কাঁচা লবন আমদানিতে দুর্নীতি প্রতিরোধ করতে দুদকের ১০ দফা সুপারিশ

image

কাঁচা লবন আমদানীর ক্ষেত্রে আমাদানীকারক প্রতিষ্ঠানগুলো সক্ষমতা ও মার্কেট শেয়ারিং এবং আয়োডিন ব্যবহারের দক্ষতা না দেখেই আমদানীর অনুমোদন দেয়া হয়। এর ফলে বিভিন্ন ভুয়া প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে কাঁচা লবন আমদানীতে ব্যাপক অনীয়ম ও দুর্নীতি হয়। এসব অনীয়ম দূর করে দুর্নীতি প্রতিরোধে ১০ দফা সুপারিশ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন দুদক। দুদকের সচিব মুহাম্মদ দিলোয়ার বখত সাক্ষরিত সুপারিশমালা ১৩ জুন বৃহস্পতিবার মন্ত্রি পরিষদ সচিবের কাছে পাঠানো হয়েছে।

দুদক সূত্র জানায়, দুর্নীতি দমন কমিশনের সচিব মুহাম্মদ দিলোয়ার বখ্ত এর স্বাক্ষরে শিল্প প্রতিষ্ঠানের সক্ষমতা, মার্কেট শেয়ারিং ও আয়োডিন ব্যবহারের দক্ষতা বিবেচনায় না নিয়ে বিভিন্ন ভূয়া প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে কাঁচা লবণ আমদানির অনুমতি প্রদানের ক্ষেত্রে বিভিন্ন অনিয়ম প্রতিরোধে দুদকের ১০ দফা সুপারিশ সংবলিত পত্র মন্ত্রিপরিষদ সচিব বরাববরে প্রেরণ করা হয়েছে। এই পত্রের মাধ্যমে সুপারিশমালা বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা প্রদানের জন্য মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে অনুরোধও করা হয়েছে। এই পত্রের অনুলিপি বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও শিল্প মন্ত্রণালয় সচিব এবং বিসিক চেয়ারম্যান বরাবরে প্রেরণ করা হয়েছে। বর্ণিত বিষয়ের অভিযোগ অনুসন্ধানকালে জানা যায় যে, বিভিন্ন লবণ উৎপাদনকারী প্রতষ্ঠিানরে প্রকৃত সক্ষমতা যাচাই না করে সকল প্রতষ্ঠিানকে সমহারে বোল্ডার লবণ আমদানির অনুমোদন প্রদান করা হয়। উক্ত আমদানির অনুমোদন প্রক্রিয়া দুর্নীতি দমন কমিশনের নিকট যথাযথ নয় মর্মে প্রতীয়মান হয়।

দুদক মনে করে কাঁচা লবণ আমদানির ক্ষেত্রে নিন্মোক্ত সুপারিশমালা অনুসরণ করা যেতে পারে । এসব সুপারিশ হচ্ছে লবণের মৌসুম শেষ হওয়ার সাথে সাথে বিসিকের নিকট হতে লবণের চাহিদা ও উৎপাদিত লবণের পরিসংখ্যান সংগ্রহর্পূবক দ্রুততম সময়রে মধ্যে ঘাটতি লবণ আমদানরি বষিয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষপে গ্রহণ । নিজস্ব লবণ শিল্পকে সুরক্ষা প্রদানরে নিমিত্ত শুধুমাত্র প্রকৃত চাহদিার তুলনায় ঘাটতরি সমপরমিাণ বোল্ডার লবণ আমদানি নিশ্চিতকরণ। বিসিক সিআইডি প্রকল্পরে আওতায় ভোজ্য ও শিল্প লবণ উৎপাদনকারী লবণ মিল সমূহের র্কাযক্রম মনিটরিং করে বিধায় লবণ উৎপাদন ও বিপণনের সাথে জড়িত লবণ মিলের জন্য বিসিক এর নিবন্ধন গ্রহণ বাধ্যতামূলক করা। যে সকল লবণ মিল ভোজ্য লবণ বাজারজাত করে থাকে তাদরে নিজস্ব আইএসপি মেশিনে থাকা বাধ্যতামূলক করা। ভোজ্য লবণ আমদানির ক্ষেক্রে যে সকল লবণ মিল বিসিকের তালকিাভুক্ত সেগুলোর বাইরে অন্য কোন লবণ মিলকে লবণ আমদানির অনুমোদন প্রদান না করা। লবণ আমদানির জন্য যোগ্য মিল নির্বাচনের জন্য বিসিক, প্রধান আমদানি ও রপ্তানি নিয়ন্ত্রকের দপ্তর, শিল্প মন্ত্রণালয় এবং বাণজ্যি মন্ত্রণালয়রে প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে গঠিত একটি কমিটির মাধ্যমে নীতিমালা প্রনয়ণ ও তা বাস্তবায়নের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা। ভোজ্য লবণ উৎপাদন ও বাজারজাতকরণের ক্ষেত্রে বিএসটিআই এর অনুমোদন গ্রহণ বাধ্যতামূলক করা। কোন লবণ উৎপাদনকারী প্রতষ্ঠিান আমাদনির অনুমতিপ্রাপ্তির পর লবণ আমদানি না করলে পরবর্তীতে বছরে উক্ত প্রতষ্ঠিানকে লবণ আমদানির অনুমতি প্রদান না করা। গ্রুপ ভিত্তিক আমদানিকে নিরুৎসাহিত করা। পূর্ববর্তী বছর সমূহের উৎপাদন ও বিপণন সংক্রান্ত তথ্যাদির ভিত্তিতে লবণ মিলের উৎপাদন সক্ষমতা, নির্ধারণ; এবং সমহারে লবণ আমদানির অনুমোদন প্রদান না করে সক্ষমতার ভত্তিতি আমদানির অনুমোদন প্রদান করা।