জেলা উপজেলা থেকে শুরু করে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়োগ করা হবে কাউন্সিলর

image

শিক্ষার্থীদের কাউন্সিলিংয়ের জন্য দেশের প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে একজন নারী এবং একজন পুরুষ কাউন্সিলর নিয়োগ দেবে সরকার। বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) রাজধানীর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে বাংলাদেশ এডুকেশন রিপোর্টার্স ফোরাম (বিইআরএফ) আয়োজিত ‘শিক্ষার পরিববেশ ও শিক্ষার্থীর সার্বিক নিরাপত্তা’ শীর্ষক এক মত বিনিময় সভায় এ তথ্য জানান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক।

শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, ‘প্রথমে প্রতিটি জেলায়, সম্ভব হলে প্রতিটি উপজেলায় দুইজন করে কাউন্সিলর নিয়োগ করা হবে। পরবর্তীতে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে একজন নারী ও একজন পরুষ-দুইজন করে কাউন্সিলর নিয়োগ করা হবে।’ শিক্ষার্থীদের কাউন্সিলিয়ের জন্য শিক্ষকদের প্রশিক্ষণও দেওয়া হবে।

সরকার বিগত দশ বছরে শিক্ষায় অনেক এগিয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের অনেক সাফল্য। এখন কীভাবে মানসম্মত শিক্ষা দেওয়া যায়, সেই বিষয়টি আমাদের কাছে চ্যালেঞ্জ। একজন শিক্ষার্থী ভালো শুধু ফল করবে তা নয়, সচেতন ও সুনাগরিক হবে। সেটিই আসলে মানসম্মত শিক্ষা। মানসম্মত শিক্ষা অর্জন করতে হলে স্বাস্থের বিষয়টিও গুরুত্বপূর্ণ। শিক্ষার্থীর পুষ্টির কথা ভাবতে হচ্ছে, যা ১০ বছর আগেও ভাবা সম্ভব হয়নি।’

যৌন হয়রানির বিষয় নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘নৈতিকতার শিক্ষা প্রয়োজন, সংবেদনশীলতা দরকার এবং শিক্ষার্থীর সাহসী হওয়ারও প্রয়োজন রয়েছে। প্রথমেই বড় ঘটনা ঘটে না। যখন হয়রানির শিকার হয়েও চুপ করে থাকে তখন অপরাধীরা সুযোগ পেয়ে যায়। বড় ঘটনা ঘটানোর সুযোগ পায়।’

পরিবারের সবাইকে সংবেদনশীল হতে হবে মন্তব্য করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘নিপীড়নের শিক্ষার নারী শিক্ষার্থীকে শুধু সমাজে শুধু নয়, প্রথমে পরিবারেই নারীদের আটকে দেওয়া হচ্ছে, তাকেই অপরাধী সাব্যস্ত করছে। কাজেই সচেতনতা সংবেদনশীরতা পরিবার থেকেই শুরু হতে হবে। বাবা-মায়ের সচেতন হতে হবে। শিক্ষকদের সচেতন হতে হবে। নৈতিকতার শিক্ষা ভেঙ্গে গেলে জোড়া লাগানো যায় না। শিক্ষার্থীদের নৈতিকতার শিক্ষা দিতে হবে। গণমাধ্যমকে ভূমিকা রাখতে হবে।’

অনুষ্ঠানে ঢাবি’র সাবেক উপাচর্য প্রফেসর আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, ‘গণমাধ্যম পজেটিভ না নেগেটিভ সংবাদ করবে সেটি বিষয় নয়; গণমাধ্যম বস্তুনিষ্ট সংবাদ প্রচার করবে। তাহলেই অপরাধীকে চিহ্নিত করে শাস্তির আওতায় আনা যাবে। দেশের মানুষের নৈতিক অবক্ষয় রোধ করতে গণমাধ্যম ভূমিকা রাখছে, ভবিষ্যতে গণমাধ্যম আরও ভূমিকা রাখবে অপরাধীদের শস্তি নিশ্চিত করেতে। শিক্ষকরাই শিক্ষার্থীদের নৈকিতার শিক্ষা দেবে, যদি তা না হয় সেই লজ্জা শিক্ষকে বহন করতে হবে।’

মত বিনিময় সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ্, মাউশি’র পরিচালক (কলেজ ও প্রশাসন) প্রফেসর শাহেদুল খবির চৌধুরী, বিশিষ্ট শিক্ষক নেতা ও শিক্ষক-কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্টের সদস্য সচিব অধ্যক্ষ শাহজাহান আলম সাজু, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ফওজিয়া রেজওয়ান, সিটি কলেজের অধ্যক্ষ আনোয়ার হোসেন, বিইআরএফ’র সভাপতি মোস্তাফা মল্লিক, সাধারণ সম্পাদক এসএম আববাস এবং সাংগাঠনিক সম্পাদক নূর এ আলম পিন্টু।

মুজিববর্ষে অপরাজনীতি নিমূল করতে শপথ নেয়ার আহ্বান তথ্যমন্ত্রীর

image

১১০ কিলোমিটার নৌপথ দশ বছরেও উদ্ধার হয়নি

image

মুজিববর্ষ উদযাপনের নামে চাঁদাবাজি না করতে প্রধানমন্ত্রীর হুঁশিয়ারি : জানালেন ওবায়দুল কাদের

image

সৃজনশীল পদ্ধতিতে প্রশিক্ষণ নিয়েও প্রশ্নপত্র প্রণয়নে নোট-গাইডগুলোর ওপর নির্ভরশীল শিক্ষা বোর্ডগুলো

image

মন্ত্রিসভায় ‘বাংলাদেশ শিশু হাসপাতাল ও ইনস্টিটিউশন আইন ২০২০’ এর অনুমোদন

image

ফিফা বিশ্বকাপ উপলক্ষে বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিতে আগ্রহী কাতার : চারটি সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরিত

image

ভ্যাট-ট্যাক্স ফাঁকিবাজদের শান্তিতে ঘুমাতে দেওয়া হবে না

image

সড়ক-মহাসড়কে অনুপযোগী যান চলাচলের তদারকি ও বন্ধ করতে টাস্কফোর্স গঠনের নির্দেশ

image

কক্সবাজার পরিবেশের উন্নয়ন ও জীবিকার সুযোগ বৃদ্ধির লক্ষে জাতিসংঘের সেইফ প্লাস প্রকল্প

image