ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে রাষ্ট্রের তিনটি বিভাগের সমন্বয় দরকার : প্রধানমন্ত্রী

image

সুপ্রিম কোর্ট কর্তৃক আয়োজিত জাতীয় বিচারবিভাগীয় সম্মেলনের উদ্বোধনীতে প্রধানমন্ত্রীকে সুপ্রিম কোর্টের প্রতীক প্রদান করেন প্রধান বিচারপতি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, শান্তি, ন্যায়বিচার ও উন্নয়ন নিশ্চিত করার পাশাপাশি সুষ্ঠুভাবে রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য রাষ্ট্রের তিনটি বিভাগ- নির্বাহী, আইন ও বিচারবিভাগের মধ্যে অবশ্যই যথাযথ সমন্বয় ও সুসম্পর্ক থাকতে হবে।

তিনি বলেন, ‘আমি সবসময় বিশ্বাস করি রাষ্ট্রের তিনটি বিভাগ নির্বাহী, আইন ও বিচারবিভাগ একটি রাষ্ট্রের জন্য অনিবার্য। এই বিভাগগুলো তাদের নিজেদের আইন অনুযায়ী পরিচালিত হবে। ন্যায়বিচার, শান্তি এবং সার্বিক উন্নয়ন নিশ্চিত করতে এই বিভাগগুলোর মধ্যে যথাযথ সমন্বয় জরুরি। শেখ হাসিনা শনিবার (৭ ডিসেম্বর) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) সুপ্রিম কোর্ট আয়োজিত ‘শান্তি ও উন্নয়নের জন্য ন্যায়বিচার’ শীর্ষক দিনব্যাপী জাতীয় বিচারবিভাগীয় সম্মেলন-২০১৯ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে একথা বলেন। তিনি বলেন, আমরা এমন একটি অবস্থান আশা করি যেখানে রাষ্ট্রের এই তিনটি বিভাগ একে অন্যের কার্যক্রমে হস্তক্ষেপ করবে না। এতে ন্যায়বিচার ও উন্নয়ন নিশ্চিতের পাশাপাশি শান্তি বজায় রাখা ও সুষ্ঠুভাবে রাষ্ট্র পরিচালনায় বিঘœ ঘটবে না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মহামান্য রাষ্ট্রপতি ‘ওয়ারেন্ট অব প্রিসিডেন্স’ তৈরি করেছেন এবং এটি পরিবর্তনের কর্তৃত্ব কেবল তারই। তিনি (রাষ্ট্রপতি) ‘রুলস অব বিজনেস’ ও তৈরি করেছেন। তিনি বলেন, ‘সংবিধানের ৫১ (১) এবং ৫৫ (৫) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী রাষ্ট্রপতির কার্যক্রম নিয়ে আদালতে কোন প্রশ্ন উঠতে পারবে না। তবে কখনও কখনও রাষ্ট্রপতির জুরিডিকশনের অধীন ইস্যুতে অর্ডার দিতে দেখছি।’ প্রধানমন্ত্রী আশা করেন যে, বিচারকরা তাদের মেধা ও সৃষ্টিশীলতা কাজে লাগানোর পাশাপাশি ন্যায়বিচার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় কাজ করে যাবেন।

শেখ হাসিনা প্রধান বিচারপতির প্রস্তাব অনুযায়ী অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো আইন বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পদক্ষেপ জোরদারে আইনমন্ত্রীকে নির্দেশ দেন। প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক। আইন ও বিচারবিভাগের সচিব মো. গোলাম সারোয়ার, সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার মো. আলী আকবর এবং মুন্সীগঞ্জের সিনিয়র দায়রা জজ হোসনে আরা অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি এবং সারাদেশের নিম্ন আদালতের বিচারকরা সম্মেলনে যোগ দেন।

জাতীয় বিচার বিভাগীয় সম্মেলন উপলক্ষে অনুষ্ঠানে একটি ভিডিও তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। শেখ হাসিনা বিদেশি ভাষায় বেশিরভাগ মামলার বাদী-বিবাদীর স্বল্প জ্ঞানের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে ইংরেজির পাশাপাশি বাংলায় মামলার রায় দেয়ার জন্য বিচারপতিদের প্রতি অনুরোধ জানান।

