের অবাধ বিচরণ করোনা সংক্রমের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিয়েছে। দেশে আগামী কয়েকদিনে করোনা পরিস্থিতি আরো কঠিন হবে। এজন্য সবাইকে আরও সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। বুধবার (২৭ মে) দুপুরে রাজধানীতে নিজের সরকারি বাসভবনে আয়োজিত অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আমরা উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্যল করছি, অধিকাংশ মানুষের মাঝে ধৈর্য্যর শৃঙ্খলার ঘাটতি দেখা যাচ্ছে। অনেকে স্বাস্থ্যববিধি মেনে ঘরে অবস্থান করলেও অনেকেই এসব কানে তুলছে না। স্বাভাবিক সময়ের মতো ঘোরাফিরা করছেন। হাটে বাজারে ভিড়ে সমাগমে অংশ নিচ্ছেন। স্বাস্থ্যমবিধি সামাজিক দূরত্ব মেনে চলছেন না।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, এই উদাসীনতা নিজ ও আশপাশের জন্য্ ভয়াবহ বিপদ ডেকে আনছেন। অবনিত ঘটাচ্ছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ উদ্যোযগের। শহরে গ্রামে সর্বত্র সংক্রমণ ও মৃত্যু বাড়ছে। কাজেই দয়া করে আসুন সবাই সচেতন হই। স্বাস্থ্যগবিধি সামাজিক দূরত্ব মেনে চলি। কারণ প্রতিকার সমাধান নয়। এই ভাইরাস থেকে বাঁচতে সুরক্ষা পেতে প্রতিরোধের কোনো বিকল্প নেই। ওবায়দুল কাদের, একজনের সামন্যথতম শৈথিল্যন তার নিজ পরিবার এবং পাশ্ববর্তী সবার জন্য ভয়াবহ বিপদ ডেকে আনতে পারে।

করোনা সংক্রমণের দিক দিয়ে বাংলাদেশের অবস্থানের আরো অবনতি হয়েছে জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ইতিমধ্যে বিশ্বে আক্রান্ত ২১৫টি দেশ এবং অঞ্চলের মধ্যেে বাংলাদেশের অবস্থানের আরো অবনিত হয়েছে। বাংলাদেশের অবস্থা বর্তমানে ২৩তম। এই সংক্রমণ থেকে ছোট-বড়, ধনী-দরিদ্র কেউই রেহাই পাচ্ছে না। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে রেহাই পেতে প্রতিরোধ ব্যসবস্থা জোরদার তথা সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই। সামনের কঠিন সময়ে আসুন আমরা ঐক্যধবদ্ধ হয়ে সম্মিলিতভাবে প্রতিরোধ গড়ে তুলি।