দুর্নীতি দমনকারী নিজেই দুর্নীতিগ্রস্ত হবেন না : দুদক কমিশনার

image

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কমিশনার ড. মো. মোজাম্মেল হক খান বলেছেন, দুর্নীতি দমনকারী নিজেই দুর্নীতিগ্রস্ত হবেন না। এতে দুর্নীতিবাজরা হাসবে। বলবে, দুর্নীতি দমনকারীদের আমরা ম্যানেজ করে চলি। এটা থেকে নিজেকে বাঁচাতে হবে। শনিবার (১১ জানুয়ারি) সকালে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে দুদক ও কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের (সিটিটিসি) উদ্যোগে সপ্তাহব্যাপী যৌথ প্রশিক্ষণ কর্মশালা উদ্বোধনকালে দুদক কর্মকর্তাদের উদ্দেশে একথা বলেন তিনি। সিটিটিসির প্রধান মনিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম, দুদকের মহাপরিচালক (আইসিটি ও প্রশিক্ষণ) একেএম সোহেল প্রমুখ।

দুদকের কর্মকর্তাদের উদ্দেশে ড. মো. মোজাম্মেল হক খান বলেন, আমাদের দুর্নীতি দমন একটি আন্দোলন। এই আন্দোলন সবাই মিলে করতে হয়। পুলিশ আমাদের পাশে থাকলে নিজেদের আরও শক্তিশালী মনে হয়। একসময় দুদককে নিয়ে মানুষ ব্যঙ্গ করতো, সে অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে। ইমেজ সংকট কাটিয়ে উঠেছে দুদক। যদি আপনাদের চোখের সামনে কেউ হঠাৎ আঙুল ফুলে কলাগাছ হয়ে যায়, বুঝবেন এটা কোন স্বাভাবিক কারণ নয়, এর পেছনে অবৈধ দুর্নীতি জড়িত। আমরা সেই দুর্নীতি মুছে ফেলতে চাই। ড. মোজাম্মেল বলেন, দুর্নীতির বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। তিনি বলেন, এখনকার ছেলেমেয়েদের বিসিএসে কোন বিশেষ কারণে বিশেষ ক্যাডারের প্রতি আগ্রহ অনেক বেশি। নির্দিষ্ট কয়েকটি ক্যাডারের দিকে সবাই তাকিয়ে থাকে। তবে সেগুলো ভালো উদ্দেশ্যে তারা পছন্দ করে না। এই প্রশিক্ষণের ফলে দুদকের অনেক লাভ হবে বলেও জানান তিনি।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম বলেন, প্রযুক্তিগত জ্ঞান ব্যবহার করে অর্থের উৎস, কোথায় যায়, কোথা থেকে আসে এই কাজটি দুদক ও সিটিটিসি করে থাকে। মানিলন্ডারিংয়ের ক্ষেত্রে টাকা কোথায় যাচ্ছে তা খুঁজে বের করা জরুরি। এটা একটি জটিল প্রক্রিয়া। টাকার গতিবিধি ট্রেস করা একটি দুরূহ কাজ। আমরা চাই আমাদের কর্মকর্তারা ট্রেস করার টেকনিক ভালো করে জানুক। কেউ যাতে বলতে না পারে সে প্রভাবশালী বলে মামলায় ফাঁকফোকর রেখে তদন্ত করেছে।

দুদক কাউকে ধরলে তার বাঁচার কোন রাস্তা নেই, এই মেসেজটা সবাইকে দেয়া। দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে কমিশনার বলেন, দুর্নীতিবাজ যেসব কর্মকর্তা আছেন, তাদের আমরা ছাই দিয়ে ধরতে চাই। কেউ যেন মনে না করেন, অবৈধভাবে টাকা কামিয়ে তা নিয়ে সুখে থাকবেন। আমরা যাকে ধরতে চাই তাকে শক্ত করেই ধরতে চাই। অবৈধভাবে কেউ টাকা উপার্জন করলে তাকে সেটা ব্যবহার করতে দেয়া হবে না। তাদের বিনিয়োগ বন্ধ করা হবে। প্রশিক্ষণ নিতে আসা দুদক কর্মকর্তাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনারা রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে কাজ করেন। আপনাদের যত বিপদ আসুক, আমরা আপনাদের পাশে থাকবো।

কর্মশালার শুরুতে সিটিটিসি ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেন, সরকার সন্ত্রাস ও দুর্নীতির বিষয়ে জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা করেছেন। আমাদের কর্মকা- দিয়ে আমরা সন্ত্রাসকে রুখে দিচ্ছি। ২০১৬ সালের পর থেকে সন্ত্রাসীদের আর মাথা তুলে দাঁড়াতে দেইনি। ঠিক একইভাবে দুদক দুর্নীতিবাজদের মাথা তুলে দাঁড়াতে দিচ্ছে না। আমরা যৌথভাবে কাজ করলে সরকারের দুর্নীতি ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়ন হবে।

ডাক্তার ও রোগীদের সুরক্ষায় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ

image

করোনার প্রভাবে যথাসময়ে বিদ্যুৎ ও জ্বালানিখাতের প্রকল্প বাস্তবায়ন নিয়ে সংশয়

image

বিদেশি ডিগ্রির সমতাবিধানের নীতিমালা যুগোপযোগী করার উদ্যোগ

image

বিদেশফেরতদের পুলিশের তত্ত্বাবধানে হস্তান্তরের নির্দেশ হাইকোর্টের

image

নিত্যপণ্যের কৃত্রিম সঙ্কটকারীদের ধরতে চলছে বিশেষ অভিযান

image

মানুষ বাঁচাতে সব ব্যবস্থা : প্রয়োজনে শাটডাউন : ওবায়দুল কাদের

image

করোনা নিয়ে সরকারের কোন লুকোছাপা নেই : তথ্যমন্ত্রী

image

সংসদ উপনির্বাচন এবং সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোট গ্রহণের দিন-তারিখ বহাল

image

শেখ হাসিনার কণ্ঠে রেহানার কবিতা

image