তিনি বলেন, ‘ইংরেজিতে স্বল্প জ্ঞানের কারণে আধিকাংশ বাদী-বিবাদীকে মামলার রায় বুঝার জন্য তাদের আইনজীবীদের ওপর নির্ভর করতে হয়। মামলা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের কোন রায়ের গুরুত্বপূর্ণ অংশ সম্পর্কে জানার কোন সুযোগ নেই এবং বহুক্ষেত্রে এজন্য তাদের হয়রানির শিকার হতে হয়। অতএব ইংরেজির পাশাপাশি বাংলায় বিচারের রায় প্রকাশ করা প্রয়োজন।’

তিনি আরও বলেন, বিচারপতিরা ইংরেজিতে রায় লিখতে পারবেন, তবে বাংলায় প্রকাশেরও ব্যবস্থা থাকা দরকার।

তিনি বলেন, ওই সংবিধানে দেশের জনগণের মতো বিচার এবং আইনের শাসন নিশ্চিত করা হয়।

তিনি আরও বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট পরিবারের অধিকাংশ সদস্যসহ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর দেশের সব ধরনের উন্নয়ন প্রক্রিয়া থেমে যায়।

ইনডেমনিটি আইন বাতিলের রায় দিয়ে জাতির পিতার হত্যার বিচারের পথ সুগম করার জন্য প্রধানমন্ত্রী বিচারবিভাগকে ধন্যবাদ জানান।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তাকে এই হত্যাকা-ের বিচার চেয়ে মামলা করতে না দেয়ায় তারা দীর্ঘদিন এর বিচার পাননি।

তিনি আরও বলেন, ১৯৯৬ সালে দেশের দায়িত্ব গ্রহণের পর ‘আমরা ইনডেমনিটি আইন বাতিল এবং বিচারকার্য শুরু করি। ইতোমধ্যে এই বিচার সম্পন্ন হয়েছে এবং কয়েকজন অপরাধীর ফাঁসি কার্যকর হয়েছে। কয়েকজন পলাতক রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু হত্যার পরে সামরিক স্বৈরশাসকদের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখল অবৈধ বলে অভিহিত করার কারণে বিচার বিভাগের প্রতিও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আদালতের রায় দেশে গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখতে এবং দেশের উন্নয়নের বজায় রাখতে সহায়তা করবে।’

ফেনী মাদরাসার ছাত্রী নুসরাত হত্যার মতো কয়েকটি চাঞ্চল্যকর মামলার দ্রুত নিষ্পত্তির কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই রায়ের মাধ্যমে বিচারবিভাগের প্রতি মানুষের আস্থা ও বিশ্বাস বৃদ্ধি পেয়েছে।

দেশে আইনশৃঙ্খলা এবং সুবিচার নিশ্চিতে বিচার বিভাগের উন্নয়নে তার সরকার গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের বর্ণনা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ লক্ষ্যে সরকার পর্যাপ্তসংখ্যক বিচারক নিয়োগ দিয়েছে এবং দেশব্যাপী আদালত ভবনের সংকট নিরসন এবং বিচারকদের আবাসন নিশ্চিতে পর্যাপ্ত অবকাঠামো স্থাপন করেছে।

প্রধানমন্ত্রী কুখ্যাত অপরাধীদের ঝুঁকি মোকাবিলায় বিচারকদের যথাযথ নিরাপত্তা দেয়ার আশ্বাস দেন।

শেখ হাসিনা বলেন, বিচারকদের সুরক্ষা ও নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে আবাসিক কমপ্লেক্সটি নির্মিত হয়েছিল।

তিনি উল্লেখ করেন, তার সরকার অসহায়, দরিদ্র এবং সুবিধাবঞ্চিত মানুষের জন্য ন্যায়বিচার পাওয়ার পথ প্রশস্ত করার জন্য আইনি সহায়তা পরিসেবা আইন-২০০০ কার্যকর করেছে।

বাংলাদেশ একটি ডিজিটাল দেশে পরিণত হয়েছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, দেশের বিচারব্যবস্থায় মামলা জট ও দীর্ঘসূত্রিতা দূর করার জন্য ই-জুডিশিয়ারি ব্যবস্থার প্রবর্তন জরুরি। অপরাধীদের পরিবহনের ঝুঁকি কমাতে ভার্চুয়াল আদালতের মাধ্যমে কুখ্যাত অপরাধীদের বিচার হতে পারে।